প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] টাকা ও স্বর্ণের জন্য স্ত্রীকে পুড়িয়ে মারল স্বামী-সন্তানরা

ডেস্ক রিপোর্ট : [২] কুমিল্লার তিতাস উপজেলায় ৫ লাখ টাকা ও ১১ ভরি স্বর্ণের হিসাব দিতে না পারায় প্রবাসী স্বামী, মেয়ে ও মেয়ের জামাতা মিলে ছেনোয়ারা (৫০) নামে এক নারীকে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মারার অভিযোগ উঠেছে।

[৩] উপজেলার মজিদপুর গ্রামের কান্দাপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত বৃদ্ধা ছেনোয়ারা ওই গ্রামের কুয়েত প্রবাসী আব্দুল খালেকের স্ত্রী।

[৪] এলাকাবাসী সূত্রে জানা যায়, নিহতের স্বামী আব্দুল খালেক গত দুই মাস আগে দেশে আসেন। এরপর বিদেশ থেকে পাঠানো টাকা ও স্বর্ণের হিসাব চায়। তখন স্ত্রী ছেনোয়ারা তার স্বামীর প্রশ্নের জবাবে বলেন, তার মেয়ে রেহেনা ও তার স্বামী জসিমের নিকট ৫ লাখ টাকা এবং ১১ ভরি স্বর্ণ জমা রেখেছেন তিনি।

[৫] এভাবে বেশ কিছুদিন অতিবাহিত হওয়ার পর শনিবার নিহতের স্বামী আব্দুল খালেক টাকা ও স্বর্ণ আনতে তার মেয়ের বাড়ি যান। তখন মেয়ে রেহেনা তার বাবাকে জানায়, মা ছেনোয়ারা তাদের কাছে কোনো টাকা এবং স্বর্ণ জমা দেয়নি।

[৬] বরং তার মায়ের চলাফেরা ভালো না এ কথা জানালে নিহতের স্বামী খালেক এতে ক্ষিপ্ত হয়ে মেয়ের বাড়ি থেকে নিজের বাড়িতে চলে আসেন।

[৭] স্থানীয়রা আরও জানায়, নিহতের স্বামী আব্দুল খালেক বাড়িতে এসে স্ত্রী ছেনোয়ারাকে টাকা ও স্বর্ণের জন্য চাপ দিতে থাকে। একপর্যায়ে টাকা ও স্বর্ণের জন্য তার স্ত্রী ছেনোয়ারাকে হাত-পা বেঁধে ভয়ও দেখান তিনি। এ সময় আগুন দিয়ে পুড়িয়ে মেরে ফেলারও হুমকি দেয়া হয়।

[৮] এরপর শুক্রবার রাত ১২টার দিকে স্বামী খালেক, মেয়ে রেহেনা ও জামাতা জসিমের উপস্থিতে ছেনোয়ারা অগ্নিদগ্ধ হয়। অগ্নিদগ্ধের এই ছবি ভিডিও কল দিয়ে কুয়েত প্রবাসী ছোট ভাইকেও দেখায় মেয়ে রেহানা।

[৯] উল্লেখ্য, গত শনিবার রাতে অগ্নিদগ্ধ হয় ছেনোয়ারা ৫ দিন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্নইউনিটে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় বৃহস্পতিবার রাতে তার মৃত্যু হয়। লাশ বাড়িতে এনেছে এমন খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে আসে।

[১০] এ বিষয়ে ওসি (তদন্ত) শহিদুল ইসলাম বলেন, আমরা খবর পেয়ে লাশ থানায় নিয়ে এসেছি এবং ময়নাতদন্তের রিপোর্ট আসলে পরবর্তী পদক্ষেপ নেয়া হবে।

সর্বাধিক পঠিত