প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ আত্মসাতকারী গ্রেপ্তার

সুজন কৈরী: রাজধানীর মতিঝিল এলাকায় অভিযান চালিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে অর্থ হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগে নুরুল হক ওরফে দাদা নামের একজনকে গ্রেপ্তার করেছে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) গোয়েন্দা লালবাগ বিভাগ। মঙ্গলবার গোয়েন্দা লালবাগ বিভাগের অস্ত্র উদ্ধার ও মাদক নিয়ন্ত্রণ টিম তাকে গ্রেপ্তার করে।

গোয়েন্দা লালবাগ বিভাগের সহকারী পুলিশ কমিশনার মো. ফজলুর রহমান বলেন, গ্রেপ্তার নুরুল নিজেকে একজন আধ্যাত্মিক শক্তির অধিকারী হিসেবে সাধারণ মানুষের কাছে জাহির করতেন। মানুষের বিশ্বাস অর্জনের জন্য তিনি বলতেন, তিনি দীর্ঘ ৪ থেকে ৫ বছর জঙ্গলে ধ্যান করে আধ্যাত্মিক শক্তির অধিকারী হওয়ায় অফুরন্ত ধন সম্পদের মালিক হয়েছেন।

ফজলুর রহমান বলেন, নুরুল নিজেকে আগাম কর্পোরেশন, আগাম বহুমুখী ফার্ম, পিটি ট্রেড ইন্টারন্যাশনাল, এমএম এন্টারপ্রাইজ নামক বহু কোম্পানীর মালিক দাবি করতেন। কোম্পানীগুলোর অধীনে তার বাবু নগর ,সোনা মনি নগর, সরল পথ, গাভী পালন প্রকল্প ও এমএম মৎস খামরসহ শতাধিক প্রকল্প আছে বলে মিথ্যা প্রচারণা চালাতেন। এই প্রকল্প এবং কোম্পানীর সদস্য হইলে আর্থিকভাবে লাভবান হওয়ার প্রলোভন দেখাতেন। এভাবে তিন থেকে পনের হাজার টাকার বিনিময়ে সদস্য বানাতেন। এসব সদস্যদেরকে শাখা প্রধান, জোন প্রধান, হাই কমান্ড, পরিচালক ইত্যাদি পদ দেওয়ার মিথ্যা আশ্বাস দিয়ে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নেন।

পুলিশ কর্মকর্তা বলেন, দীর্ঘদিন অতিবাহিত হওয়ার পরও প্রতারণার স্বীকার ব্যক্তিরা নুরুলের কাছে লভ্যাংশের বা মূল টাকা ফেরত চাইলে তিনি তাদের পিতলের ডিম, পিতলের দরজা ইত্যাদি বানিয়ে আনতে বলেন। এরপর তিনি তার আধ্যাত্মিক শক্তির দোহাই দিয়ে মন্ত্র পড়ে তাতে ফু ও হাত দিয়ে ছুয়ে দিতেন। এরপর তা বাসায় রেখে প্রতিনিয়ত মোমবাতি প্রজ্জ্বলন করে গোলাপ জল দেওয়ার পরামর্শ দিতেন। এভাবেই তিনি সাধারণ মানুষের সাথে প্রতারণা করতেন। গ্রেপ্তারকৃতের বিরুদ্ধে দেশের বিভিন্ন থানায় একাধিক প্রতারণার অভিযোগের তথ্য পাওয়া গেছে।

গ্রেপ্তর নুরুলকে তুরাগ থানায় প্রতারণার অভিযোগে দায়ের করা মামলায় রিমান্ডের আবেদনসহ আদালতে পাঠানো হয়েছে।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত