প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] একাত্তরের ৩ মার্চ পাকিস্তানি জান্তার শাসন ছিলো ক্যান্টনমেন্টে, অন্য সব জায়গায় বঙ্গবন্ধুর: মনজুরুল আহসান খান

ভূঁইয়া আশিক রহমান : [২] ১৯৭১ সালের এই দিনে তৎকালীন পল্টন ময়দানে স্বাধীন বাংলা কেন্দ্রীয় ছাত্র-সংগ্রাম পরিষদের ডাকা ছাত্র জনসভায় আকস্মিকভাবে উপস্থিত হন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। এ সভায় বঙ্গবন্ধু অসহযোগ আন্দোলনের ডাক দেন। সেদিনই সভা থেকে স্বাধীন বাংলা কেন্দ্রীয় ছাত্র-সংগ্রাম পরিষদের চার নেতা নূরে আলম সিদ্দিকী, শাজাহান সিরাজ, আ স ম আবদুর রব ও আবদুল কুদ্দুস মাখন স্বাধীনতা ও মুক্তিসংগ্রামে ঝাঁপিয়ে পড়ার শপথ গ্রহণ করেন।

[৩] ছাত্রলীগের তৎকালীন সভাপতি নূরে আলম সিদ্দিকীর সভাপতিত্বে এ সভায় সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক শাজাহান সিরাজ স্বাধীনতার ইশতেহার পাঠ করেন।

[৪] ইশতেহারে স্বাধীন ও সার্বভৌম বাংলাদেশের সর্বাধিনায়ক হিসেবে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাম ঘোষণা করা হয়। বিশ^কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি’ গানটিকে জাতীয় সঙ্গীত নির্বাচিত করা হয়।

[৫] প্রবীণ রাজনীতিবিদ ও মুক্তিযোদ্ধা মনজুরুল আহসান খান বলেন, ২ মার্চ ছাত্ররা দেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন করলেও পাকিস্তানি জান্তা সরকারের কিছুই করার ছিলো না। দেশব্যাপী অসহযোগ আন্দোলন চলছিলো। বঙ্গবন্ধুর ধানমন্ডির বত্রিশ নম্বর বাড়ি ছিলো তখন শাসনের কেন্দ্রবিন্দু। সম্পাদনা: রায়হান রাজীব

 

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত