প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] নিজের পায়ে দাঁড়িয়ে আত্মমর্যাদায় এগিয়ে যাবে বাংলাদেশ: একুশে পদক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী

বাশার নূরু ও মহসীন কবির: [২] প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আরও বলেন, ভাষা আন্দোলনের ধারাবাহিকতায়ই ১৯৭১ সালে সশস্ত্র সংগ্রামের মধ্য দিয়ে আসে বাংলাদেশের স্বাধীনতা। মাতৃভাষার জন্য পাকিস্তানি শাসকগোষ্ঠীর বিরুদ্ধে জাতির পিতা যে সংগ্রামের সূচনা করেছিলেন, তার মধ্য দিয়েই রচিত হয়েছিল বাংলাদেশের স্বাধীনতার পথ ।

[৩] তিনি বলেন, ১৯৪৮ সালে ৪ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ছাত্রলীগ নামের সংগঠন গড়ে তোলেন। এবং তারই প্রস্তাবে এই ভাষা আন্দোলনের যাত্রা শুরু হয়।

[৪] শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৯৯ সালের ১৭ নভেম্বর ইউনেস্কোর এক ঘোষণায় ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসেবে স্বীকৃতি পায়।

[৫] একুশে পদকপ্রাপ্ত ব্যক্তিবর্গের উদ্দেশ্যে শেখ হাসিনা বলেন, এটা শুধু আপনাদের সম্মাননা না। এটা জাতির জন্য সম্মাননা, দেশের মানুষের জন্য সম্মাননা। আগে অল্প কয়েকজনকে এই সম্মাননা দেওয়া হলেও এখন সরকার ২১ শে ফেব্রুয়ারি উপলক্ষে ২১ জনকে এই সম্মাননা দিচ্ছে এবং পুরষ্কারের অর্থও বৃদ্ধি করেছে।

[৬] প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রকৃত গুণীজন পুরস্কার বা সম্মাননার আশায় কাজ করেন না, তবুও পুরস্কার বা সম্মননা জীবনের পথচলায় অনিঃশেষ প্রেরণা যোগায়।

[৭] শনিবার সকালে ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে একুশে পদক-২০২১ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক পুরস্কার হস্তান্তর করেন।

[৮] অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন সংস্কৃতি মন্ত্রণালয়ের সচিব বদরুল আরেফীন। পদকপ্রাপ্তদের সংক্ষিপ্ত জীবনী পাঠ করেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কেএম খালিদ। ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তন প্রান্তে দেশের সশস্ত্র বাহিনীর প্রধানরা ছাড়াও বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ ও মন্ত্রিপরিষদের সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

 

 

 

 

 

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত