প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নিউইয়র্কে সাব স্টেশনে পাইপ বোমা বিষ্ফোরণ
 আকায়েদ উল্লাহর সব দাবি খারিজ, আমৃত্য কারাদণ্ড হতে পারে

ডেস্ক রিপোর্ট : নিউইয়র্কের ম্যানহাটনে বুকের মধ্যে পাইপ বোমা বেঁধে বিষ্ফোরণের চেষ্টা চালাতে গিয়ে আটক বাংলাদেশি অভিবাসী যুবক আকায়েদ উল্লাহর সপক্ষের সকল দাবি খারিজ করে দিয়েছেন ম্যানহাটন আদালতের একজন বিচারক। ২০১৭ সালে মানহাটনের টাইম স্কয়ারে পাতাল সাবওয়ে স্টেশনে আকায়েদ উল্লাহ বুকে পাইপ বোমা নিয়ে ঘোরাঘুরি সময় আচমকা সেটি বিষ্ফোরিত হয়। এতে সে নিজেই জখম হয়। আশে পাশে কিছু মানুষ সামান্য আঘাত পান।

নিউইয়র্কে ব্রুকলিনের অভিবাসী ৩০ বছর বয়ষ্ক আকায়েদের বিরুদ্ধ জঙ্গি সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ এনে পুলিশ মামলা করলে, সে তা অস্বীকার করে এবং তার সঙ্গে ইসলামিক স্টেট-আইএস এর সম্পর্ক নেই বলে দাবি করে। আদালত এবার তার সকল দাবি খারিজ করে দিলো।

বিচারক রিচার্ড সুলিভান আকায়েদের চ্যালেঞ্জ খারিজ করে গত ৩১ ডিসেম্বর দেওয়া এক রায়ে বলেছেন, তথ্য-প্রমাণাদি নিশ্চিত করে আকায়েদ উল্লাহ ওই জঙ্গি গ্রুপের নির্দেশনা অনুযায়ী কাজ করছিলেন। এবং তার কাছে সংস্থাটির প্রোপ্যাগান্ডার উপকরণ মিলেছে।

বিচারক সুলিভন তার সিদ্ধান্ত ৩১ ডিসেম্বর দিলেও সোমবার (৪ ডিসেম্বর) তা প্রকাশ করা হয়। এই অপরাধে আকায়েদকে ৩০ বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। তবে তার আমৃত্যু কারাবাসের সিদ্ধান্তও আসতে পারে। করোনা ভাইরাসের কারণে আদালতের চূড়ান্ত রায় অপেক্ষমান রাখা হয়েছে। বিচারক নিশ্চিত হয়েছন, আকায়েদ এরই মধ্যে পুলিশের কাছে স্বীকার করেছে যে একটি ভিডিও দেখেই সে এই ধরনের কাজে উৎসাহিত হয়েছে। আর আগেই আটক করার সময় পুলিশের কাছে সে স্বীকার করেছে যে, সে ইসলামিক স্টেটের হয়ে কাজ করে।

এপির খবরে বলা হয়েছে, আকায়েদ উল্লাহর আইনজীবী এমি গ্যালিসিও এ বিষয়ে মন্তব্য করতে বাজি হন নি। অপর দিকে সরকারি আইনজীবীরাও মুখপাত্রের মাধ্যমে জানিয়েছন, তারা এ নিয়ে কথা বলবেন না।

রিপোর্টে বলা হয়েছে, বিচারক তার সিদ্ধান্ত শুনিয়ে আদালত কক্ষ ছেড়ে গেলে, আকায়েদ চিৎকার করে বলছিলো, ইসলামিক স্টেটের সঙ্গে তার কোনো যোগাযোগ নেই। সেই ওই হামলা চালাতে চেয়েছিলো কারণ প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ঘোষণা দিয়েছিলেন তিনি মধ্যপ্রাচ্যে বোমা ফেলবেন।

বিচারের সময় আকায়েদ উল্লাহকে তার গ্রেফতারের পর কথা বিভিন্ন বক্তব্য শোনানো হয় এবং হামলা চালানোর আগে ফেসবুকে প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের বিরুদ্ধে যেসব কথা লিখেছিলেন সেগুলো সামনে আনা হয়।

২০১১ সালে ইতোমধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিকত্ব পাওয়া এক চাচার সুবাদে দেশটিতে প্রবেশের ভিসা পায় আকায়েদ উল্লাহ।
সূত্র- অপারেজেয় বাংলা

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত