প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ঠাকুরগাঁওয়ে হলুদের সমারোহে ব্যস্ত মৌ-চাষীরা

সাদ্দাম হোস‌েন: [২] জেলার রাণীশংকৈল উপজেলার লেহেম্বা ইউনিয়নের দিঘীয়া গ্রামের আঁকাবাঁকা মেঠো পথ ধরে যত দুর দৃষ্টি যায় দেখাযায় শুধু হলুদের সমারোহ। পথের দুই ধারের অগনিত সরিষা ক্ষেতের হলুদ ফুলেই এ সমারোহ। আর এ হলুদের সমারোহের মাঝেই ব্যস্ত সময় পার করতে দেখা যায় মৌ চাষীদের।

[৩] সরিষার ফুলের মধু সংগ্রহ করতে তারা ক্ষেতের পাশেই বসিয়েছেন শত শত মৌচাক বাক্স। স্থানীয় এলাকাবাসীর কেউ নাম দিয়েছেন সরিষা গ্রাম আবার কেউ দিয়েছেন মধু গ্রাম।

[৪] রাণীশংকৈল কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র মতে, উপজেলায় এবার সরিষার আবাদের লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছিল ৩ হাজার ৮শত ৫০ হেক্টর। কিন্তু লক্ষমাত্রার চেয়েও প্রায় ৩ হাজার ৩ শত ৫০ হেক্টর বেশি সরিষার আবাদ হয়েছে। এর মধ্যে উপজেলার লেহেম্বা ইউনিয়নের দিঘীয়া গ্রামেই প্রায় একশ একর জমিতে সরিষার আবাদ হয়েছে। কৃষকরা এবারে বারি -১৪, বারি -১৫ বিনা -৪, বিনা -৯ জাতের সরিষার আবাদ করছে। এর মধ্যে ৫০ বিঘা জমির সরিষার বীজ বিনামূলে ১৫ জন কৃষকের মাঝে বিতরণ করেছে উপজেলা কৃষি অফিস।

[৫] স্থানীয় কৃষকরা জানান, রেকর্ড পরিমাণ সরিষার চাষ এ গ্রামে এবারেই প্রথম। আগে ধান তুলে গম, ভুট্টা আবাদ করা হতো। তবে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাদের উৎসাহে এবার দীঘিয়া গ্রামে এত বড় অংশে সরিষা আবাদ করা হয়েছে। যা ২-৩ হাজার টাকা খরচ করে বিঘা প্রতি ৭-৮ মণ করে সরিষা উত্তোলন করা যায়। আর বাজারে ২ হাজার থেকে ২২ ’শ টাকা মণ বিক্রি করতে পারি।

[৬] অন্যদিকে এ উপজেলায় এবারে ব্যাপক হারে সরিষার আবাদ হওয়ায় মৌ-চাষী সোহেল রানা দিঘীয়া এলাকায় ১২০ টি মৌচাক বাক্স বসিয়ে সপ্তাহে দু-মণের অধিক খাঁটি মধু সংগ্রহ করছেন।

[৭] প্রতি কেজি মধু ৩৫০ থেকে ৪শ টাকায় বিক্রি করছেন তিনি । শীতের এই মৌসুমে গ্রামের মানুষেরা নির্ভেজাল খাঁটি মধু হাতের নাগালে পাওয়ায় খুশিতে আত্মহারা।

[৮] জেলা কৃষি সম্প্রসারনের উপ পরিচালক কৃষিবীদ আফতাব হোসেন জানান, সরিষা খুব প্রয়োজনীয় একটি ফসল, এ এলাকার মানুষ সেটা তেমন বুঝতো না। আমি এবং আমার উপজেলা কৃষি কর্মকর্তারা তাদের বুঝিয়ে এবারে সরিষা আবাদে কৃষকদের আগ্রহ সৃষ্টি করে ব্যাপকভাবে এ এলাকায় সরিষার আবাদ করাতে পেরেছি।

[৯] তবে এর পাশাপাশি কৃষকদের মধু চাষের সফলতা দেখেওে আমি মুগ্ধ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত