প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] র‌্যাবের অভিযানে বিপুল পরিমান ইয়াবাসহ আটক ৫

সুজন কৈরী: [২] রাজধানীর মোহাম্মদপুর ও ডেমরা এলাকায় পৃথক অভিযান চালিয়ে ৯ হাজার ২৯০পিস ইয়াবাসহ পাঁচজন মাদক কারবারিকে আটক করেছে র‌্যাব-২ ও ১০ নম্বর ব্যাটালিয়ন।

[৩] র‌্যাব-২ এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) এএসপি মো. আবদুল্লাহ আল মামুন বলেন, মাদক পাচারের তথ্যে ব্যাটালিয়নের একটি একটি দল গত মঙ্গলবার রাতে মোহাম্মদপুর কলেজ গেটের মুক্তিযোদ্ধা টাওয়ার এলাকায় অভিযান চালায়। এ সময় সন্দেহভাজন মাদক কারবারি চক্রের দুই সদস্য মামুন মল্লিক (৩৮) ও দীপ্ত হালদার ওরফে দীপকে (২৫) আটক করা হয়।

[৪] প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটকরা মাদক বহনের বিষয়টি অস্বীকার করলেও আচার-আচরণ সন্দেহ জনক হওয়ায় তাদের অধিকতর জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

[৫] তারা জানান, আইনশৃখলা বাহিনীর নজর এড়াতে তারা বিশেষ কায়দায় ছোট পলিথিনের পুটলী তৈরি করে মুখ দিয়ে গিলে পাকস্থলীতে করে ইয়াবা বহন করছে। পরে তাদের শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সার্জারী বিভাগে ভর্তি করা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক এক্সরে করেন এবং তাদের পেটের ভেতরে উয়াবার অস্তিত্ব নির্ণয় করেন। চিকিৎসকের পরামর্শে তাদের মঙ্গলবার থেকে বুধবার রাত পর্যন্ত হাসপাতালের জরুরি বিভাগের তত্ত্বাবধানে রেখে পর্যায়ক্রমে পায়ু পথ দিয়ে মামুন মল্লিকের পেট থেকে ৭৫টি ক্যাপসুল সাদৃশ্য পুটলি এবং দীপ্তর পেট থেকে ৩৫টি পুটলী বের করা হয়। সেগুলো থেকে ৫ হাজার ৫৫০ পিস ইয়াবা পাওয়া যায়।

[৬] আটকরা দীর্ঘদিন ধরেই সীমান্তবর্তী জেলাগুলো থেকে মাদক পরিবহন করে নিয়ে আসছে এবং রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে সরবরাহ করছে। মাদক পরিবহনের ক্ষেত্রে প্রায় সময়ই আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর নজর এড়াতে তারা নিত্য নতুন পদ্ধতি অবলম্বন করে থাকে। সম্প্রতি মহাসড়কে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর নজরদারী ও তল্লাশি বেড়ে যাওয়ায় তাদের দৃষ্টি এড়াতে তারা ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে ইয়াবা পাকস্থলীতে করে বহন করছিলেন।

[৭] এ ঘটনায় মোহাম্মদপুর থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

[৮] র‌্যাব-১০ এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) এএসপি এনায়েত কবীর সোয়েব বলেন, বুধবার রাতে ব্যাটালিয়নের একটি দল ডেমরা ষ্টাফ কোয়াটার্সের হাজী এম এ গফুর স্কয়ার মার্কেট এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৩ হাজার ৭৪০ পিস ইয়াবাসহ ৩ জন মাদক ব্যবসায়ীকে আটক করে। আটকরা হলেন- রাজু ভূঁইয়া খান (২৬), সুজন (৩০) ও আরিফ হোসেন (২৮)। ইয়াবা ছাড়াও তাদের কাছ থেকে ৫টি মোবাইল ফোনসেট উদ্ধার করা হয়েছে।

[৯] প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটকরা র‌্যাবকে জানিয়েছে, তারা পেশাদার মাদক ব্যবসায়ী। বেশ কিছুদিন ধরে ঢাকা শহরের বিভিন্ন এলাকায় ইয়াবাসহ অন্যান্য মাদকদ্রব্য সরবরাহ করছিলেন। আটকদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট থানায় মাদক মামলা হয়েছে।

 

সর্বাধিক পঠিত