প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

উভয়সংকটে বিএনপি : আবারো জামায়াত ছাড়ার সিদ্ধান্ত পাল্টালো বিএনপি

ডেস্ক রিপোর্ট : নানা সমালোচনার মুখে প্রায় দুই যুগের সঙ্গী জামায়াতে ইসলামীর সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্নের সিদ্ধান্ত নিয়েও ঘোষণা ঝুলিয়ে রেখেছে বিএনপি। জোট ত্যাগের চিঠি তৈরি করেও তা দেয়া হয়নি। দলটির নেতারা এখন বলছেন উল্টো কথা।

শরিক জামায়াতে ইসলামীকে দূরে ঠেলতে চাইছে বিএনপি। দলটির একটি অংশের মধ্যে এ লক্ষ্যে জোর তৎপরতাও আছে। কিন্তু যেসব কারণে এক দশক ধরে জামায়াতকে দূরে সরানো যায়নি, সেই ইস্যুগুলো এখনো নিষ্পত্তি করতে পারেনি বিএনপি। তা ছাড়া জামায়াতও বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোট ছাড়তে রাজি নয়। ফলে জামায়াত প্রশ্নে বিএনপি এখনো কিছুটা উভয়সংকটে রয়েছে বলে জানা গেছে।

তবে সব দলকে নিয়ে বৃহত্তর ঐক্য গড়ার লক্ষ্য সামনে থাকায় জামায়াতকে রাখা না রাখা প্রশ্নে বিএনপিতে আলোচনা নতুন করে সামনে এসেছে। কারণ বাম ও উদারপন্থী দলগুলো জামায়াত থাকলে জোট গঠনে রাজি হবে না।

জামায়াতকে চিঠি দিতে যে নেতাকে দায়িত্ব দেয়া হয়েছিল তিনি বলছেন, তারা সে সময় সিদ্ধান্ত নিলেও এখন ‘সময় চাইছে’ অন্য কিছু। তাই আপাতত সেই চিঠি দেয়া হচ্ছে না।

জামায়াতের সঙ্গে বন্ধন ছিন্ন করার সিদ্ধান্ত হয় চলতি বছরের জানুয়ারির শেষে। ফেব্রুয়ারির শুরুতে চিঠি প্রস্তুত করার কথাও জানান নেতারা।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির এক নেতা ফেব্রুয়ারিতে নাম প্রকাশ না করার অনুরোধ করে বলেন, তাদের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়ে গেছে। শিগগিরই জামায়াতকে তা লিখিত আকারে জানানো হবে। সেখানে ব্যাখাও দেয়া হবে, কী কী কারণে জোট ভাঙা হচ্ছে।

তিনি সেদিন বলেছিলেন, ‘বারবার স্থায়ী কমিটি থেকে তাদের সঙ্গে সম্পর্ক ছেদের প্রস্তাব করা হচ্ছিল। সেটা নিয়ে পর্যালোচনা করা হচ্ছিল…জামায়াতকে নিয়ে আমরা আর এগোচ্ছি না। তারা তো শুধু ব্যবসা বোঝে, মুনাফা খোঁজে।’

চার মাস পর সেই একই নেতাকে একই বিষয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে বলেন, ‘আপনারা সময়, অসময় বোঝেন না। এখন কি এমন প্রশ্ন করার সময়? এখন সবার দরকার ঐক্যবদ্ধ হয়ে সরকারের স্বেচ্ছাচারিতাকে রুখে দেয়া। এখন নিজেদের মধ্যে মারামারি-কাটাকাটির সময় নয়।’

‘কিন্তু আপনারা তো জামায়াতকে ছেড়ে দেয়ার জন্য চিঠি প্রস্তুতের দাবিও জানিয়েছিলেন?

উল্লিখিত প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘দলের জন্য দরকার যেটা সেটা একরকম। আর সময় কী চায় সেটা আরেক রকম। এটা তো আপনাকে বুঝতে হবে। এই মুহূর্তে দলের দরকারের থেকেও সময় কী চায় সেটি বেশি গুরুত্বপূর্ণ।’

 

১৯৯৯ সালে আওয়ামী লীগবিরোধী আন্দোলনের সময় বিএনপি-জামায়াতকে নিয়ে যে চারদলীয় জোট গঠন করে তাতে যোগ দেন জাতীয় পার্টির হুসেইন মুহম্মদ এরশাদও। পরে তিনি জোট ছেড়ে গেলে তার দলে ভাঙন ধরে এবং একাংশ এই জোটে থেকে যায়।

১৯৯৬ থেকে ২০০১ সাল পর্যন্ত আওয়ামী লীগ সরকারবিরোধী আন্দোলনের একপর্যায়ে ১৯৯৯ সালে জোটবদ্ধ হয় জামায়াত ও বিএনপি। সঙ্গে ছিল হুসেইন মুহম্মদ এরশাদের জাতীয় পার্টি ও আজিজুল হকের ইসলামী ঐক্যজোট।

এর মধ্যে বিএনপির জামায়াত ছাড়ার প্রসঙ্গ নানা সময়ই এসেছে। দশম সংসদ নির্বাচনের পর দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, সময় এলে তারা জামায়াতকে ছেড়ে দেবেন।

তবে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন বিএনপি ও জামায়াত জোটবদ্ধভাবেই করে। কিন্তু এরপর নানা ঘটনায় দুই পক্ষের দূরত্বও দেখা যায়।

সম্প্রতি পৌরসভা নির্বাচনের তিন ধাপ ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপির পাশে ছিল না জামায়াত। এর আগে সিলেট সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বিএনপিকে সমর্থন না দিয়ে জামায়াত আলাদা প্রার্থী দিয়েছিল।

২০২০ সালের শুরুতে বিএনপির শীর্ষ নেতাদের এক সভায় জামায়াতের সঙ্গে সম্পর্ক গড়ে লাভ-লোকসান নিয়ে তর্কবিতর্ক হয়। সেখানে বিএনপির তিন নেতা খন্দকার মোশাররফ হোসেন, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু বারবার জামায়াতের সঙ্গে জোট ত্যাগের পরামর্শ দেন। পরে দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খানকে বিষয়টি সমন্বয়ের দায়িত্ব দেয়া হয়। এর পরই বিষয়টি চূড়ান্ত হয়ে যায়।

এই কমিটির একাধিক নেতা বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। তবে আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী বিষয়টি স্বীকার করতে চাননি।

তিনি বলেন, ‘আমার জানা মতে এমন কিছু হয়নি। আর এখন দেশের যে পরিস্থিতি সেখানে মনোযোগ দেয়াই ভালো।’

বিএনপির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য সেলিমা রহমান বলেন, ‘আপনিও একজন সাংবাদিক। রোজিনা ইসলামও। আমার আসলে মনটাই ভালো নেই। আপনি আরেক দিন ফোন দিয়েন।’

 

 

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক দলটির স্থায়ী কমিটির আরেক সদস্য বলেন, ‘শোনেন, পলিটিক্স হলো এমন একটা জিনিস, যার মাইন্ড যত বেশি ডার্টি, সে তত বড় পলিটিশিয়ান। একটি দলের মধ্যে যখনই কোনো নতুন সিদ্ধান্ত আসবে, সেটি সেই দলের জন্য একটা বিরাট ইস্যু। তাই নতুন সিদ্ধান্ত নেয়ার জন্য নানান রকম বিষয় মাথায় রাখতে হয়।’

‘এখন আমাদের অবস্থা আসলে এমন যে গলায় কাঁটা নিয়েই থাকতে হবে কিছুদিন’, জামায়াতের সঙ্গে সম্পর্ক চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্তের কথাই জানালেন এই নেতা।

ফেব্রুয়ারিতে তিনি বলেছিলেন, ‘আমরা ভোটের সঙ্গী হিসেবে তাদের (জামায়াত) সঙ্গে নিয়েছিলাম। পর্যালোচনা করে দেখা গেল, তাদের দিয়ে উল্টো বিএনপি নানাভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তাদের প্রতি জনগণের যে নেতিবাচক ভাবনা আছে, সেটার দায়ভারও আল্টিমেটলি বিএনপিকে নিতে হয়েছে। তাই সিদ্ধান্ত হয়েছে, সামনে তাদের সঙ্গে নির্বাচনি জোটেও আর থাকবে না বিএনপি। তাদের নিয়ে রাজনীতির মাঠে আর থাকারই প্রশ্ন আসে না।’

জামায়াত-বিএনপির রসায়ন

জামায়াতের সঙ্গে বিএনপি জোটের আলোচনা হয়েছিল ১৯৯১ সালের জাতীয় নির্বাচনের আগেই। জামায়াত নেতা মুজিবুর রহমানের লেখা একটি বইয়ে উল্লেখ আছে, তারা সে সময় ১০০টি আসন চেয়েছিলেন বিএনপির কাছে। কিন্তু খালেদা জিয়া রাজি না হওয়ায় জোট আর হয়নি। পরে অঘোষিতভাবে ৩৫টি আসনে জামায়াতকে সমর্থন দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়। বিনিময়ে তারাও দেশের বাকি আসনগুলোতে বিএনপির হয়ে কাজ করেছে।

১৯৯৬ সালে বিএনপি ও জামায়াত পুরোপুরি আলাদা নির্বাচন করে। তখন ভরাডুবি হয় জামায়াতের। তারা জেতে মাত্র তিনটি আসনে। এরপর বিএনপি ও জামায়াত একে অপরের গুরুত্ব বুঝতে পারে।

১৯৯৯ সালে জোট করার দুই বছর পর যে জাতীয় নির্বাচন হয়, তাতে ভূমিধস জয়ের পেছনে দুই দলের ভোট যোগ হওয়াই ছিল প্রধান কারণ।

তবে ২০০৮ সালের জাতীয় নির্বাচনে আবার জামায়াতসঙ্গ বিএনপির জন্য নেতিবাচক হিসেবেই ধরা দেয়। ওই নির্বাচনের আগে যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের দাবি বড় হয়ে ওঠার পর বিএনপি-জামায়াত জোটের ভরাডুবি হয়। স্বাধীনতাবিরোধী দলটিকে সঙ্গী করে ভোটে নেমে দীর্ঘদিনের শক্তিশালী অবস্থানেও বড় ব্যবধানে হেরে যায় বিএনপি।

ওই নির্বাচনের পর বিএনপির পক্ষ থেকে ১০টি কমিটি গঠন করা হয় বিপর্যয়ের কারণ পর্যালোচনায়। এর মধ্যে ৯টি কমিটিই জামায়াতের সঙ্গে জোটবদ্ধতাকে দায়ী করে, যা ছিল বিএনপির তৃণমূল নেতাদের অভিমত।

নির্বাচনের পর বিএনপির তরুণ নেতারাও প্রকাশ্যেই দলীয় চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার কাছে দাবি তোলেন।

তবে দশম সংসদ নির্বাচনের আগে তত্ত্বাবধায়ক সরকারব্যবস্থা ফিরিয়ে আনার দাবিতে এবং নির্বাচনের পর সরকার পতনের দাবিতে আন্দোলনে জামায়াতকে নিয়েই যোগ দেয় বিএনপি। আর ব্যাপক সহিংসতার পর বিএনপি নেতারা নানাভাবে জামায়াতকে দায় দেন।

ওই নির্বাচনের পর একটি বিদেশি সংবাদমাধ্যমকে দেয়া সাক্ষাৎকারে খালেদা জিয়া বলেন, জামায়াতের সঙ্গে তাদের জোট কৌশলগত। সময় এলেই তিনি জামায়াতকে ত্যাগ করবেন।

এসব ঘটনায় আবার জামায়াত মনঃক্ষুণ্ন হয় বিএনপির প্রতি। যদিও তাদের পক্ষ থেকে প্রকাশ্যে কোনো মন্তব্য আসেনি।

একাদশ সংসদ নির্বাচনের আগে বিএনপি ঐক্যফ্রন্ট নামে নতুন জোট গড়ে তোলার পরও জামায়াতের সঙ্গে জোট আর থাকবে কি না, এ নিয়ে প্রশ্ন ওঠে। খালেদা জিয়া কারাগারে থাকা অবস্থায় ঐক্যফ্রন্টের প্রধান নেতা হয়ে ওঠা ড. কামাল হোসেন প্রকাশ্যেই বলেন, জামায়াত আছে জানলে তারা জোটেই যেতেন না।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের আগে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নামে নতুন জোট গড়ে তোলে বিএনপি, যার প্রধান নেতা হিসেবে আবির্ভূত হন ড. কামাল হোসেন। তবে এই জোট এখন নিষ্ক্রিয়।

একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধে জামায়াত নেতা মতিউর রহমান নিজামী, আলী আহসান মোহাম্মাদ মুজাহিদ, মীর কাসেম আলী, মুহাম্মদ কামারুজ্জামান, আবদুল কাদের মোল্লার ফাঁসি কার্যকর হয়েছে। আরেক নেতা এ টি এম আজহারুল ইসলামের ফাঁসি কার্যকর সময়ের ব্যাপার। এই অবস্থায় সাংগঠনিক অবস্থাও ভেঙে পড়েছে জামায়াতের।

দলের নেতাদের এই বিচারের সময় বিএনপির কাছ থেকে প্রত্যাশিত সহযোগিতাও পায়নি জামায়াত। এ নিয়েও খেদ আছে দলের নেতাদের মধ্যে।

আবার রাজনৈতিক দলের নিবন্ধন বাতিল হওয়ায় দলীয় প্রতীকে নির্বাচন করার যোগ্যতাও হারিয়েছে জামায়াত।
সূত্র- নিউজবাংলা ও কালেরকণ্ঠ

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত