প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] জাতিসংঘে বাংলাদেশ উত্থাপিত ‘পানিতে ডুবে মৃত্যু রোধ’ বিষয়ক রেজুলেশন গৃহীত

কূটনৈতিক প্রতিবেদক: [২] পানিতে ডুবে মৃত্যুকে দেওয়া হলো ‘নীরব মহামারি’র স্বীকৃতি।

[৩] বৃহস্পতিবার জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন এ তথ্য জানিয়ে বলেছে, প্রথমবারের মতো জাতিসংঘে গৃহীত এই রেজুলেশনটি উত্থাপন করেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা।

[৪] তিনি বলেন, জাতিসংঘে বাংলাদেশ নেতৃত্ব দিতে পেরে সম্মানিত বোধ করছে।

[৫] ২৫ জুলাইকে ‘বিশ্ব ডুবে-মৃত্যু রোধ প্রতিরোধ দিবস’ হিসেবে ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।

[৬] দীর্ঘ পথ পরিক্রমায় বাংলাদেশের পাশাপাশি রেজুলেশনটিতে সহ-নেতৃত্ব দেয় আয়ারল্যান্ড। এতে সহ-পৃষ্ঠপোষকতা করে ৮১টি দেশ।

[৭] অগ্রহণযোগ্য উচ্চহারের এই মৃত্যু প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা নিতে একটি কর্ম-কাঠামোও দেওয়া হয়েছে।

[৮] রেজুলেশনটিতে বলা হয়েছে, পানিতে ডুবে মৃত্যুর মতো প্রতিরোধযোগ্য কারণেও বিভিন্ন দেশে শিশু ও কিশোর-কিশোরীরা অকালে প্রাণ হারাচ্ছেন।

[৯] রাবাব ফাতিমা বলেন, আমরা বিশ্বব্যাপী শিশু মৃত্যুর হার হ্রাস করতে সক্ষম হয়েছি। আমরা যদি পানিতে ডুবে মৃত্যুহারকে শূন্যের কোটায় না আনতে পারি তবে প্রাথমিক স্বাস্থ্যসেবায় আমাদের সাফল্য অর্থাৎ এসডিজি-৩ অর্জন অসম্পূর্ণ থেকে যাবে।

[১০] পানিতে ডুবে মৃত্যুবরণের মতো ঘটনার ৯০ ভাগ সংঘটিত হচ্ছে নিম্ন ও মধ্যম আয়ের দেশগুলিতে এবং এশিয়াতে এই সংখ্যা সবচেয়ে বেশি। পানিতে ডুবে মৃত্যু কেবল দুর্ঘটনা নয়, এটি একটি বৈষম্য।

[১১] বাংলাদেশে প্রতিবছর প্রায় ১৮ হাজার মানুষ পানিতে ডুবে মৃত্যুবরণ করছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী বিশ্বে প্রতিবছর ২ লাখ ৩৫ হাজার মানুষ পানিতে ডুবে মৃত্যুবরণ করছে।

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত