প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মসজিদ কমিটির নিয়মবহির্ভূত চাকরীচ্যুত করায় ইমামের আত্মহত্যা

নেয়ামূল হক : [২] মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া উপজেলায় পুরান বাউশিয়া পশ্চিমপাড়া মোল্লাবাড়ি জামে মসজিদে কর্মরত এক ইমাম করোনাকালে চাকরি হারিয়ে হতাশা থেকে আত্মহত্যা করেছেন বলে জানায় স্থানীয় মুসুল্লিরা ।

[৩] স্থানীয়রা জানায়, চাকরি চলে যাওয়ার পর হতাশ হয়ে পড়েন তিনি তারপর থেকে কারো সাথে তেমন কথাবার্তা বলতেন না।

[৪] ঐ ইমামের নাম হাফেজ মাওলানা আব্দুর রহিম পাটোয়ারী (৪২)। সে চাঁদপুরের ফরিদগঞ্জ উপজেলার রুপসা গ্রামের বাসিন্দা বলে মসজিদ কমিটির মাধ্যমে জানা গেছে।

[৫] তিনি প্রায় দীর্ঘ ১৫ বছর যাবত গজারিয়া উপজেলার পুরান বাউশিয়া পশ্চিম পাড়া মোল্লাবাড়ি জামে মসজিদের ইমামের দায়িত্ব পালন করছিলেন।

[৬] অসুস্থতার অজুহাত দেখিয়ে রমজানের কয়েকদিন আগে তাকে চিকিৎসার জন্য ছুটি দেয় মসজিদ কমিটি।

[৭] ছুটিতে বাড়িতে গেলে মসজিদ কমিটি তাকে ফোনে জানায় নতুন ইমাম নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। তার আসার প্রয়োজন নেই। নিজ কর্মস্থলে আসার জন্য হাফেজ মাওলানা আব্দুর রহিম মহল্লার গণ্যমান্য ব্যক্তিদের কাছে বিনীত অনুরোধ করার পরেও সভাপতিসহ কমিটির দায়িত্বশীল ব্যক্তিদের মন গলাতে পারেনি। এমনটাই জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

[৮] পুরান বাউশিয়া গ্রামের বাসিন্দা আবু জায়েদ সহ কয়েকজন নিয়মিত মুসুল্লিরা বলেন, ইমাম সাহেব এলাকায় বেশ জনপ্রিয় ছিলেন। মসজিদের পেছনে তার অনেক অবদান রয়েছে জনপ্রিয় না হলে তিনি দীর্ঘদিন মসজিদে থাকতে পারতেন না। তার আত্মহত্যার খবরে তারা সবাই হতভাগ্ হয়েছেন।

[৯] মসজিদ কমিটির সভাপতি রাজা মোল্লা বলেন, হুজুরের শ্বাসকষ্ট বাড়ায় শবে বরাতের আগে তাকে বাধ্যতামূলক ছুটিতে পাঠানো হয় শারীরিক চিকিৎসার জন্য।

[১০] মুসল্লিদের সাথে কথা বলে নতুন ইমাম ঠিক করেন তারা এবং ওই ইমামকে আর ফিরার দরকার নেই বলে জানিয়ে দেওয়া হয়।

[১১] তার যাবতীয় পাওনাদি বিকাশের মাধ্যমে তাকে পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছিল বলে জানান মসজিদ কমিটির সভাপতি। তবে তিনি কি কারণে আত্মহত্যা করলেন এ বিষয়ে কোন কিছু জানা নেই তার।

[১২] এ ব্যাপারে মসজিদ কমিটির সভাপতি রাজা মোল্লা গণমাধ্যমকর্মীদের জানান তাকে ছুটি দেওয়া হয়েছে এবং তার আসবারপত্র ব্যবহৃত কাপড় এখনো তার খাসকামরায় রয়ে গেছে।

[১৩] মসজিদ কমিটির সাধারণ সম্পাদক বাবুল মিয়া (পাকিস্তানি) তার সাথে মোবাইলে যোগাযোগ করেও তাকে পাওয়া যায়নি।

[১৪] বিষয়টি সম্পর্কে জানতে নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁ থানার অফিসার ইনচার্জ হাফিজুর রহমানের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, ফাঁসিতে ঝুলানো অবস্থায় একটি লাশ উদ্ধার করেছেন।

[১৫] লাশটি ময়নাতদন্ত শেষে দাফন করা হয়েছে। ময়না তদন্তের রিপোর্ট আসলে বিস্তারিত জানা যাবে তবে এ বিষয়ে থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে।

[১৬] বিষয়টি সম্পর্কে জানতে ইমামের ডায়রি থেকে পাওয়া তার বাড়ীর একাধিক মোবাইল নাম্বারে কল করা হলেও তা বন্ধ পাওয়া যায়। তাই তার পরিবারের সদস্যদের সাথে যোগাযোগ করা যায়নি।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত