প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

বিশ্বে টেলিভিশন বিক্রি বেড়েছে ৬৩ মিলিয়ন

রাশিদ রিয়াজ : তৃতীয় প্রান্তিকে টেলিভিশন বিক্রিতে এগিয়ে আছে সামাসাং। কোভিড মন্দায় ভ্রমণ কমেছে, ঘরে সময় ও অর্থ ব্যয় হচ্ছে বেশি তাই টেলিভিশন কিনতে অনেকে ব্যয় করেছেন। গত বছরের তুলনায় এবার তৃতীয় প্রান্তিকে টেলিভিশন বিক্রি বেড়েছে ১৫ শতাংশ যা সংখ্যায় ৬২.৯ মিলিয়ন। গবেষণা ফার্ম ওমিডা বলছে টেলিভিশনের পূর্বাভাসের চেয়েও ১০ শতাংশ বেশি বিক্রি হয়েছে। আরেক গবেষণা প্রতিষ্টান ট্রেন্ডফোর্স বলছে তৃতীয় প্রান্তিকে টেলিভিশন বিক্রি ৬২ মিলিয়ন ছাড়িয়ে গেছে। ন্যাশনাল ইন্টারেস্ট

ওমিডার গবেষণায় দেখা গেছে লোকজন কোভিড ভাইরাসের কারণে ঘরেই সময় কাটছে বলে অব্যবহৃত টাকা বিভিন্নভাবে খরচ হচ্ছে যার একটি অংশ টেলিভিশন কিনতে ব্যয় হচ্ছে। যে টাকা হয়ত ভ্রমণে ব্যয় হত তা এখন ব্যয় হচ্ছে গৃহস্থালী কোনো কাজে। উত্তর আমেরিকার বাজার প্রবৃদ্ধি ৬০ শতাংশ হলেও মধ্যপ্রাচ্য ও আফ্রিকায় এ বাজার বেড়েছে ২০ শতাংশ। টেলিভিশনের চাহিদা বৃদ্ধির সাথে সাথে এলসিডি টিভির দামও বেড়েছে ৬০ শতাংশ। চীনে জীবনযাত্রা ও পণ্য সরবারহ অনেকটা স্বাভাবিক হয়ে যাওয়ায় দেশটিতে প্রচুর সংখ্যক টেলিভিশন সেট বিক্রি হয়েছে। উত্তর আমেরিকায় তৃতীয় প্রান্তিকে ১৬.৪ মিলিয়ন টেলিভিশন সেট বিক্রি হয়েছে।

সামসাং টেলিভিশন বিক্রি হয়েছে ১৫ মিলিয়ন। এলজি টেলিভিশন বিক্রির পরিমান হচ্ছে ৭ মিলিয়ন। এরপর রয়েছে টিসিএল টেলিভিশন বিক্রির পরিমান। হাইসেন্স, ঝিয়াওমি, স্কাইওয়ার্থ, সনি, ভিজিও, শার্প এবং ফিলিপস টেলিভিশনের বাজার ছিল বেশ ভাল। মোট টেলিভিশন বিক্রির ৫৮.৬ শতাংশ ছিল আল্ট্রা এইচডি। স্মার্ট টেলিভিশন বিক্রির পরিমান ছিল ৮৫.৯ শতাংশ। টিভি অব ওমিডার সিনিয়র গবেষণা পরিচালক পল গ্রে বলেন টেলিভিশন দেখাই এখন মহামূল্যবান হয়ে দাঁড়িয়েছে। এবছর টেলিভিশনের চাহিদা ভালই থাকবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত