প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] পুরনো চেহারায় রাজধানী, যানজট-ভোগান্তি চরমে

সুজিৎ নন্দী : [২] কোভিড-১৯ সংক্রমণ না কমলেও বাস ও মিনিবাসে মানুষের ভীড়ে শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখতে পারছেন না কেউ। অফিস-আদালত সবকিছু আগের মতো হওয়ায় ঢাকায় মানুষ ও যানজটের চাপ বেড়েছে। দিনের অধিকাংশ সময় বিভিন্ন সড়কে তীব্র যানজট লেগে থাকছে। বেড়েছে মানুষের ভোগান্তি। রাজধানীর উত্তরা, বনানী, গুলশান, গুলিস্তান, কারওয়ান বাজার, যাত্রাবাড়ী ও পুরান ঢাকা ঘুরে এরকম চিত্র দেখা গেছে।

[৩] বাসের ভাড়া নিয়ে কন্ডাক্টর-হেলপাররা যাত্রীদের সঙ্গে চরম দুর্ব্যবহার করেন, বাদানুবাদ, হাতাহাতিতেও জড়িয়ে পড়েন। এ ছাড়াও পূর্বের ভাড়ার চেয়েও মাত্রাতিরিক্ত যাত্রী বোঝাই, অতিরিক্ত ভাড়া আদায়, যত্রতত্র গাড়ি থামিয়ে যাত্রী ওঠানামাসহ নানা কারণেই যাত্রীরা চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন।

[৪] গুলিস্তান থেকে পল্টন পর্যন্ত গোটা সড়কটি টার্মিনাল, না স্ট্যান্ড, নাকি হাটবাজার তা বোঝা মুশকিল। একইভাবে মিরপুর ১১ থেকে ১২ পর্যন্ত, কালশী সড়ক, মিরপুর মাজার রোড, চিড়িয়াখানা রোড, যাত্রাবাড়ী থেকে শনির আখড়া পর্যন্ত, মোহাম্মদপুর টাউন হল থেকে ধানমন্ডি আবাহনী মাঠ পর্যন্ত, আজিমপুর মোড়ের চারপাশের রোডগুলো।

[৫] এছাড়াও টিকাটুলী রাজধানী মার্কেট থেকে সায়েদাবাদ ব্রিজ পর্যন্ত, রিং রোড থেকে মেরুল বাড্ডা পর্যন্ত, মালিবাগ বাজার মোড় থেকে খিলগাঁও ফ্লাইওভার, কমলাপুর স্টেশন থেকে পীরজঙ্গি মাজার পর্যন্ত এলাকা বিভিন্ন রুটের বাস-মিনিবাসের ছিলো প্রচন্ড যান জন। এবং এর প্রতিটি স্থানে ভাড়া নিয়ে তর্কাতর্কি, হাতাহাতির মতো ঘটনা ঘটেছে।

[৬] দায়িত্বশীলরা জানান, পরিবহনে শৃঙ্খলা প্রতিষ্ঠার পরিবর্তে আবার চাঁদাবাজি, টোকেন বাণিজ্য আর বখরাবাজিতে আবার শুরু হয়েছে। ট্রাফিক পুলিশের সামনেই ফিটনেসবিহীন গাড়ি চলাচল করছে। ভুয়া লাইসেন্সধারী চালকের নানা অপকর্ম দেখেও তারা না দেখার ভান করেন। রাস্তায় শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্বে নিয়োজিত ট্রাফিক সদস্যরা ভুক্তভোগী যাত্রী ও পথচারীদের কোনো অভিযোগ আমলে নেন না। তারা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে পরিবহন চালকদের পক্ষে ভূমিকা রাখেন।

[৭] এদিকে অবৈধ পার্কিং বাণিজ্য আবার শুরু হয়েছে। বঙ্গবাজারের সামনে থেকে গুলিস্তান পর্যন্ত ফুলবাড়িয়ার প্রশস্ত রাস্তাটি অনেক আগেই হারিয়ে গেছে। স্থানটি মানিকগঞ্জ, গাজীপুর, কাপাসিয়া, কালিগঞ্জ, সাভার-ধামরাইসহ ৩০টি রুটের শত শত বাস-মিনিবাসের স্থায়ী টার্মিনালে পরিণত হয়েছে।

[৮] মানিকগঞ্জ, গাজীপুর, কাপাসিয়া, কালিগঞ্জ, সাভার-ধামরাইসহ ৩০টি রুটের শত শত বাস-মিনিবাসের স্থায়ী টার্মিনালে পরিণত হয়েছে। গোটা সড়কটি টার্মিনাল, না স্ট্যান্ড, নাকি হাটবাজার তা ঠাহর করা মুশকিল। একইভাবে মিরপুর ১১ থেকে ১২ পর্যন্ত, কালশী সড়ক, মিরপুর মাজার রোড, চিড়িয়াখানা রোড, যাত্রাবাড়ী থেকে শনির আখড়া পর্যন্ত, মোহাম্মদপুর টাউন হল থেকে ধানমন্ডি আবাহনী মাঠ পর্যন্ত, আজিমপুর মোড়ের চারপাশের রোডগুলো, টিকাটুলী রাজধানী মার্কেট থেকে সায়েদাবাদ ব্রিজ পর্যন্ত, রিং রোড থেকে মেরুল বাড্ডা পর্যন্ত, মালিবাগ বাজার মোড় থেকে খিলগাঁও ফ্লাইওভার, কমলাপুর স্টেশন থেকে পীরজঙ্গি মাজার পর্যন্ত এলাকা বিভিন্ন রুটের বাস-মিনিবাসের স্থায়ী টার্মিনালে পরিণত হয়েছে। সম্পাদনা : খালিদ আহমেদ

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত