প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বাংলাদেশ, যেখানে জীবনের শুরু পঞ্চাশে

রাশিদ রিয়াজ : পাকিস্তানের সাবেক সিনেটর ও ফেডারেল মন্ত্রী জাভেদ জাব্বার বাংলাদেশের উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি অর্জন বিশ্লেষণে তার সাতজন খ্যাতিমান বাংলাদেশী বন্ধুকে বেছে নেন। এদের মধ্যে সাবেক কূটনীতিক ফারুক সোবহান জানান, গত ২৫ বছরে বাংলাদেশের গড় প্রবৃদ্ধির হার ছিল ৬ শতাংশ যা ২০১৯ সালে ৮.২ শতাংশে ওঠে। তৈরি পোশাক, রেমিটেন্স এবং কৃষি ও সেবা খাতের অসাধারণ সাফল্যের রফতানিতে দ্রুত বৃদ্ধি বাংলাদেশের অর্থনীতিতে চালিকা শক্তি হয়ে দাঁড়িয়েছে। জাভেদ জাব্বারের বন্ধুদের কেউ কেউ পরিচয় দিতে রাজি হননি। নেতিবাচক বক্তব্য দিয়েছেন। তাদের একজন বলেন আড়াই কোটি নারী শহরে কর্মরত কিংবা গ্রামাঞ্চলে স্ব-কর্মসংস্থানে ব্যাপৃত। ক্ষুদ্র ঋণ আর দেশজুড়ে ডিজিটালাইজেশন এটিকে সম্ভব করেছে। নারী শিক্ষা, দারিদ্র্য হ্রাস, উন্নত অবকাঠামো এবং পরিবার পরিকল্পনা কর্মসূচির সাফল্যে বিগত ৫০ বছরে পিছনে ফিরে তাকালে বাংলাদেশের গল্পটি সত্যিই একটি উল্লেখযোগ্য। সাউথ এশিয়া

বাংলাদেশের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ হচ্ছে আগামী দশকে প্রতিবছর ১০-১২ বিলিয়ন ডলার সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগের আকর্ষণ করার ক্ষমতা। যা করতে সরকারকে দুর্নীতি দূর, আমলাদের দক্ষতা উন্নত এবং উচ্চমানের অবকাঠামোগত উন্নয়ন ত্বরান্বিত করতে হবে। একক বৃহত্তম চ্যালেঞ্জ হচ্ছে প্রতি বছর ২০ মিলিয়ন তরুণ-তরুণীকে কর্মসংস্থানে নিয়ে আসা। বাংলাদেশে যারা সমাজ ও প্রশাসনের উপর ধর্মীয় মূল্যবোধ আরোপ করতে চান তাদের রাজনৈতিক স্থান অস্বীকার করায় জনগণের নিয়ন্ত্রণে নৃশংস ইতিবাচক প্রভাব থাকলেও নারীরা ক্ষমতায় আসছেন কর্মশক্তি নিয়ে, ক্রমবর্ধমান শিক্ষিত ছোট্ট জমির মালিক পরিবারগুলো খাদ্য উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি করছে আর এদের ভোক্তা হিসাবে উত্থান বাংলাদেশের উৎপাদিত পণ্যের বাজার ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি করছে। বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের আগে পূর্ব পাকিস্তানের রফতানি আয়ের সিংহভাগ পশ্চিম পাকিস্তানের অবকাঠামোগত উন্নয়নে চলে যেত। সিভিল সার্ভিস এবং সশস্ত্র বাহিনীর কোটা পদ্ধতির আগে বেশিরভাগ নিয়োগ বিশেষত পশ্চিম পাকিস্তান থেকে করা হত। কিন্তু বাংলাদেশ মানব সম্পদ ব্যবহার নিজের পায়ে দাঁড়িয়েছে। পরিবার পরিকল্পনায় সফলতা ছিল এবং এক ধরণের স্থির এবং অবিচ্ছিন্ন সরকারও ছিল। ইউনেস্কোর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস স্বীকৃতি, ইউসূসের নোবেল প্রাপ্তি, বিশ^ খাদ্য পুরস্কার বিজয়ী ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাত স্যার ফজলে হাসান আবেদের ফরচুন ম্যাগাজিনে ২০১৭ সালে বিশে^র শীর্ষ ৫০ নেতাদের একজন হয়ে ওঠা, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জাতিসংঘের সর্বোচ্চ পরিবেশগত প্রশংসাসূচক চ্যাম্পিয়ন, ভারত-পাকিস্তানের বিপক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাংলাদেশের স্থান করে নেওয়া বাংলাদেশের ক্রমবর্ধমান গর্ব ও আত্মবিশ্বাসে পরিণত হয়েছে।

প্রাথমিক পর্যায়ে বাধ্যতামূলক নিখরচায় শিক্ষায় দরিদ্রদের জীবন উন্নত এবং বিনামূল্যে বেসিক স্বাস্থ্য কভারেজ এবং আবাসন বাড়ানোর পাশাপাশি বাংলাদেশের দরিদ্রদের জীবনযাত্রার উন্নয়নের উদ্যোগে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি এবং একটি কল্যাণমূলক রাষ্ট্র গঠনের প্রয়াসের পিছনে চালিকা শক্তি হয়ে দাঁড়িয়েছে। রাজবংশের রাজনীতি এবং অবাধ ও নিরপেক্ষ-মেয়াদী নির্বাচনের পরিবেশের অনুপস্থিতি রয়েছে যা পূর্বে একটি স্বাধীন তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অধীনে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। একটি নির্বাচনী ব্যবস্থা যা ভোটারদের ভোটদানের প্রতিনিধিত্ব করে না এবং ব্রিটিশ আমলে উত্তরাধিকার সূত্রে প্রাপ্ত একটি ব্যবস্থা যা কেবল বাংলাদেশের ব্যর্থতা নয়। রাজনীতি মানুষের সত্য কথা বলার স্বাধীনতা দেয় না। বিরোধী দলগুলি বিকশিত হতে সক্ষম হয়নি বা সুষ্ঠুভাবে কাজ করার অনুমতি পাচ্ছে না।

বাংলাদেশে কার্যত বিদ্যুতের ঘাটতি নেই। শিল্প খাত সমৃদ্ধির পথে চলছে, রফতানির বৈচিত্র ফার্মাসিউটিক্যালস, প্লাস্টিক পণ্য, ক্রোকারিজ সহ ইত্যাদিতে থাকায় বিশ্বব্যাপী এখন তাদের উচ্চ চাহিদা রয়েছে। প্রতিটি গ্রামে এবং শহরে প্রচুর স্কুল খোলা হয়েছে। এক ভাষা এবং এক সংস্কৃতি দেশটিকে সহায়তা করেছে।

সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগের (সিপিডি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক রেহমান সোবহানের মতে, বাংলাদেশ এমন এক ধরণের পুঁজিপতিদের প্রজননকারী শ্রেণি তৈরি করেছে যারা কার্যকরভাবে রাষ্ট্রের ক্ষমতা দখল করেছে। এই পুঁজিবাদী শ্রেণি এখন কার্যকরভাবে দেশের প্রাথমিক শাসনকালে রাজ্য শক্তিকে নির্ভরশীল শ্রেণি হতে দখল করার অবস্থানে পৌঁছেছে। তিনি বলেছিলেন: ‘সংসদের গঠন দেখুন …. এখন ৭৫৫ শতাংশ ব্যবসায়ী হিসাবে ব্যবসায়ী হিসাবে স্বীকৃত’ এবং উল্লেখ করেছেন যে বাকী ২৫ শতাংশ তারাও একই প্রক্রিয়ায় নির্বাচিত হওয়ার কারণে ব্যবসায়ী হয়েছেন। এশীয় অর্থনৈতিক একীকরণ(এসিআই), বাংলাদেশ এশিয়ার অনলাইন কর্মীদের দ্বিতীয় বৃহত্তম উৎস, তারপরে এসিআইয়ের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বিশ্বকর্মী বাহিনীর ৫২ শতাংশ ভারত, বাংলাদেশ ও পাকিস্তানের। ফিলিপিন্স ষষ্ঠ স্থান। প্রতিবেদনে আরো উল্লেখ করা হয়েছে, ২০১৩ থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত সৃজনশীল ও মাল্টিমিডিয়াতে শ্রমিকের অংশীদারিত্ব বাংলাদেশে বেড়েছে ৩৪ শতাংশ এবং ইন্দোনেশিয়ায় ৪০ শতাংশ …. আজ অবধি এটি বাংলাদেশের অনলাইন কর্মীদের প্রায় ৫৯ শতাংশ। এবং ইন্দোনেশিয়ার ৭৪ শতাংশ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত