প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মামুনুলের কথিত স্ত্রীর ছেলের ভিডিও ভাইরাল

ইসমাঈল ইমু: [২] আপনারা কারো অন্ধ ভক্ত হয়েন না, কাউকে অন্ধভাবে বিশ্বাস কইরেন না, কারণ সবারই আড়ালে আরেকটা চেহারা থাকে। এই লোকটা আলেম নামধারী মুখোশধারী একটা জানোয়ার। তার মধ্যে কোনও মনুষ্যত্ব নেই। সে সুযোগের অপেক্ষায় থাকে কাকে কীভাবে দুর্বল করা যায়। হেফাজত নেতা মাওলানা মামুনুল হক সম্পর্কে এভাবেই ক্ষোভ প্রকাশ করলেন তার কথিত দ্বিতীয় স্ত্রীর ছেলে আব্দুর রহমান।

[৩] সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে আব্দুর রহমানের তিন মিনিট দুই সেকেন্ডের একটি বক্তব্য ভাইরাল হয়েছে। আব্দুর রহমান তার ছোট ভাই তামিমকে নিয়ে বাবার সঙ্গে খুলনায় বাস করেন বলে জানা গেছে।

[৪] আব্দুর রহমানকে ভিডিওতে বলেন, আমি তো অলরেডি বড় হয়ে গেছি, অনেক কিছু শিখছি, জানছি, ম্যাচুরিটির একটা ভাব আইছে। আমি কিছুটা সহ্য করে নিতে পারি, কিন্তু আমার তো একটা ছোট ভাই আছে, তের-চৌদ্দ বছর বয়স। কেবল উঠতি বয়স। এই সময়ে মানুষের কত কথা শোনা লাগতেছে। সমাজের সামনে আইসা মুখ দেখাইতে পারতেছি না। আমার ছোট ভাইটা কাল রাতে যখন এই ঘটনটা ঘটলো, ও কোনোদিন আমি দেখি নাই রাত ৩-৪টা পর্যন্ত জাইগা রইছে। কাল দেখি ওর চোখে কোনও ঘুমই নাই। ও বিষয়টা নিয়ে টোটালি মেন্টালি শকড হইছে। ও বাসা থেকে বের হয়ে গেছিল। বাসায় থাকলে কি উল্টা-পাল্টা করবো আমি নিজেরও জানি না, এইটা বইলা বের হয়ে গেছে।

[৫] এ ঘটনার জন্য নিজের বাবা শহিদুলকেও দায়ী করেন জামি। তিনি বলেন, এটা আমি বলব যে, আমার বাবার কর্মের ফল। আমার বাবা এই মানুষটাকে অন্ধের মতো বিশ্বাস করত। পাগলের মতো ভালোবাসত। ওই লোকটা (মামুনুল হক) কিছুদিন আগে মোল্লাদের একটা মাহফিল হয়েছিল। ওখানে পুলিশ তাকে ঢুকতে দেবে না। সে একটা জায়গায় লুকায় ছিল, আমার বাবা সেটা দেখে এসে কীভাবে কানছে। তার আগেই আমি সেটা জানছি যে আমার মার সাথে তার সম্পর্ক আছে। আমি তখন হাসতেছিলাম যে, এই লোকটা (শহীদুল) তার (মামুনুল) জন্য পাগলের মতো কানতেছে, এভাবে অঝর ধারায় কানতেসে আর ওই লোক এই লোকটার সাথেই বিশ্বাসঘাতকতা করতেসে। তারপরে যখন ওনাকে জেলে নিলো, মাওলানা মামুনুল হককে জেলে নিলো তখন আমার বাবা বলেছিল পুলিশের কাছে, থানার ওসি কামরুজ্জামানকে যে, তুমি আমাকে রেখে ওই লোকটারে ছাইড়ে দাও। কতটা ভালোবাসলে মানুষ এই কথাটা বলতে পারে। আর সেই লোকটা এভাবে গাদ্দারি করল।

[৬] শহীদুল ইসলাম তার দ্বিতীয় স্ত্রী সালমা সুলতানাকে নিয়ে খুলনার সোনাডাঙ্গা থানার শাহীনূর জামে মসজিদ সড়কের একটি ভাড়া বাসায় থাকেন। প্রথম স্ত্রী জান্নাত আরা ঝর্নার সঙ্গে বছর তিনেক আগে শহীদুলের বিয়ে বিচ্ছেদ হলেও জামিসহ ওই ঘরের দুই সন্তান বাবার সঙ্গেই আছে। শহীদুল ওই এলাকার তা’লীমুল মিল্লাত রহমাতিয়া ফাযিল মাদ্রাসার শিক্ষক ও খালাসি মসজিদের ইমাম।

[৭] বাবা-মায়ের বিয়ে বিচ্ছেদের প্রসঙ্গ উল্লেখ করে জামি ফেসবুক ভিডিওবার্তায় বলেন, আরো আগের ঘটনা, যখন ডিভোর্স হয়নি। আমি সেই সময় অনেকটা ছোট, আমার ছোটভাই অনেক ছোট। ও দুগ্ধ শিশু ছিল। তখন একবার আমার বাবা বাসায় ছিলেন না, তখন আমি ছিলাম। আমি ঘুমায় ছিলাম বা বাহিরে ছিলাম। তখন নাকি আমার মা আমার ছোট ভাইকে দুগ্ধ পান করাচ্ছিল। তখন উনি (মামুনুল) আমার মায়ের রুমে হুট করে ঢুকে যায় এবং একটা কুপ্রস্তাব দিয়েছিল।
কিন্তু আমার মা সেটা প্রত্যাখ্যান করেছিল। না এটা সম্ভব না, আপনি তো ঠকাচ্ছেন আপনার কাছের মানুষটাকে, বন্ধুকে। সে তখন ফিরে এসেছিল। তখন থেকেই তার মনে একটা কামুক ভাব ঢুকে গেছে। সে লোভ সামলাতে পারতেছিল না। সে সব কিছুর একটা সুযোগে ছিল। কিন্তু এত তাড়াতাড়ি হয়ে যাবে সে এটা বুঝতে পারেনি। যখনই সে সুযোগ পাইসে, এনাদের (শহীদুল-ঝর্ণা) মধ্যে ডিস্ট্যান্স বাড়ায় দিছে।

[৮] মামুনুলের অসৎ উদ্দেশ্য তুলে ধরে জামি বলেন, কোনো বিষয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে তো ঝগড়া হবেই। সে (মামুনুল) তখনই নক করছে। তখনই দুজনের মধ্যে আরও ডিস্ট্যান্স বাড়ায় দিছে। এভাবে করে সে একটা পরিবারের খুশি, ভালোবাসা, একটা পরিবারের মধ্যে যে মিলমিশ একটা সম্পর্ক পুরোপুরি সে ধ্বংস করে দিছে। আরও এভাবে কত মানুষের, পরিবারের ভালোবাসা সে ধ্বংস করছে এর কোনো ঠিক নাই।

[৯] হেফাজতে ইসলাম নেতা মামুনুল হকের বিচার দাবি করে জামি বলেন, এখানে আমি আশা করব, আমি বাংলাদেশের মানুষের কাছে আশা করব এর যেন সঠিক বিচার হয়, আপনারা কারো অন্ধ ভক্ত হয়েন না। ক্যান, সবারই মুখোশের আড়ালে একটা চেহারা থাকে। এই লোকটা আলেম নামধারি একটা মুখোশধারী একটা জানোয়ার।

[১০] অন্যদিকে, জামির বাবা শহীদুল ইসলামও আছেন ঢাকায়। মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে আমি সাংবাদিকদের সঙ্গে কোনো কথা বলব না।

[১১] শহীদুলের স্বজনেরা যা বলছেন : শহীদুল ইসলাম এখন খুলনা শহরে থাকলেও তার গ্রামের বাড়ি বাগেরহাটের চিতলমারী উপজেলার সন্তোষপুর ইউনিয়নের কচুরিয়া গ্রামে। শহীদুলের সঙ্গে ঝর্ণার ১৭ বছরের দাম্পত্য ভেঙে যাওয়ার কারণ এখনও জানেন না তার স্বজনেরা। রিসোর্ট-কান্ডে হতবাক তারা।

[১২] শহীদুল ইসলামের ছোট ভাই তহিদুল ইসলাম বলেন, ভাই চাকরির কারণে খুলনার সোনাডাঙ্গা এলাকায় পরিবার নিয়ে থাকে। ২০০১ সালে জান্নাত আরা ঝর্ণার সাথে আমার ভাইয়ের বিয়ে হয়, আর ২০১৭ সালে সে আমার ভাইকে তালাক দেয়। পারিবারিক সমস্যা ছিল, এর বেশি আমি জানি না।

[১৩] শহীদুল ইসলামের চাচি সবুরা বেগম বলেন, ১৭ বছরের সংসার বাবা, কেউ এমনে ছাইড়া যায়। হুনছি সারাদিন মোবাইলে কার লগে কথা কইতে। বাড়িতে আইলেও কানের কাছে মোবাইল থাকত। এই মোবাইলের লইগা সংসারটা ভাঙছে। হুজুরই তো শহিদুলের লগে ওই বিডির বিয়া দিছিল, এহন হুনি হেই নাকি ওই হুজুরের বউ।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত