প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ভারতের হামলার ভয়েই কি বায়ুসেনার পাইলট অভিনন্দনকে ছাড়তে বাধ্য হয়েছিল পাকিস্তান?

এই সময়: ভারতের বায়ুসেনার পাইলট অভিনন্দন বর্তমানকে মুক্তি দেওয়ার সময় পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান মুখে ‘শান্তি ও সৌজন্য’ প্রদর্শনের কথা বলেছিলেন। পুলওয়ামা-বালাকোট পরবর্তী পরিস্থিতিতে ভারতীয় বায়ুসেনার পাইলট অভিনন্দ বর্তমানকে ছেড়ে দিয়ে সত্যি কি পাকিস্তান শান্তির বার্তা প্রেরণ করেছিল? নাকি এর পিছনে ছিল অন্য কারণ? অভিনন্দনকে ছাড়ার জন্য পাকিস্তানের উপর আন্তর্জাতিক চাপ যে ছিল, তা কারও অজানা নয়। কিন্তু, সেই আন্তর্জাতিক চাপের কাছে নতিস্বীকার করেই কি ইসলামাবাদ তড়িঘড়ি ভারতীয় বায়ুসেনার পাইলটকে মুক্তি দিয়েছিলেন? নাকি আরও কোনও ভয় বা বৃহত্তর স্বার্থ কাজ করেছিল পাকিস্তানের মনে? যার জন্য বিষয়টি নিয়ে অযথা আর জলঘোলা করতে চায়নি ইসলামাবাদ?

পাকিস্তানের এক সাংসদ বুধবার (২৮ অক্টোবর) পার্লামেন্টে দাবি করেন, ভারতের হামলার ভয়েই ইমরান খান সরকার হঠাত্‍‌ মুক্তি দেয় ভারতীয় বায়ুসেনার পাইলট অভিনন্দন বর্তমানকে। বালাকোট হামলার পরপরই ভারত-পাকিস্তানের পাইলটদের মধ্যে লড়াইয়ের সময় বিমান ভেঙে পাকসেনার হাতে ধরা পড়েন অভিনন্দন।

জাতীয় সংসদে এক ভাষণে পাকিস্তান মুসলিম লিগ-নওয়াজ (PML-N) নেতা আয়াজ সাদিক বলেন, অভিনন্দন বন্দি হওয়ার পর পাক বিদেশমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশি এক গুরুত্বপূর্ণ বৈঠকে বলেছিলেন, ‘অভিনন্দন বর্তমানকে মুক্তি না দিলে, ভারত পাকিস্তানের উপর হামলা করবে।’ এ-ও বলা হয়েছিল, ওই দিন রাত ৯টার মধ্যে ভারত প্রত্যাঘাত করবে। পিএমএল-এন নেতা সাদিককে উদ্ধৃত করে এমন একটি খবর প্রকাশিত হয়েছে দুনিয়া নিউজে।

বিরোধী নেতাদের উদ্দেশে সাদিক বলেন, পিপিপি ও পিএমএল-এনের নেতারা ছাড়াও সেনা প্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজওয়ার উপস্থিতিতে বৈঠক করেন পাক বিদেশমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশি। পাক বিদেশমন্ত্রী বৈঠকে বলেন অভিনন্দকে মুক্তি দিতে হবে।

পিএমএল-এন নেতার কথায়, ‘আমার এখনও স্পষ্ট মনে আছে কুরেশির ওই বৈঠকে ইমরান খান থাকতে অস্বীকার করেন। বৈঠকে এসেছিলেন পাকসেনা প্রধান। তিনি তখন দরদর করে ঘামছেন। বিদেশমন্ত্রী বৈঠকে উপস্থিত সকলের উদ্দেশে বলেন, ‘আল্লার দোহাই, অভিনন্দকে যেতে দিন। না হলে রাত ৯টার মধ্যে ভারত পাকিস্তানের উপর হামলা চালাবে।’

২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে পাকিস্তানি হামলা রুখতে গিয়ে পাকিস্তানের হাতে ধরা পড়েন ভারতীয় বায়ুসেনার পাইলট অভিনন্দন বর্তমান। তার ঠিক ১২ দিন আগে পুলওয়ামায় জঙ্গি হামলায় সিআরপিএফের ৪০ জওয়ান শহিদ হন। পাকিস্তানকে যোগ্য জবাব দিতে ভোররাতের অন্ধকারে বালাকোটে, পাকিস্তানের মাটিতে ঢুকে এয়ারস্ট্রাইক চালিয়েছিল বায়ুসেনা। তার পরদিন পাক যুদ্ধবিমানকে ধাওয়া করতে গিয়ে বিমান ভেঙে ধরা পড়েছিলেন অভিনন্দন। তিন দিন তাঁকে হেফাজতে রেখেছিল পাকিস্তান। পরে শান্তি ও সৌজন্যের বার্তার উল্লেখ করে তাঁকে ছেড়ে দেয় পাকিস্তান।

বালাকোট অভিযানের পর, ২৭ ফেব্রুয়ারি সকাল ১১টা নাগাদ ভারতের আকাশসীমা লঙ্ঘন করে ঢুকে পড়েছিল পাকিস্তানের ২৪টি বিমান। ওই বিমানবহরে ছিল পাকিস্তানের ৮টি এফ-১৬ যুদ্ধবিমান। ভারতীয় বায়ুসেনার মিগ-২১ বাইসন, সুখোই-৩০এমকেআই ও মিরাজ-২০০০ যুদ্ধবিমান পালটা ধাওয়া করে। পাকিস্তানের একটি এফ-১৬ গুঁড়িয়ে দেন অভিনন্দন বর্তমান। তবে তাঁর বিমানকেও গুলি করে নামানো হয়।

সেদিন বেলা সাড়ে ৩টে নাগাদ ঘোষণা করা হয়, ভারতীয় বায়ুসেনার একটি মিগ-২১ যুদ্ধবিমান ও তার পাইলটের খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না। পাকিস্তান এর পর দাবি করে, তাদের হেফাজতে রয়েছেন ভারতের উইং কম্যান্ডার অভিনন্দন বর্তমান। সেদিনই সন্ধ্যায় অভিনন্দন বর্তমানের একটি ভিডিয়ো সামনে আসে। সেখানে পাকিস্তানি সেনার জেরার মুখে অভিনন্দনকে বলতে শোনা যায়, ‘আমি এই প্রশ্নের জবাব দেওয়ার এক্তিয়ার রাখি না।’ এর পর দেশ জুড়ে উইং কম্যান্ডরের সাহসিকতা বাহবা কুড়োয়।

 

ভারতীয় বিদেশমন্ত্রকের তরফে এক বিবৃতিতে জানানো হয়, ভারতের আশা তাঁকে অক্ষত অবস্থায় তাড়াতাড়ি দেশে পাঠানো হবে। শুরু হয় কূটনৈতিক টানাপোড়েন। আন্তর্জাতিক আইনের কথা তুলে ধরে ভারত ক্রমশ পাকিস্তানকে কোণঠাসা করতে থাকে। ২৮ ফেব্রুয়ারি ভিয়েতনামের হ্যানয় থেকে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, ‘আমার মনে হয়, ভারত ও পাকিস্তান থেকে কিছু যুক্তিযুক্ত এবং আকর্ষণীয় খবর আসবে।’ তার পরই অভিনন্দন বর্তমানের দেশে ফেরা নিয়ে জল্পনা শুরু হয়। এই জল্পনা শুরু হতেই ইমরান খান ঘোষণা করেন, ১ মার্চ ছেড়ে দেওয়া হবে অভিনন্দন বর্তমানকে।

১ মার্চ বিকেলে উইং কম্যান্ডার অভিনন্দন বর্তমানকে ভারতের হাতে হস্তান্তর করার কথা ছিল। কিন্তু, দু’বার হস্তান্তরের সময় বদল করে পাকিস্তান। দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান শেষে ওয়াঘা সীমান্ত দিয়ে রাত ৯টা ২১ মিনিটে দেশের মাটিতে পা রাখেন উইং কমান্ডার। পাকিস্তানের হেফাজত থেকে দেশে ফেরার তিন দিনের মাথায় ককপিটে ফেরার ইচ্ছাপ্রকাশ করেছিলেন উইং কম্যান্ডার অভিনন্দন বর্তমান। দীর্ঘ ৬ মাস পর ককপিটে ফেরেন অভিনন্দন।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত