প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] কারখানার ঝুট নিয়ন্ত্রণে সংঘর্ষ,মামলায় আ.লীগ নেতাসহ আসামি অর্ধশত

মাসুদা ইয়াসমিন: [২] ঢাকার আশুলিয়া একটি একটি তৈরি পোশাক কারখানার ঝুট নিয়ন্ত্রণে নিতে আ.লীগ ও যুবলীগের সংঘর্ষের ঘটনায় মঙ্গলবার দিবাগত রাতে আশুলিয়া থানায় মামলা দায়ের করেছেন যুবলীগের আহ্বায়ক কবির হোসেন সরকারের ম্যানেজার সেলিম হোসেন।

[৩] মামলায় ধামসোনা ইউনিয়ন আ.লীগের সহ সভাপতি সাদেক ভূইয়ার ছেলে মনির হোসেন ভূইয়া সহ অর্ধশত আসামি করা হয়েছে। মনির হোসেনকে গ্রেফতার করে ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে বুধবার দুপুরে আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ।

[৪] মামলায় অন্য আসামিরা হলো- ধামসোনা ইউনিয়নের ওয়ার্ড সদস্য সাদেক ভূইয়া, তার দুই ছেলে মনির হোসেন ও দেলোয়ারসহ ৯ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা আরও ৩০-৪০ জন।

[৫] মামলার অভিযোগে কবির হোসেন সরকারের ম্যানেজার সেলিম হোসেন উল্লেখ করেন, দীর্ঘ দিন ধরে স্থানীয় ইউপি মেম্বার সাদেক ভূইয়া, তার দুই ছেলে মনির ও দেলোয়ার আশুলিয়া থানা যুবলীগের আহ্বায়ক কবির হোসেন সরকারের ঝুট ব্যবসায় বাঁধা দিয়ে আসছিল। তারই ধারাবাহিকতায় মঙ্গলবার সাদেক ভূইয়ার লোকজন পূর্ব পরিকল্পনা অনুযায়ী পুরাতন ইপিজেডের এক্সপেরিয়েন্স ক্লথিং কারখানায় ঝুট বের করতে যাওয়ার পথে ভাদাইল এলাকায় পৌছলে কবির হোসেনের লোকজনের উপর ধারালো অস্ত্র দিয়ে হামলা চালায়। এসময় তারা ভাংচুর করেন অন্তত ১৫টি মোটরসাইকেল এবং আহত হয় অন্তত ১০ জন।

[৬] এব্যাপারে আশুলিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জিয়াউল ইসলাম জানান, ঝুট নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এঘটনায় প্রধান আসামী মনির হোসেনকে গ্রেফতার করে ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে। বাকী আসামীদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে জানান তিনি।

[৭] প্রসঙ্গত, মঙ্গলবার সকালে আশুলিয়ার ভাদাইল এলাকায় ঝুট ব্যবসাকে কেন্দ্র করে থানা যুবলীগের আহ্বায়ক কবির হোসেন সরকারের লোকজনের সাথে ধামসোনা ইউনিয়ন আ.লীগের সহ সভাপতি সাদেক ভূইয়ার ছেলে মনির হোসেনের লোকজনের সংঘর্ষ এবং ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। এঘটনায় উভয় পক্ষের অন্তত ২০ জন আহত হয়।

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত