প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

যশোরে সিআইডি পুলিশের এক এসআইয়ের বিরুদ্ধে স্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন

জাহিদুল কবির: যশোরে যৌতুকের দাবিতে মারপিটের অভিযোগ ও জীবনের নিরাপত্তা চেয়ে সিআইডি পুলিশের এক কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেছে তার স্ত্রী। মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১১ টায় প্রেসক্লাব যশোরের মিলনায়তনে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সংবাদ সম্মেলনে বারান্দীপাড়া এলাকার বাদশা মিয়ার মেয়ে জেসমিন বেগম বলেন, তার স্বামী সাতক্ষীরার পাটকেলঘাটা গ্রামের সুরুলিয়া গ্রামের আনোয়ারুল হকের ছেলে পুলিশের এসআই আজিজুল হক সবুজ। বর্তমানে তিনি খুলনা রেঞ্চে রয়েছেন।

সবুজের প্রথম স্ত্রী মরিয়ম খাতুন পারুলের মৃত্যুর পর জেসমিনকে ২০১৯ সালে ২৭ ডিসেম্বর বিয়ে করে । এরপর সবুজের ধর্মতলা রঘুরামপুর গ্রামের সবুজের ফ্লাটে বাসকরে। সেসময় যৌতুকের দাবীতে জেসমিনের উপর নির্মম নির্যাতন শুরু করে সবুজ। বাধ্য হয়ে আমি সাত লাখ টাকা দেয়। কয়েকদিন ভালো থাকার পর আবার টাকা চাইতে শুরু করে। ধাপে ধাপে জেসমিনের সোনা গহনা, ইজিবাইক সহ বিভিন্ন মালামাল বিক্রি করে টাকা হজম করে। সবুজ বিভিন্ন সময় নারী ও মাদক নিয়ে মেতে থাকতো। প্রতিবাদ করলে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেয়ার হুমকিও দিতো। পরে সবুজের ছেলে মেয়ে ও স্থানীয় এলাকাবাসী তাকে জানায় পারুলকে সবুজই হত্যা করে। যা নিয়ে বিক্ষোভ হয়।

পারুলের বাবা আদালতে মামলা করে। কিন্তু সবুজ থাকে ধরা ছোয়ার বাইরে। তিনি আরো বলেন, তার বিয়ের আগে সাতক্ষীরার লাকসার লাকি, পাটকেল ঘাটায় জেসমিন আরাকে বিয়ে করে। সবুজ তার সাথে সংসার করা কালীন সময় ২০২০ সালের ২৪ ডিসেম্বর সাতক্ষীরার দোহারের লাবনী নামের আরেক মেয়েকে বিয়ে করে। এসব জেনে আমি আর সবুজকে টাকা দিতে রাজি হয়নি। এরপর সবুজ ২১ সালের ১০ ফেব্রয়ারী বাড়ি থেকে বের করে দেয় জেসমিনকে। ২৭ ফেব্রুয়ারী সবুজের বিরুদ্ধে জেসমিন আদালতে মামলা করে। ৯ মার্চ পুলিশ হেডকোয়াটারে বরাবর অভিযোগও করে। কিন্তু এখনো পর্যন্ত কোনো প্রতিকার পায়নি। সবুজ ওই সব মামলা উঠিয়ে নেয়ার জন্য বিভিন্ন খুন জখমের হুমকি থামকি দিচ্ছে। বড় বউকে মেরেছি কেউ কিছু করতে পারিনি। তোকেও মেরে ফেলবো আমার কিছুই করতে পারবেনা না বলে বিভিন্ন ধরণে ভয়ভীতি দেখাচ্ছে।

শেষমেষ তিনি বলেন , হয়তো সবুজ আমাকেও হত্যা করবে। পারুলের মত আমার স্বজনেরা লাশ নিয়ে বিক্ষোভ মিছিল করবে। মামলা হবে। কিন্তু বিচার হবেনা। আর সবুজের মত মাদকাসক্ত নারী লোভীরা একের পর এক মা বোনদের সর্বনাশ করবে এবং নিজেদের পুলিশ পরিচয় দিয়ে বুক ফুলিয়ে ঘুরে বেরাবে। তিনি বিষয়টি নিয়ে প্রশাসনের উর্দ্ধোতন মহলের হস্তক্ষেপ কামনা করেন। সংবাদ সম্মেলনে স্ত্রী জেসমিনের ভাবি টুকটুকি, দাদি আলেয়া, জাকির ও বাপ্পি উপস্থিত ছিলেন। এবিষয়ে এসআই আজিজুল হক সবুজের কাজে জানতে চাইলে তিনি বলেন, জেসমিনকে তিনি বিয়ে করেছিলো। পরে তিনি জানতে পারেন জেসমিনের একাধিক পুরুষের সাথে অবৈধ সম্পর্ক রয়েছে। পরে তিনি তালাক দেন। একই সাথে আদালতে দেনমোহরের টাকাও দেন। এখন জমি ও গাড়ি হাতানোর জন্য জেসমিন অপপ্রচার করছে। এছাড়া তার প্রথম স্ত্রী আত্মহত্যা করেছিল যা পোষ্টমডেম রিপোর্টে প্রমানিত হওয়ায় মামলা খারিজ হয়ে যায় বলে সবুজ জানান।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত