প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১]টাঙ্গাইল কান্দাপাড়া পতিতালয়ে ছিটানো হলো জীবণুনাশক

অলক কুমার দাস, টাঙ্গাইল : [২] করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব প্রতিরোধে টাঙ্গাইল কান্দা পাড়া পতিতালয়ে জীবণুনাশক স্প্রে করেছে টাঙ্গাইল ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স। বৃহস্পতিবার (২৬ মার্চ) বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত এই কার্যক্রম চালায় ফায়ার সার্ভিসের স্বেচ্ছাসেবক ও কর্মীরা।

[৩] জানা যায়, টাঙ্গাইল ফায়ার সার্ভিসের ৮ জন স্বেচ্ছাসেবী ও কর্মী দুটি গ্রুপে ভাগ হয়ে পুরো পতিতালয়ের প্রতিটি বাড়ির প্রত্যেক ঘরে ঘরে ব্লিচিং পাউডার মিশ্রিত পানি স্প্রে করেন। এসময় তারা পতিতালয়ের প্রতিটি রাস্তাতেও স্প্রে করেন।

[৪] যৌনকর্মীরা তাদের অভিব্যক্তি প্রকাশ করে বলেন, আমাদের বাহিরে যাওয়া বন্ধ। তাই আমরা কোন প্রকার জীবাণুনাশক কিনতেও পারি না। আর তা ছাড়া সবার এই জীবাণুনাশক কেনার মতো সামর্থ্যও নাই। আমরা এখানে অনেক মানুষ একসাথে থাকি। তাই এখানে অন্তত ১/২ দিন পর পর এই জীবণুনাশক স্প্রে করে দিলে সবাই ভালো থাকতে পারবো।

[৫] কয়েকজন বাড়িওয়ালা বলেন, করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে এটা খুবই কার্যকরী উপায়। প্রতিনিয়ত এই স্প্রে করলে আমরা সবাই করোনা ভাইরাসের হাত থেকে রক্ষা পাবো।

[৬] এ বিষয়ে টাঙ্গাইল ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের উপ-সহকারী পরিচালক খন্দকার আব্দুল জলিল বলেন, মানবাধিকার কর্মী অলক কুমার দাস বিষয়টি আমার নজরে আনেন। আমি তাৎক্ষনিক ৮ জন স্বেচ্ছাসেবী ও ফায়ার কর্মী দিয়ে দুইটি গ্রুপ তৈরি করে কান্দাপাড়া পতিতালয়ে জীবাণুনাশক স্প্রে করতে পাঠাই। তারা পুরো পতিতালয়ের প্রতিটি বাড়ির প্রতিটি ঘরে জীবাণুনাশক স্প্রে করেন। পরে তারা টাঙ্গাইল সদর থানার ভিতরে প্রতিটি কক্ষ, গারদখানা, বাথরুম ও বাহিরে বসার গোলঘরে জীবাণুনাশক স্প্রে করেন। এসময় তিনি আরো বলেন, পর্যাপ্ত জীবাণুনাশক উপকরণ প্রয়োজন।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত