প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের জন্য করোনার টিকা আমদানি ও প্রয়োগ নীতিমালা করছে সরকার

আনিস তপন: [২] বৃহস্পতিবার সচিবালয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সরকারের ভ্যাকসিন প্রয়োগ ও বিতরণ সংক্রান্ত সভা শেষে সাংবাদিকদের একথা বলেন, স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

[৩] তিনি বলেন, নীতিমালার আওতায় সরকারি প্রতিষ্ঠানের টিকা দেয়ার শুরুর পর বেসরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো শর্ত সাপেক্ষে টিকা দিতে পারবে।

[৪] তিনি বলেন, নীতিমালা অনুসরণ করে তারা কীভাবে টিকা দেবে, কীভাবে হিসাব রাখবে, কী দামে দেবে এ বিষয়গুলো ঠিক করে দেওয়া হবে। একই সঙ্গে কোন কোন হাসপাতাল বা কোন কোন ডায়াগনস্টিক সেন্টার কোভিড ভ্যাকসিন দিতে পারবে তা ঠিক করে দেয়া হবে।

[৫] স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ভ্যাকসিন দেয়ার জন্য ৪২ হাজার কর্মীকে প্রশিক্ষণ দিচ্ছে সরকার। তাদের মধ্যে টেকনোলজিস্ট, নার্স, মিডওয়াইফ ও
ভলান্টিয়ার কর্মীরা রয়েছেন। তাছাড়া ভ্যাকসিন দেয়ার জন্য আইসিটি মন্ত্রণালয় একটি অ্যাপস তৈরি করছে। এর মাধ্যমে ভ্যাকসিন নেয়ার জন্য আগ্রহীরা নিবন্ধন করতে পারবেন। নিবন্ধিত হওয়ার পর ভ্যাকসিন গ্রহণের সময় ও স্থান জানিয়ে দেয়া হবে।

[৬] ভ্যাকসিন দেয়ার জন্য সরকার পুরোপুরি তৈরী রয়েছে উল্লেখ করে জাহিদ মালেক বলেন, সরকারি হাসপাতাল ও উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে প্রার্থীদের ভ্যাকসিন দেয়া করা হবে।

[৭] দেশে অন্তত ১৪/১৫ কোটি ভ্যাকসিন ডোজ রাখার ব্যবস্থা সরকারের আছে জানিয়ে তিনি বলেন, তাই দেশে ৪ থেকে ৫ কোটি ভ্যাকসিন চলে এলে সেগুলো সঠিকভাবে প্রয়োগে সমস্যা হবে না। মন্ত্রী বলেন, জেলা পর্যায়ের প্রতিটি হাসপাতালের সংরক্ষিত কোল্ড রুমে প্রায় ৪ লাখ ২৫ হাজার ডোজ ভ্যাকসিন রাখার ব্যবস্থা করা হয়েছে। পাশাপাশি, প্রতিটি হাসপাতালে পাঁচ থেকে ১০টি আইস ফ্রিজার আছে, যেখানে অন্তত ৭১ হাজার ডোজ ভ্যাকসিন রাখা যাবে।

[৮] ভ্যাকসিন দেয়ার জন্য সারাদেশে প্রাথমিকভাবে সাত হাজার ৩৪৪টি টিমকে যুক্ত করা হয়েছে। প্রতি টিমে ছয় জন স্বাস্থ্যকর্মী কাজ করবেন। তারা প্রতিদিন ১০০ থেকে ১৫০ জনকে ভ্যাকসিন প্রয়োগ করতে পারবে।

 

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত