প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] করোনা: মালয়েশিয়ায় খুলছে বন্ধ থাকা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান

বাংলাদেশ প্রতিদিন : [২] প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের প্রভাব ঠেকাতে গত ১৮ মার্চ থেকে সমগ্র মালয়েশিয়া জুড়ে চলছে টানা লকডাউন তৃতীয় মেয়াদে লকডাউনের মেয়াদ বাড়ানোর পর যা শেষ হওয়ার কথা ছিল আজ বুধবার (২৯ এপ্রিল)। কিন্তু গত ২৩ এপ্রিল পবিত্র মাহে রমজান উপলক্ষে দেশবাসীর উদ্যেশে দেওয়া ভাষণে তা আরেক দফা বাড়িয়ে আগামী ১২ মে বর্ধিত করেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী তানসেরী মুহিউদ্দিন ইয়াসিন ।

[৩] টানা একমাসের অধিক চলা লকডাউনে দেশটির সকল ব্যবস্যা প্রতিষ্ঠান এখন বন্ধ। ফলে জনজীবন এখন অনেকটা হাঁসফাঁস অবস্থা। এর মাঝেই মঙ্গলবার (২৮ এপ্রিল) দেশটির আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও শিল্পমন্ত্রী দাতুক সেরি আজমিন আলী দিলেন কিছুটা স্বস্তির খবর। দেশটিতে করোনাভাইরাস মোকাবিলায় মালয়েশিয়ায় চলমান নিয়ন্ত্রণ আদেশ মুভমেন্ট কন্ট্রোল অর্ডার (এমসিও) কারণে এক মাসের বেশি সময় ধরে বন্ধ থাকা বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলার অনুমতি পাচ্ছে বুধবার (২৯ এপ্রিল) থেকে।

[৪] আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও শিল্পমন্ত্রী দাতুক সেরি আজমিন আলী বলেন, বুধবার (২৯ এপ্রিল) থেকে চলাচল নিয়ন্ত্রণ আদেশের (এমসিও) এক থেকে তিন পর্যায়ে অর্ধক্ষমতাতে পরিচালনা করার অনুমতি দেওয়া অর্থনৈতিক ক্ষেত্রগুলিকে পুরোপুরি ব্যবসা করার অনুমতি দেয়া হয়েছে। এই সংস্থাগুলি অবশ্যই তাদের নিজ নিজ খাতে প্রতিষ্ঠিত স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং পদ্ধতি (এসওপি) মেনে চলতে হবে এবং যারা এটি করতে ব্যর্থ হবে তাদের বিরুদ্ধে তাত্ক্ষণিক আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
তিনি আরও বলেন, যে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলো ইতিমধ্যে অনুমোদিত হয়েছে তাদের আবেদন করার দরকার নেই। যদিও সরকার কিছুটা শিথিলতার অনুমতি দিয়েছে, ব্যবসায়ীদের সামাজিক দূরত্বের নিয়ম এবং স্বাস্থ্য নিয়ন্ত্রণের নির্দেশিকা অনুসরণ করে এখনও তা মেনে চলতে হবে ।

[৫] আজমিনের মতে, আলোচনার পরেই অর্থনৈতিক কাউন্সিল (ইএসি) গত সোমবার (২৭ এপ্রিল) সকালে প্রধানমন্ত্রীর সাথে অর্থনৈতিক সঙ্কট ও সম্ভাব্য প্রতিকার নিয়ে আলোচনা করেছে।

তিনি বলেন, জাতীয় সুরক্ষা কাউন্সিলের (এনএসসি) বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী এবং মুখ্যমন্ত্রীরা অন্তর্ভুক্ত ছিলেন, যে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রগুলিকে যে কোনও সময় সীমাবদ্ধতা ছাড়াই পুরো ক্ষমতার সাথে পরিচালনার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। গত সোমবার (২৭ এপ্রিল) ইএসি সর্বশেষ অর্থনৈতিক ও আর্থিক পরিস্থিতির পাশাপাশি সুস্থতার মূল্যায়ন করার জন্য আহ্বান করার পরে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার ।

[৬] আজমিন বলেন, বৈঠকে সামগ্রিক অর্থনৈতিক সরবরাহ চেইন “পুনরায় চালু ও পুনরুদ্ধার” করার উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করা হয়েছে যা ব্যবসায়ের “পুরোপুরি পরিচালনা করতে, ক্ষতিগ্রস্থ স্টকগুলি পুনর্নির্মাণ করতে, পাশাপাশি গ্রাহকদের পরিষেবা ও পণ্য সরবরাহের দক্ষতা অর্জন” করতে সহায়তা করবে।

[৭] এই উদ্যোগের মাধ্যমে সরকার দেশী-বিদেশী উভয় দাবি পূরণে বিশেষত ক্ষুদ্র-মাঝারি উদ্যোগের (এসএমই) উপর পণ্য ও পরিষেবাদি সরবরাহের শৃঙ্খলা পুনঃজীবিত করার প্রত্যাশা করেছে। যার কারণে মালয়েশিয়া অর্থনৈতিক অবস্থা মজবুত হবে।

[৮] উল্লেখ্য, মালয়েশিয়ায় করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে ব্যাপক সফলতা অর্জন করেছে ইতিমধ্যেই সেদেশে সুস্থতার হার ৬০ শতাংশ ছাড়িয়ে গেছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত