প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বাউফলের নুরাইনপাশার রাস্তায় হাটু সমান কাদা, চরম দুর্ভোগে স্থানীয়রা

নিজস্ব সংবাদদাতা : [২] বাউফল উপজেলার কনকদিয়া ইউনিয়নের অন্যতম সুশিক্ষিত গ্রাম নুরাইনপাশা। দীর্ঘদিন নুরাইনপাশার একটা বৃহত্তর অংশে বিদ্যুৎ না থাকলেও বর্তমান উন্নয়নমুখী সরকার, জনবান্ধব সরকার, আলোকিত সরকারের সদিচ্ছায় নুরাইনপাশা গ্রামের প্রতিটি ঘরে আলো জ্বলছে। এতে সন্তুষ্ট এলাকাবাসী।

[৩] নুরাইনপাশা এলাকাবাসীর আরেকটি দাবি উন্নয়নমূখী জনবান্ধব সরকারেরর প্রতি, কারেন্ট পাওয়ার পাশাপাশি যেন কাঁচা সড়ক পাকাও করা হয়।

[৪] সরেজমিনে দেখা গেছে, নুরাইনপাশা খেয়াঘাট থেকে মরহুম রত্তন আলী মিয়ার বাড়ি পর্যন্ত সড়কটি বৃটিশ আমলের হলেও এখন পর্যন্ত রয়েছে কাঁচা সড়কেই। এ সড়কটি কাচা হওয়ায় বর্ষাকাল আসলেই কোন ধরনের যানবাহন চলাচল করতে পারেনা। মানুষ যেতে পারে না হাটবাজারে, মসজিদে নামাজে পড়তে। ছাত্রছাত্রীরা রাস্তায় কাদার অযুহাতে স্কুলে যাওয়া প্রায় বন্ধ হয়ে যাচ্ছে।

[৫] নুরাইনপাশা গ্রামের আব্বাস উদ্দিন মিয়া বলেন, বর্তমান সরকার উন্নয়নের সরকার। দীর্ঘদিন আমাদের গ্রামে কারেন্ট ছিল না। বঙ্গবন্ধু কণ্যার সদিচ্ছায় আমরা এখন শতভাগ কারেন্টের আওতায়। আমাদের এখন আর কোন দাবি নেই, দাবি একটাই। সেটা হচ্ছে আমাদের অন্যতম প্রধান বৃটিশ আমলের রাস্তাটি যেন পাকাকরণ করা হয়। বর্ষার সিজনে হাটু সমান কাদার কারণে দুর্ভোগে পরতে হয় মসজিদের মুসল্লি, স্কুলের ছাত্রছাত্রিসহ এই রাস্তায় যাদের নিয়মিত বাধ্য হয়ে চলতে হয় তাদের।

[৬] সরেজমিনে আরো দেখা গেছে, নুরাইনপাশা খেয়াঘাট থেকে দক্ষিণ নুরাইনপাশা ও পশ্চিম নুরাইনপাশার বিভিন্ন সড়কে কাদাপানিতে এলাকাবাসীর দুর্ভোগ চরমে পৌঁছেছে।

[৭] নুরাইনপাশা গ্রামের চান মিয়া বলেন, এ রাস্তাটি পাকা করলে এলাকার মানুষের দীর্ঘদিনের আশা পূর্ণ হবে। এ রাস্তা হচ্ছে ঐতিহ্যবাহি মিয়া বাড়ির অন্যতম প্রধান রাস্তা। রাস্তাটি পাকা হলে স্থানীয়রা ভালোভাবে মিয়া বাড়ির মসজিদে নামাজ পরতে আসতে পারবে। বর্ষাকালে মসজিদে মুসল্লিরা কাদার কারণে আসতে পারে না।

[৮] এলাকার মুরুব্বি ওয়াহাব মিয়া ও সত্তার মিয়া বলেন, নুরাইনপাশা খেয়াঘাট হতে রত্তন আলী মিয়ার বাড়ি পর্যন্ত কাচা হওয়ায় এ সড়কটিতে একটু বৃষ্টি হলেই কাদা হয়ে যায়। ফলে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পরে। রাস্তাটির কোথাও হাটু সমান কাদাও লক্ষ্য করা গেছে। এতে এলাকাবাসীর ভোগান্তি চরমে পৌঁছায়। এমনকি কাদার ভয়ে অনেকে এলাকার মসজিদটিতে ঈদের নামাজ পর্যন্ত পড়তে আসেনা। আমাদের দাবি ডিজিটাল বাংলাদেশের উন্নয়নমূখি সরকার এই রাস্তাটির দিকে সুদৃষ্টি দিয়ে এলাকাবাসীকে ভয়াবহ দুর্ভোগ ও ভোগান্তি হতে রক্ষা করবে।

[৯] এদিকে নুরাইনপাশা খেয়াঘাটের দোকানদার সেলিম খান বলেন, নুরাইনপাশা খেয়াঘাট থেকে জাহাঙ্গীর চেয়ারম্যান বাড়ি পর্যন্ত সড়কটিও কাদায় ভরপুর। এ রাস্তাটি কাচা হওয়ায় স্থানীয়দের দুর্ভোগের শেষ নেই।

[১০] গ্রামের মুক্তিযোদ্ধার সন্তান ইয়াকুব ফকির বলেন, নুরাইনপাশা খেয়াঘাট থেকে দখিন নুরাইনপাশা হয়ে কুম্বোখালী পর্যন্ত পাকা করন করা অতীব জরুরি। এলাকাবাসীর দাবি, রাস্তাটি পাকা করে সরকার উন্নয়নের ধারাবাহিকতা অব্যাহত রাখবে।

[১১] এ ব্যাপারে কনকদিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান শাহিন হাওলাদার বলেন, এই রাস্তাসহ নুরাইনপাশা গ্রামের কাঁচা রাস্তাগুলো পাকাকরণ করলে ছাত্রছাত্রীরা ভালোভাবে স্কুলে যেতে পারবে। স্থানীয়দের দুর্ভোগ লাঘব হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত