প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় চোরাই গ্যাস সংযোগের কারণে বৈধ গ্রাহকদের দুর্ভোগ

তৌহিদুর রহমান : সরকারিভাবে দেশে গ্যাস সংযোগ বন্ধ থাকলেও একটি সিন্ডিকেট ব্রাহ্মণবাড়িয়ার শহরের বিভিন্ন বহুতল ভবন সহ প্রত্যন্ত এলাকায় অবৈধ সংযোগ কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে অবাধে। চোরাইভাবে গ্যাস ব্যবহারের প্রবণতা বাড়ায় গ্যাসের চাপ কমে যাওয়ায় হাজার হাজার বৈধ গ্রাহক চরম দুর্ভোগে পড়েছে।

[৩] অবৈধ গ্যাস ব্যবহারকারীদের বিরুদ্ধে সচেতনমূলক প্রচারণার পাশাপাশি অভিযান জোরদার করার কথা জানিয়েছে সংশ্লিষ্টরা। গ্যাস সমৃদ্ধ জেলা ব্রাহ্মণবাড়িয়া। দেশের জ¦ালানি চাহিদার বেশিরভাগ পূরন হচ্ছে এখান থেকেই। অবৈধ গ্যাস সিন্ডিকেট চক্র সরকারী নির্দেশনা অমান্য করে কিছু অসাধু কর্মকর্তার যোগসাজসে প্রতিনিয়তই গ্যাস সংযোগ দিয়ে যাচ্ছে। এখানে বৈধ গ্রাহকের চেয়ে অবৈধ গ্রাহকের সংখ্যা কয়েকগুণ বেশি।

[৪] প্রায় ১০ কিলোমিটার এলাকা জুড়ে গড়ে তোলা হয়েছে চোরাই গ্যাসের নেটওয়ার্ক। এই অবৈধ লাইন থেকে হাজার হাজার বাড়িঘর সহ বিভিন্ন বহুতল ভবনে গ্যাস সংযোগ দেয়া হচ্ছে। ফলে ভোগান্তিতে পড়েছে বৈধ সংযোগ নেয়া গ্রাহকরাও। এসব সংযোগ দিয়ে বিপুল পরিমাণ অর্থ হাতিয়ে নিচ্ছে এই সিন্ডিকেট। বাখরাবাদ গ্যাস ডিষ্টিভিশন অফিস জানায়, তাদের ২৪ হাজার বৈধ গ্রাহক রয়েছে, অবৈধ গ্রাহক কি পরিমান আছে তার কোন সঠিক তথ্য নেই তাদের কাছে। তবে বৈধ গ্রহকের চেয়ে অবৈধ গ্রাহকের সংখ্যা কয়েক গুন বেশি বলে স্থানীয়দের অভিযোগ। গ্যাস সিন্ডিকেট চক্রটি বৈধ গ্রাহকদের সার্ভিস লাইনের সাথে সংযোগ যুক্ত করে বিভিন্ন এলাকায় পাইপ বসিয়ে অবৈধ ভাবে গ্যাস সংযোগ দিয়ে যাচ্ছে।

[৫] এতে পৌর শহরের কাজীপাড়া, পুনিয়াউট, দাতিয়ারা, কলেজ পাড়া, বনিক পাড়া, কাউতলী, পাইকপাড়া, মেড্ডা, মধ্যপাড়া সহ বিভিন্ন এলাকায় গ্যাসের চাপ কমে যাওয়ায় সকাল ৮টা থেকে দুপুর ২টা-৩টা পর্যন্ত গ্যাস থাকে না। এতে হাজার হাজার বৈধ গ্রাহকদের দুর্ভোগের যেনও শেষ নেই।

[৬] ভূক্তভোগীরা শিরিন আক্তার বলেন, সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত গ্যাস থাকে না। গ্যাস না থাকার কারনে বাচ্ছাসহ আমাদের পরিবারের লোক জনের জন্য কোনো খাবারই তৈরি করতে পারি না। আমমা বিল দিচ্ছি ঠিকই কিন্তু প্রয়োজনের সময় গ্যাস পাচ্ছি না। আরেক গ্রাহক শেফালী বেগম জানান, সময়মতো গ্যাস না পাওয়ায় আমাদের অনেক সমস্যায় পড়তে হয়। সঠিক সময়ে গ্যাস না পাওয়াতে রান্নাবান্না করতে পারছি না।

[৭] জেলা সচেতন নাগরিক কমিটি (সনাকের) সদস্য আব্দুর নুর বলেন, সরকারী ভাবে গ্যাস সংযোগ দেয়া বন্ধ থাকলেও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় অসাধু চক্র তাদের কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। তারা মাইলের পর মাইল এ অবৈধ সংযোগ দিয়ে যাচ্ছে।

[৮] এ বিয়য়ে বাখরাবাদ গ্যাস ডিস্ট্রিবিশন এর সদ্যবিদায়ী ডি.জি এম জাহিদুর রেজা বলেন, আমরা শহরের গুরুত্বপূর্ণ এলাকায় অচিরেই অভিযান পরিচালনা করবো এবং বিভিন্ন এলাকা চিহ্নিত করছি। এসমস্ত অবৈধ সংযোগের কারনে যে কোনও সময় প্রাণহানিসহ বড় ধরণের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে বলে তিনি জানান।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত