প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

দিগন্ত জুড়ে হলদে ফুলের সমাহার, খুশি কৃষক

ডেস্ক রিপোর্ট: ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলায় চলতি মৌসুমে সরিষার ফলন খুব ভালো হয়েছে। উপজেলার অধিকাংশ সরিষাক্ষেতে ফুল ফুটেছে। সুন্দর বীজও আসতে শুরু করেছে। এতে বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা দেখছেন চাষিরা। লাভের আশায় তাদের মুখে খুশির এখন হাসি।

উপজেলার ছয় ইউনিয়নে জমির পর জমিতে সরিষার আবাদ দেখা গেছে। সরিষা খেতে তাকালে দেখা যায় সরিষা ফুলের হলুদের সমাহার। ফুলে মধু আহরণে ভিড় করছে মৌমাছি। তবে অনেক জমিতেই ফুল শেষ হয়ে বীজ দেখা গেছে। বীজগুলো বেশ তরতাজা, যা ভালো ফলনের সম্ভাবনার জানান দিচ্ছে।

উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, চলতি মৌসুমে উপজেলায় মোট ৭১ হেক্টর জমিতে বিনা- ৮, বারি ১৪, ১৫, ১৭ জাতের সরিষার আবাদ হয়েছে। যার মধ্যে রাজাপুর সদর ইউনিয়নে ৭, শুক্তাগড়ে ১৮, মঠবাড়ি ১৭, গালুয়াতে ১২, মাতুরিয়ায় ৯ ও বড়ইয়া ৮ হেক্টর সরিষার আবাদ হয়েছে। কোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে এবার লাভবান হবেন কৃষক।

মঠবাড়ি ইউনিয়নের ডহরশংকর গ্রামের কৃষক আমীর হোসেন জানান, এ বছর অফিস থেকে সরিষার বীজ পেতে বিলম্ব হয়েছে। অফিস যে পরিমান সার, বীজ ও কীটনাশক বিতরণ করে তা প্রয়োজনের চেয়ে কম, তাই বাহির থেকেও তাদের সার ও কীটনাশক ক্রয় করতে হয়।

শুক্তগড় ইউনিয়নের বামনকাঠি গ্রামের আব্দুল আজিজ বলেন, কয়েক বছর থেকেই জমিতে সরিষার চাষ করছেন। কাছাকাছি পানির না থানায় জমিতে সেচ দিতে তাদের খুব কষ্ট হয় তাই সরকার থেকে যদি সেচের ব্যবস্থা করে দিত তাহলে সরিষা চাষে তারা আরও বেশি আগ্রহী হতো।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. রিয়াজ উল্লাহ বাহাদুর জানান, সামনে কোনো প্রাকৃতিক বিপর্যয় না হলে এ বছর সরিষার বাম্পার ফলন হবে। কৃষকরা যাতে সঠিক নিয়মে আবাদ করতে পারে সে জন্য মাঠপর্যায়ে উপজেলা কৃষি বিভাগের পক্ষ থেকে বিভিন্ন ধরনের প্রশিক্ষণ ও পরামর্শ দেয়া হচ্ছে। সময়টিভি

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত