প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] জাতীয় শোক দিবসে সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের জুম অনলাইন আলোচনা সভা

আনিসুল হক, ভিয়েনা (অষ্ট্রিয়া) থেকে : [২] বাংলাদেশের স্বাধীনতার মহান স্থপতি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এর ৪৫তম শাহাদাৎ বার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে ‘শোক হোক শক্তির উৎস’ শীর্ষক সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের জুম অনলাইন আলোচনা সভা ১৫ আগস্ট শনিবার বিকেল ৭টায় অনুষ্ঠিত হয়।

[৩] এতে সভাপতিত্ব করেন, সর্ব ইউরোপিয়ান আওয়ামী লীগের সভাপতি এম. নজরুল ইসলাম। সঞ্চালনা করেন, সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান। তাকে সহযোগিতা করেন, ইঞ্জিনিয়ার মাহফুজুর রহমান ভ‚ইয়া ও ইঞ্জিনিয়ার হেদায়েতউল ইসলাম শেলী। অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথি ছিলেন, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য এবং ১৪ দলের সমন্বয়ক ও মুখপাত্র জনাব আমির হোসেন আমু এমপি, প্রখ্যাত সাংবাদিক, সাহিত্যিক ও কলাম লেখক জনাব আবদুল গাফ্ফার চৌধুরী এবং বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় তথ্যমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ এমপি।

[৪] অনুষ্ঠানে ইউরোপের সব দেশের আওয়ামী লীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ নেতৃবৃন্দ বক্তব্য রাখেন, তারা হলেন, জাহাঙ্গীর করির, এম এ কাশেম, মোহাম্মদ ইদ্রিস ফরাজী, বসিরুল আলম চৌধুরী সাবু, এস আর আই রবিন, মাইনুল ইসলাম, মোস্তফা মজুমদার বাচ্চু, শাহাদাত হোসেন তপন, খন্দকার হাফিজুর রহমান নাসিম, জহিরুল ইসলাম জসিম, মাসুম মিয়া, দিলওয়ার হোসেন কয়েস, মোস্তফা জামান, মুরাদ খান, রিজভী আলম, বেলাল হোসেন, বাবুল হাওলাদার, মাহবুবুর রহমান, শ্যামল খান, ইকবাল আহমেদ লিটন, সাইফুল ইসলাম কবির, মোস্তাফিজুর রহমান, বিদ্যুৎ কার্ল, শওকত ওসমান, রাজিব দাস প্রমুখ।

[৫] অনুষ্ঠানে প্রখ্যাত সাহিত্যিক, সাংবাদিক আবদুল গাফ্ফার চৌধুরীর বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুকে আমরা কিভাবে দেখি, এটা একটা বড় প্রশ্ন, দলীয় নেতা নাকি জাতীয় নেতা? স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরু হওয়ার আগে বঙ্গবন্ধু ছিলেন দলীয় নেতা,’৭১ সালের আগে তিনি ছিলেন আওয়ামী লীগের নেতা, কিন্তু মুক্তিযুদ্ধ শুরু হওয়ার পরে তিনি জাতীয় নেতায় উন্নীত হন এবং দেশ স্বাধীন হওয়ার পরে তিনি রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা গ্রহণ করেন। পরবর্তীতে একটা ব্যাপার দেখা গেল বঙ্গবন্ধু রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা গ্রহণ করার পরে আমাদের জাতীয় ঐক্য ভেঙ্গে যায়। ভাসানী ন্যাপ মুজিব সরকারের বিরোধিতা শুরু করে। কমিউনিষ্ট পার্টি শুধু জাতীয় ঐক্যে যোগ দিয়ে সরকারকে সমর্থন করে। ছাত্রলীগের একটি অংশ ভেঙ্গে গিয়ে জাসদ তৈরি করে, যারা ছিলো আরো ভংঙ্কর। ‘ তিনি আরো বলেন, ‘ ৭১ এর পরাজিত পক্ষের সঙ্গে যোগ দিয়েছিলো জাসদ।’

[৬] বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য এবং ১৪ দলের সমন্ময়ক ও মুখপাত্র আমির হোসেন আমু এমপি বলেন, ‘বঙ্গবন্ধুর হত্যা একটি প্রতিহিংসা, জিঘাংসা মূলক রুপ নিয়েছিলো। এর কারণ হলো, যারা বাংলাদেশের স্বাধীনতা, সার্বভৌমত্ব মেনে নিতে পারেনি তারাই তাদের প্রতিহিংসা মিটিয়েছেন বঙ্গবন্ধু, শিশু রাসেল সহ পরিবারের অধিকাংশ সদস্যকে হত্যা করে। হত্যাকারীরা অত্যান্ত সুপরিকল্পিত ভাবে প্রমাণ করার চেষ্টা করেছিলো যে হত্যাকান্ডটি একটি পরিবার কেন্দ্রীক। মূলত বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে দেশে সা¤প্রদায়িকতার রাজনীতি প্রবর্তন করা হয়।’

[৭] বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় তথ্যমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ এমপি বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিনরাত নিরলস পরিশ্রম করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়তে কাজ করে যাচ্ছেন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুকে সাড়ে তিন বছরের মাথায় হত্যা করা হয়েছিলো। কিন্তু বঙ্গবন্ধু মাত্র সাড়ে তিন বছরেরই যুদ্ধবিদ্ধস্ত একটি দেশকে সমৃদ্ধির পথে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছিলেন। আর ঠিক তখনই ঘাতকরা জাতির পিতাকে হত্যা করে। মূলত বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করার উদ্দেশ্য ছিলো সদ্য স্বাধীনতা প্রাপ্ত দেশটিকে হত্যা করা, স্বাধীনতাকে হত্যা করা।’ সম্পাদনা: আব্দুল্লাহ মামুন

 

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত