প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ‘লাভ’-এর মধ্যে ‘জিহাদ’ বলে কিছু নেই বললেন অমর্ত্য সেন

রাশিদুল ইসলাম : [২] নোবেল জয়ী অর্থনীতিবিদ অমর্ত্য সেন বলেছেন একটি ধর্ম ছেড়ে অন্য কোনো ধর্ম গ্রহণ করলেও সমস্যা নেই। ভিন ধর্মে বিয়ে রুখতে ধর্মান্তরকরণ প্রতিরোধী আইন নিয়ে ভারতে যা হচ্ছে, তা এদেশের সংস্কৃতি নয়। যুক্তরাষ্ট্রের বোস্টন থেকে সোমবার টেলিভিশন চ্যানেলকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে একথা বলেন তিনি। আনন্দবাজার

[৩] অমর্ত্য বলেন, ‘‘এটা খুবই চিন্তার বিষয়। একে মানুষের স্বাধীনতায় হস্তক্ষেপ বলে মনে হচ্ছে। জীবন যাপনের অধিকার তো মৌলিক অধিকার হিসেব স্বীকৃত। কিন্তু এই আইনের ফলে মানবাধিকার লঙ্ঘন করা হচ্ছে। কারণ যে কোনো মানুষই নিজের ধর্ম বদলে অন্য ধর্মগ্রহণ করতে পারেন। সেটা সংবিধান স্বীকৃত। তাই এই আইন অসাংবিধানিক।’’

[৪] ভারতে ‘লাভ জিহাদ’-এর বিরুদ্ধে বিজেপিশাসিত রাজ্যগুলোতে বিয়ের নামে ধর্মান্তরকরণ প্রতিরোধী আইন কার্যকর করছে। সোমবারই অন্যধর্মের এক দম্পতিকে নিয়ে মামলার শুনানিতে এলাহাবাদ হাইকোর্ট বলেছে, একজন প্রাপ্তবয়স্ক তরুণী যদি স্বামীর সঙ্গে থাকতে চান, নিজের ইচ্ছায় জীবন কাটাতে চান, সেই স্বাধীনতা রয়েছে তার।

[৫] অমর্ত্য সেন বলেন ‘‘অবিলম্বে এই বিষয়ে সুপ্রিম কোর্টের হস্তক্ষেপ চাওয়া উচিত। এই আইনকে অসাংবিধানিক ঘোষণা করার জন্য সুপ্রিম কোর্টে মামলা করা উচিত। এটা খুবই বড় বিষয়। ভারতের ইতিহাসে এমন দৃষ্টান্ত নেই। আকবরের সময় নিয়ম হয়েছিল, যে কোনো ব্যক্তি যে কোনো ধর্ম গ্রহণ করতে পারেন। এবং যে কোনো ধর্মে বিয়ে করতে পারেন। ফলে আমাদের দেশে সেই সংস্কৃতি রয়েছে। আমাদের সংবিধানে ব্যক্তি স্বাধীনতা রক্ষার কথা খুব স্পষ্টভাবে বলা আছে। ফলে এমন আইন সংবিধানকেই অপমান করে।’’

[৬] অমর্ত্য বলেন, ‘‘এখন ‘ক্রিমিনাল অ্যাক্ট অব লাভ জিহাদ’ বলা হচ্ছে। তলিয়ে দেখলে বোঝা যায় প্রেমের মধ্যে কোনো ‘জিহাদ’ নেই। ভিন ধর্মের কাউকে ভালোবেসে বিয়ে করলে, তার মধ্যে কোনো ‘জিহাদ’ থাকতে পারে না। তেমনই একটি ধর্ম ছেড়ে অন্য কোনো ধর্ম গ্রহণ করলেও সমস্যা নেই। এটা একটা রাজনৈতিক দল করছে। এর ফলে ভারতকে অপমান করা হচ্ছে। এটা ভারতের সংস্কৃতি নয়। আমার বিশ্বাস, আদালত এর জবাব দেবে।’’

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত