প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ব্ল্যাক হোল নিয়ে গবেষণার জন্য পদার্থবিদ্যায় নোবেল পেয়েছেন তিন বিজ্ঞানী

লিহান লিমা: [২] মহাবিশ্বের সবচেয়ে রহস্যময় বস্তু ব্ল্যাক হোল সম্পর্কে যুগান্তকারী গবেষণার জন্য পদার্থবিদ্যায় এ বছরের নোবেল পেয়েছেন অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থ বিজ্ঞানী রজার পেনরোস, মার্কিন জ্যোতির্বিদ রেইনহার্ড গেঞ্জেল ও জার্মান পদার্থবিদ আন্দ্রিয়া ঘেজ। রয়্যাল সুইডিশ একাডেমি অব সায়েন্স বলছে, এই তিন বিজ্ঞানী তাদের গবেষণার মাধ্যমে কৃষ্ণগহবর সম্পর্কে নতুন ব্যাখ্যা সামনে এনেছেন। নোবেলওআরজি

[৩] রজার পেনরোজ দেখিয়েছেন, কীভাবে আপেক্ষিকতার সাধারণ তত্ত্ব কৃষ্ণগহ্বরের গঠন প্রক্রিয়া সম্পর্কে স্পষ্ট ধারণা দেয়। রিনহার্ড এবং আন্দ্রেয়া ঘেজ যৌথভাবে আবিষ্কার করেছেন, আমাদের সৌরজগত যেই ছায়াপথে অবস্থিত তার কেন্দ্রে রয়েছে এক অদৃশ্য ও বিপুল ভর বিশিষ্ট এক বস্তু যা নক্ষত্রের কক্ষপথকে প্রভাবিত করছে।

[৪] এই আবিষ্কারের জন্য এবারের পদার্থবিদ্যার নোবেলের ১ কোটি সুইডিশ ক্রোনারের মধ্যে অর্ধেক অর্থমূল্য পাবেন বিজ্ঞানী পেনরোজ। বাকি অর্ধেক পাবেন গেঞ্জেল এবং ঘেজ।

[৫] আন্দ্রেয়া ঘেজসহ এ নিয়ে চারজন নারী পদার্থবিদ্যায় নোবেল পুরস্কার পেলেন। এর আগে মেরি কুরি (১৯০৩), মারিয়া গোপার্ট-মায়ার (১৯৬৩) এবং দীর্ঘ ৫৫ বছর পর ২০১৮ সালের কানাডার ডোনা স্ট্রিকল্যান্ড নোবেল পেয়েছেন।

[৬] বিগ ব্যাংয়ের পর আমাদের মহাবিশ্ব কীভাবে এগিয়ে গিয়েছে তার তাত্ত্বিক আবিষ্কার এবং সূর্য-সদৃশ একটি নক্ষত্রকে কেন্দ্র করে আবর্তনকারী একটি বর্হিগ্রহ আবিষ্কার জন্য গত বছর পদার্থবিদ্যায় নোবেল পুরস্কার জিতেছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ের জেমস পিবলস এবং সুইজারল্যান্ডের দুই বিজ্ঞানী মিশেল মায়োর ও দিদিয়ে কুয়েলো।

[৭] রঞ্জন রশ্মি আবিষ্কারের মাধ্যমে অসামান্য অবদান রাখার স্বীকৃতিস্বরূপ পদার্থবিজ্ঞানে প্রথম নোবেল পুরস্কারে ভূষিত হন জার্মান পদার্থবিজ্ঞানী উইলিয়াম ভিলহেল্ম কনরাড রন্টজেন।

[৯] বুধবার রয়্যাল ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স থেকে রসায়নে, বৃহস্পতিবার দ্য রয়্যাল সুইডিশ একাডেমি থেকে সাহিত্যে, শুক্রবার নরওয়ের রাজধানী অসলো থেকে নরওয়েজিয়ান নোবেল কমিটি শান্তিতে এবং সোমবার দ্য রয়্যাল ইনস্টিটিউট অব সায়েন্স অর্থনীতিতে নোবেলজয়ী ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের নাম প্রকাশ করবে। সম্পাদনা: ইকবাল খান

সর্বাধিক পঠিত