প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] মানিকগঞ্জে অষ্টম শ্রেণীর ছাত্রীকে অপহরণ করে ধর্ষণের অভিযোগে আদালতে মামলা

সোহেল হোসাইন, মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি : [২] মানিকগঞ্জের শিবালয়ের অষ্টম শ্রেণীর এক ছাত্রীকে অপহরণ করে নারায়গঞ্জে নিয়ে ঘরে আটকে রেখে ধর্ষণের অভিযোগে এক যুবকের বিুরদ্ধে মামলা হয়েছে। পুলিশ মামলা না নেয়ায়, (বৃহস্পতিবার) দুপুরে মানিকগঞ্জ চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেটের আদালতে এই মামললা করেন নির্যাতিতা ওই ছাত্রীর মা।

[৩] মেয়ে জানায়, রবিাবর (৮ মার্চ) সকাল সাড়ে নয়টার দিকে বাড়ি থেকে স্কুলে যাওয়ার পথে তাকে ভয় দেখিয়ে একটি সিনজিতে উঠায় ওই এলাকার এক যুবক। ওই যুবকের সাথে একজন বয়স্ক মানুষ ছিল। যেখানে নিয়ে যায় সেখানেই চুপচাপ তাদের সাথে যেতে হবে। অন্যথায় মেরে ফেলার হুমকী দেয় তারা। প্রাণভয়ে সে তাদের সাথে বিভিন্নভাবে নায়াণগঞ্জের রুপগঞ্জে যায়। সেখানে একটি ওয়াল করা টিনিসেড ঘরে আটকে রেখে ধর্ষণ করতে থাকে। গতকাল বুধবার (১১ মার্চ) বিকেল ৪টার দিকে ওই মেয়ে ওই এলাকার এক ব্যক্তির মোবাইল থেকে তার বাবার মোবাইল নম্বরে ফোন দিয়ে এসব ঘটনা খুলে বলে।

[৪] মেয়ের কাছ থেকে খবর পেয়ে বাবাসহ কয়েকজন সেখানে যেয়ে বুধবার রাতেই তাকে উদ্ধার এবং ওই ছেলেকে হাতে নাতে ধরে ফেলে। এরপর তাদের দুজনসহ তারা নিজ গ্রামে ফিরে আসে। মেয়েকে অসুস্থ অবস্থায় মানিকগঞ্জ জেলা হাসপাতালের গাইনি ওয়ার্ডে ভর্তি করা হয়। তার শারীরীক পরীক্ষা করা হয়েছে বলে জানান হাসপাতালের স্টাফ নার্স জান্নাত আরা শিমুল।

[৫] ওই মেয়ের মা জানান, তার মেয়ে স্কুলে যাওয়ার পর বাড়ি ফিরে না আসায় তার পরিবারের লোকজন নিখোঁজের পর দিন সোমবার (৯ মার্চ) সকালে শিবালয় থানায় জিডি করতে যান। কিন্তু থানার পুলিশরা জিডি নেননি। বিকেলে তার মেয়ে তাকে অপহরণ ও ধর্ষণের ঘটনা খুলে জানানোর পর থানায় মামলা করতে গেলে তারা মামলা নেননি। বরং ধর্ষককে হাতে নাতে আটক করলেও অজ্ঞাত কারণে পুলিশ যেয়ে ওই ধর্ষককে তাদের কাছ থেকে নিয়ে পরিবারের কাছে তুলে দেন। থানা পুলিশের কাছে আইনগত সহায়তা না পেয়ে তারা বাধ্য হয়ে আদালতে মামলা করেছেন বলে জানান তিনি।

[৬] এ ব্যাপারে শিবালয় থানার অফিসার-ইন-চার্জ মো. মজিানরি রহমান বলেন, ওই মেয়ে এবং ছেলে দুজনেই অপ্রাপ্তবয়স্ক। তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক ছিল। এই কারণে নিজেদের ইচ্ছায় তারা দুজনে পালিয়ে গিয়েছিল। সেখানে চাকুরীর সন্ধানে একটি কারখানায় যায়। কারখানায় নিজেদের স্বামী স্ত্রী পরিচয় দিলে কারখানা কর্তৃপক্ষের সন্দে হয়।

[৭] পরে তাদের দুজনকে আটকে রেখে মেয়ের পরিবারকে খবর দিলে মেয়ের বাবাসহ কয়েকজনে সেখানে গিয়ে তাদের নিজবাড়িতে নিয়ে আসে। মেয়ের পরিবারের লোকজন ওই ছেলেকে মারধর করছে-এমন খবরের ভিত্তিতে পুলিশ সেখানে গিয়ে ওই ছেলেকে উদ্ধার করে তার পরিবারের কাছে তুলে দেয়। সম্পাদনা : রাকিবুল

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত