প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] যেভাবে শুরু হয় আইপিএলের খেলোয়াড় নিলাম

স্পোর্টস ডেস্ক : [২] ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ-আইপিএল। ফ্র্যাঞ্চাইজি ভিত্তিক ক্রিকেট টুর্নামেন্টের মধ্যে জনপ্রিয়তার শীর্ষে যার অবস্থান। ২০০৮ সালে যাত্রা শুরু করা এ টুর্নামেন্টটি একে একে ১২টি সফল মৌসুম শেষ করেছে। যেখানে বিশ্বের বড় বড় তারকারা খেলেছেন, এখনও খেলার জন্য নিলামের দিকে তাকিয়ে থাকেন।

[৩] কাড়ি কাড়ি অর্থ, জশ খ্যাতি সবই আইপএলে এক সুতোয় গাঁথা। আইপিএলে মাঠের লড়াই শুরুর আগে খেলোয়াড়দের নিলাম ক্রিকেটে একটি নতুন এক মাত্রা যোগ করেছে। ১২ আসর শেষে সেই নিলাম পদ্ধতি নিয়ে কথা বলেছেন আইপিএলের সাবেক প্রধান ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা সুন্দর রমন।

[৪] একটি স্পোর্টস ভিত্তিক ইউটিউব চ্যানেলে তিনি জানান, এক সন্ধ্যা চা খাওয়ার আড্ডায় আইপিএলে ক্রিকেটারদের নিলাম ইস্যুটি সামনে আসে। সবকিছু ঠিক থাকলেও কে কোন দলে খেলবে বিষয়টি কীভাবে নির্ধারণ হবে তা নিয়ে আলোচনা করতে গিয়ে এমন নিলাম প্রক্রিয়ার উদ্ভাবন হয়।

[৫] সুন্দর রমন বলেন, খেলোয়াড়দের নিলাম অনেকটা সন্ধ্যায় চায়ের আড্ডার ফাঁকে ওঠে আসে। আমরা ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলো বিক্রি করে দিয়েছিলাম, আমাদের ভেন্যুগুলোও নিশ্চিত হয়েগিয়েছিল। কেবল বাকি ছিল ক্রিকেটাররা বিভিন্ন দলে কীভাবে আলাদা হবে। কে কোন দলে খেলবে।

[৬]তিনি বলেন, শুধুমাত্র রাজ্য ভিত্তিক আইকন ক্রিকেটারগুলো নিশ্চিত ছিল। যেখানে শচীন টেন্ডুলকার মুম্বাই, বীরেন্দর শেবাগ দিল্লি, সৌরভ গাঙ্গুলি কোলকাতার হয়ে চূড়ান্ত হয়। তবে মাহেন্দ্র সিং ধোনি সেভাবে কোন হোম টিমের জন্য নির্বাচিত হতে পারেনি। ওই আলোচনায় একটা চ্যালেঞ্জ ওঠে আসে, তা হলো- ফ্র্যাঞ্চাইজিরা ক্রিকেটার দলে নিতে কীভাবে আমরা প্রক্রিয়া নির্ধারণ করবো।

[৭]আইপিএলের সাবেক প্রধান ব্যবস্থাপনা কর্মকর্তা বলেন, ফ্র্যাঞ্চাইজিগুলোর মধ্যে একটি যাদের নাম এখন আমি মনে করতে পারছি না। তারা বললো, আমরা নিলাম করছি না কেন? দুই মিনিট আলোচনা শেষে আমি বললাম, এটা দারুণ একটা আইডিয়া। সবার মধ্যে বেশ ভালো আগ্রহ তৈরি করবে এমন কিছু। আর এভাবেই সিদ্ধান্ত হয় খেলোয়াড়দের নিলাম।

[৮]২০০৮ সালে শুরু করার পর ইতোমধ্যে ১২টি সফল মৌসুম শেষ করেছে আইপিএল। চলতি বছর মার্চে ১৩তম আসর মাঠে গড়ানোর কথা থাকলেও করোনাভাইরাস প্রভাবে এখনো ঝুলে রয়েছে জমজমাট এই ফ্র্যাঞ্চাইজি ক্রিকেট টুর্নামেন্টটি।

সর্বাধিক পঠিত