প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] দিল্লিতে সহিংসতায় আহত সাতজনের মৃত্যু, নিহতের সংখ্যা বেড়ে ৩৪

রাশিদ রিয়াজ : [২] ভারতের দিল্লিতে নজিরবিহীন দাঙ্গায় “শান্তি ও সৌভ্রাতৃত্ব” ফেরানোর আবেদন জানিয়েছে দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, এবং জানান, দিল্লির বিভিন্ন জায়গার পরিস্থিতি পর্যালোচনা করেছেন তিনি। এনডিটিভি

[২] দিল্লির সংঘর্ষ কবলিত এলাকায় জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভালের যাওয়ার কয়েকঘন্টা পরেই, বুধবার সন্ধ্যায় উত্তরপূর্ব দিল্লির ভজনপুরায় নতুন করে হিংসার খবর পাওয়া গিয়েছে, রোববার থেকে নাগরিকত্ব আইন নিয়ে হিংসার ঘটনায় আহতের সংখ্যা ২০০ এর বেশি।
[৩] টুইটে প্রধানমন্ত্রী মোদী লেখেন, “আমি আমার দিল্লির ভাই বোনদের আবেদন করব, তাঁরা যেন শান্তি ও সৌভ্রাতৃত্ব বজায় রাখেন”। দিল্লি পুলিশের তরফে বলা হয়েছে, সংঘর্ষে ঘটনা এখনও পর্যন্ত ১৮টি এফআইআর দায়ের হয়েছে এবং ১০৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে, পাশাপাশি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বলেও জানানো হয়।

[৪] বিদ্বেষ এবং উস্কানিমূলক মন্তব্য করা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে দিল্লি পুলিশকে এফআইআর করতে বলল ক্ষুব্ধ দিল্লি হাইকোর্ট। অনুরাগ ঠাকুর, কপিল মিশ্র সহ চারজন বিজেপি নেতার মন্তব্যের পর এই পর্যবেক্ষণ আদালতের। আদালত কক্ষেই কপিল মিশ্রের মন্তব্যের ভিডিও চালানো হয়, বিচারপতি এস মুরলিধর বলেন, “আদালত আরেকটা ১৯৮৪ হিংসার ঘটনা হতে দিতে দেবেন না”। ভিডিওটি দেখে এবং “ব্যবস্থা” নেওয়ার জন্য দিল্লি পুলিশ কমিশনার অমূল্য পট্টনায়েককে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত সময় দেওয়া হয়েছে।

[৫] জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা অজিত দোভালকে রাজধানীতে শান্তি ফেরানোর দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, এদিন সন্ধ্যায় তিনি দ্বিতীয়বারের জন্য সংঘর্ষ কবলিত এলাকায় যান। জাফরাবাদে একটি পুলিশ কনভয়ের সঙ্গে যাচ্ছিলেন তিনি, সেখানেই অমিজ দোভাল বলেন, “ইনশাল্লা, এখানে শান্তি ফিরবে”। তার কিছুক্ষণ আগেই, এক কিশোরী তাঁকে আটকে আবেগপ্রবণভাবে সাহায্য চায়। ওই কিশোরীকে জাতীয় নিরপত্তা উপদেষ্টা বলেন, “আমার কথায় ভরসা রাখো”। দিল্লি পুলিশে যেখানে অমিত শাহের মন্ত্রকের অধীন, সেখানে অজিত দোভালকে দায়িত্ব দেওয়া নিয়ে ভ্রু কুঁচকেছে অনেকের।

[৬] বুধবার শান্তির আহ্বান জানিয়েছেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালও। বিধানসভায় ভাষণে, তিনি বলেন, হিন্দু বা মুসলিম কেউ যেন সংঘর্ষ থেকে ফায়দা তুলতে না পারে। তাঁর কথায়, “এখন দিল্লিতে দুটি বিকল্প রয়েছে, মানুষকে এক হয়ে পরিস্থিতির উন্নতি ঘটাতে হবে, নাহলে তারা একে অন্যকে আক্রমণ এবং মারবে। মৃতদের স্তুপের ওপরে আধুনিক দিল্লি তৈরি সম্ভব নয়। ঘৃণা, সংঘর্ষ, ঘরবাড়ি জ্বালানোর রাজনীতি বরদাস্ত করা যাবে না”। সেনা নামানোর জল্পনাও খারিজ করে দিয়েছে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক, মুখ্যমন্ত্রীর তোপ, বহিরাগত এবং রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ত্বরা সংঘর্ষের জন্য দায়ী।

[৭] অমিত শাহের বিরুদ্ধে কড়া আক্রমণ শানিয়েছেন কংগ্রেস সভানেত্রী সোনিয়া গান্ধী, দায়ভার নিয়ে তার পদত্যাগের দাবি জানিয়েছেন কংগ্রেস সভানেত্রী। মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের বিরুদ্ধেও তোপ দাগেন কংগ্রেস সভানেত্রী, রবিবার পরিস্থিতি উত্তপ্ত হওয়ার পরেও দুই সরকারের বিরুদ্ধেই কোনও পদক্ষেপ না করার অভিযোগ তুলে তোপ দাগেন সোনিয়া গান্ধী। বিজেপির বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী বঢ়রাও, দলীয় নেতাদের বিদ্বেষমূলক মন্তব্যে নীরব থাকার অভিযোগ তুলে তাকে “লজ্জাজনক” আখ্যা দিয়েছেন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী বঢ়রা। “গোয়েন্দা ব্যর্থতার” কারণেই সংঘর্ষ ব্যাপক আকার ধারণ করেছে বলে মন্তব্য করেছেন দক্ষিণী সুপাস্টার রজনীকান্ত।

[৮] বুধবার সকালে নতুন করে সংঘর্ষ ছড়িয়ে পড়ে, অগ্নিসংযোগ, পাথর ছোঁড়ার ঘটনা ঘটে। ভজনপুরায় একটি ব্যাটারির দোকানে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়, এবং পুড়ে যাওয়া ব্যাটারি রাস্তায় ফেলে দেওয়া হয়, বলে জানিয়েছে সংবাদসংস্থা পিটিআই। খাজৌরি খাস এবং ভজনপুরার ওই এলাকায় ফ্ল্যাগমার্চ হয়। ১৪৪ ধারায় উত্তরপূর্ব দিল্লিতে বড় জমায়েতে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে, তবে মনে হচ্ছে, তার প্রভাব কম রয়েছে। “দেখামাত্রই গুলি” করার আদেশ খারিজ করেছে পুলিশ।

[৯] বুধবার মৃতদের মধ্যে অঙ্কিত শর্মা বলে একজন আইবি আধিকারিকের দেহ পাওয়া গিয়েছে নর্দমার মধ্যে। তিনি নিরাপত্তা সহকারী হিসেবে কাজ করতেন। চাঁদবাগ সেতু সংলগ্ন এলাকায় তাঁর ওপর হামলা হয় এবং পিটিয়ে মারা হয় বলে জানা গিয়েছে। আইবি আধিকারিকের দেহ উদ্ধার করেন তার বাবা রবীন্দ্র শর্মা, তিনিও একজন আইবি আধিকারিক, আম আদমি পার্টির বিরুদ্ধে ছেলেকে খুনের অভিযোগ তোলেন তিনি।

[১০] এই রক্তস্রোতের এবং মৃত্যুমিছিলের আবহে, সৌভ্রাতৃত্ব এবং ভিন্ন ধর্ম ও সম্প্রদায়ের মানুষের মধ্যে ঘৃণার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানোয় নতুন করে আশার আলো দেখা গিয়েছে। জাফরাবাদ ও মৌজপুরের মধ্যবর্তী রাস্তায়, একটি মহল্লা আপাতত স্বর্গীয় বলে মনে হয়েছে। সংঘর্ষের ফলে আশপাশের বিভিন্ন জায়গা রণক্ষেত্রের চেহারা নিয়েছে, দ্বিতীয়দিনেও পরীক্ষা স্থগিত করেছে সিবিএসই বোর্ড। দশম শ্রেণীর দুটি এবং দ্বাদশের তিনটি পরীক্ষা পড়ুয়াদের আবেদনের পর স্থগিত করা হয়।

[১১] সরকারি সূত্র জানিয়েছে, এই সংঘর্ষ “সংগঠিত করা হয়েছে”, যেহেতু এই সময় ভারতে এসেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। সংঘর্ষ নিয়ে জিজ্ঞাসা করা হলে, মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, “এটা ভারতের ব্যাপার, কীভাবে মোকাবিলা করবে”। তিনি বলেছেন, ভারতে ধর্মীয় স্বাধীনতা তৈরির প্রধানমন্ত্রী মোদির চেষ্টার প্রশংসা করে আমেরিকা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত