প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

আফগানিস্তান ফেরত মুজাহিদ ও জামায়াত নেতাদের সঙ্গে সখ্য ছিল মামুনুলের

নিউজ ডেস্ক: হেফাজতে ইসলামের যুগ্ম-মহাসচিব মামুনুল হক বর্তমান সরকারের পতনের মাধ্যমে ইসলামি রাষ্ট্র কায়েমের জন্য হেফাজতের নেতাকর্মীদের উদ্বুদ্ধ করতেন। তিনি বিশ্বাস করেন, বর্তমান সরকারের পতন হলে কাউকে রাষ্ট্রক্ষমতায় যেতে হলে হেফাজতের সমর্থন লাগবে। এই মিশনে তিনি আফগানিস্তান-ফেরত মুজাহিদ ও জামায়াতের নেতাদের সঙ্গে যোগাযোগ রাখতেন। গোয়েন্দা পুলিশের কর্মকর্তাদের জিজ্ঞাসাবাদে তিনি এসব কথা বলেছেন।

এদিকে মোহাম্মদপুর থানায় করা মোবাইল চুরির মামলায় গ্রেফতার মামুনুল হককে সাত দিনের রিমান্ডে নেওয়ার অনুমতি দিয়েছে আদালত। গোয়েন্দা পুলিশের একজন কর্মকর্তা বলেন, হেফাজতের মধ্যে উল্লেখযোগ্য ‘উগ্রপন্থি’ নেতা মামুনুল হক। তিনি যে কোনো মূল্যে এই সরকারের পতন ঘটাতে চেয়েছেন। পরের দুই স্ত্রীর বিষয়ে জানতে চাইলে গোয়েন্দাদের জিজ্ঞাসাবাদে মামুনুল হক বলেছেন, তিনি পরের দুই জনকে বিয়ে করেননি। তবে দুই জন সাক্ষীর উপস্থিতিতে তাদের সঙ্গে পৃথকভাবে মামুনুলের চুক্তি হয়েছিল। এই চুক্তির কপিও উদ্ধার করেছে গোয়েন্দা পুলিশ। চুক্তিতে বলা হয়েছে, মামুনুল হক তাদের বিয়ে করবেন না, স্ত্রীর মর্যাদাও দেবেন না। তবে তাদের ভরণপোষণ দেবেন। এই শর্তে যে, তিনি স্ত্রীর মতো করে তাদের সঙ্গে মিশবেন। যেখানে যেতে বলবেন, সেখানে যেতে হবে এবং তার সঙ্গে রাত্রিযাপন করতে হবে।

গোয়েন্দা পুলিশের ঐ কর্মকর্তা বলেন, মামুনুল হকের কাছে তারা জানতে চেয়েছিলেন, বিয়ে না করে কারো সঙ্গে চুক্তি করে থাকা যায় কি না? জবাবে মামুনুল হক তাদের বলেছেন, এটা শরিয়তসম্মত। তিনি স্ত্রীর মর্যাদা না দিলেও তাদের ভরণপোষণ দিচ্ছেন। তার বিনিময়ে তারা তাকে সঙ্গ দিচ্ছেন। এটা ইসলামের বিধিবিধানের মধ্যেই তিনি করেছেন বলে দাবি করেন। তবে এই পরিস্থিতিতে সোনারগাঁওয়ের রিসোর্টে যাওয়া তার ঠিক হয়নি। আর গেলেও আগে থেকে প্রস্তুতি নিয়ে নেতাকর্মীদের জানিয়ে যাওয়া উচিত ছিল।

সরকারের পতনে তাদের পরিকল্পনার বিষয়ে জানতে চাইলে গোয়েন্দাদের এই হেফাজত নেতা বলেন, ইসলামি রাষ্ট্র কায়েম করতে হলে এই সরকারের পতন ঘটাতেই হতো। আর এই সরকার পড়ে গেলে হেফাজতের অনুগ্রহ ছাড়া কেউ রাষ্ট্রক্ষমতায় আসতে পারবে না। এ কারণে তিনি রাজধানীর যে কোনো কর্মসূচিতে সহিংসতার উসকানি দিতেন। তার মতে, হেফাজতের আমির জুনায়েদ বাবুনগরীর চেয়েও বেশি ‘উগ্রপন্থি’ তিনি। অন্য নেতাদের দিয়ে বিপ্লব হবে না। এ কারণে তিনি নিজেই দায়িত্ব নিয়ে নানা আন্দোলন-সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়েছেন।

এদিকে গতকাল ঢাকা মহানগর হাকিম দেবদাস চন্দ্র অধিকারীর আদালতে গতকাল হাজির করা হয় মামুনুল হককে। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদপুর থানার এসআই সাজেদুল হক আসামিকে সাত দিনের রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করেন। এ সময় প্রথমে রাষ্ট্রপক্ষে ঢাকা মহানগর পাবলিক প্রসিকিউটর আব্দুল্লাহ আবু আসামির সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুরের প্রার্থনা করেন। পরে আসামির পক্ষে জয়নুল আবেদীন মেজবা রিমান্ড বাতিল চেয়ে জামিনের আবেদন করেন। পরে বিচারক মামুনুল হকের কাছে জানতে চান তার কিছু বলার আছে কি না।

তখন মামুনুল হক আদালতে বলেন, স্যার, আমাকে গ্রেফতার করে গতকাল যেখানে রাখা হয়েছিল, সেটি থাকার মতো জায়গা না। ঐ রকম জায়গায় ইবাদত করা যায় না। অনান্য রমজানে আমি নিয়মিত কোরআন খতম করি। রিমান্ডে পাঠালে সুষ্ঠু পরিবেশ থাববে না এবং আমার ইবাদত করা কঠিন হয়ে যাবে। গ্রেফতারের পর আমাকে অনেক জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে। আমাকে রিমান্ড দিয়েন না। এ মামলার বিষয়ে আমি কিছুই জানি না। শুনানি শেষে মামুনুলের ইবাদতে যেন বিঘ্ন না হয়, সেদিকে খেয়াল রাখার নির্দেশ দিয়ে আদালত সাত দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে।

আদালতে দাখিল করা রিমান্ড আবেদনে পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, মাওলানা মামুনুল হক ও তার ভাইয়ের নির্দেশে অন্য আসামিরা এ মামলার বাদীর একটি স্যামসাং এ-৫০ মডেলের মোবাইল, নগদ ৭ হাজার টাকা, ২০০ ইউএস ডলার, ব্র্যাক ব্যাংকের একটি ডেবিট কার্ডসহ মানিব্যাগ চুরি করে নিয়ে যান। গত বছরের ৬ মার্চ রাত সাড়ে ৮টার দিকে মোহাম্মদপুর সাতগম্বুজ মসজিদে আমল করাকালীন মামুনুল হক ও তার ভাই মোহতামিম মাহফুজুল হকের নির্দেশে জামিয়া রহমানিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসার ছাত্র ওমর ও ওসমান এ মামলার বাদী জি এম আলমগীর শাহিনসহ অন্যদের আমল করতে বাধা দেন।

আবেদনে আরো বলা হয়েছে, তাদের ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করেন এবং মসজিদ থেকে বের হয়ে যেতে বলেন। রাত ৮টা ৪০ মিনিটের দিকে আসামি ওমর, ওসমান, শাহিন, মাওলানা আনিস, জহির মসজিদে এসে বাদীসহ তার সঙ্গে থাকা অন্যদের কিল-ঘুসি মারেন। মামুনুল হক ও তার ভাইয়ের নির্দেশে মাদ্রাসার আরো ৭০-৮০ জন এসে তাদের আবারও মারধর করেন।

তদন্ত কর্মকর্তা আদালতকে জানান, প্রথমিকভাবে মামুনুল হকের বিরুদ্ধে এ মামলার ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার সাক্ষ্য-প্রমাণ পাওয়া গেছে। এই আসামি ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করে রাষ্ট্রবিরোধী বিভিন্ন বক্তব্যের মাধ্যমে মুসলমান ও মাদ্রাসার ছাত্রদের উসকে দেন। আসামির বিরুদ্ধে বাংলাদেশের বিভিন্ন থানায় একাধিক মামলা রয়েছে। মামলার সুষ্ঠু তদন্ত, এজাহারনামীয় পলাতক অন্য আসামিদের গ্রেফতার, অজ্ঞাত আসামিদের নাম-ঠিকানা সংগ্রহ এবং তাদের শনাক্তপূর্বক চোরাই মালামাল উদ্ধারের লক্ষ্যে তার সাত দিনের রিমান্ড প্রয়োজন। মামলা সূত্রে জানা গেছে, আসামিরা বেআইনিভাবে সংঘবদ্ধ হয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে বাদীকে এলোপাতাড়ি মারধর করে গুরুত্বর আঘাত করেন। এ ঘটনায় মোহম্মদপুরের চাঁন মিয়া হাউজিংয়ের ৪১/৪০ নম্বর বাসার বি/১ ফ্ল্যাটের বাসিন্দা জি এম আলমগীর শাহিন বাদী হয়ে ৬ মার্চ মামলা করেন।

– ইত্তেফাক

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত