প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

অধ্যাপক আব্দুল্লাহ আবু সায়ীদের কথায় কোন সমস্যা নেই, তাদের সাথে একমত নই

১। যারা বলছেন অধ্যাপক আব্দুল্লাহ আবু সায়ীদের কথায় কোন সমস্যা নেই, তাদের সাথে একমত নই। বয়স্যদের সাথে আড্ডায় কথা বলা আর সভা-সমাবেশে কথা বলার পার্থক্য তিনি নিশ্চয়ই জানেন। আমাদের প্রবাসী শ্রমিকদের অনেকেই নিরক্ষর। আমি এমিরেটস বা কাতার এয়ারলাইনস হয়ে দেশে এলে প্রতিবারই অনেকের ফরম পূরণ করে দেই। তাদের সবাই প্লেন চলার এটিকেট যথাযথ জানেন, এমন নয়। সেই এটিকেট অনেক শিক্ষিত ব্যক্তিও জানেন, হলফ করে বলা যাবে না। যে অতিরঞ্জন তিনি করেছেন, যে নাটকীয়তা করেছেন, তার মধ্যে তাচ্ছিল্য পরিস্কার। তাঁর পাশে বসে বা সামনে বসে যারা হেসেছেন, তাদের তাচ্ছিল্যও প্রকট। এটা না দেখা এক ধরনের আরোপিত অস্বীকার বলেই মনে হয়। সব বিষয় নিয়ে প্রকাশ্যে পরিহাস করা যায় না, এটা তাঁর না জানার কথা নয়। একজন কৃষক কাছা মেরে লুঙ্গি পরে কীভাবে ভাত খান, সেটা দেখানো নাটকের চরিত্র ফুটিয়ে তোলার জন্য জরুরি, কিন্তু সভা-সমাবেশে সেই ভাত খাওয়ার নাটকীয় বর্ণ্না দেয়া খুব সুরুচির পরিচয় দেয় না, মানবিকতারও নয়। তিনি মানুষ হাসান, তবে কমেডি শো আর আলোচনা সভার মধ্যেও পার্থক্য আছে। স্ট্যাটাসের মধ্য দিয়ে তাঁর এই বয়স্যপরিবৃত ধরণের পরিহাসের প্রতিবাদ করছি। আমি বারে বারে জনপরিসরের কথা বলছি, কারণ কেউ ব্যক্তিগত আড্ডায় কী বলেন সেটা রেকর্ড করে তার বিচার করতে বসা সম্ভব না।

২। এই একটিমাত্র বক্তব্যের সূত্র ধরে অধ্যাপক সায়ীদের যত ধরণের সমালোচনা হচ্ছে, আমি তার সাথেও একমত নই। তিনি শ্রেণী সংগ্রামে রত কোন ইন্টেলেকচুয়াল নন। তবে দেশের ছেলেমেয়েদের বই পড়ানোর চেষ্টা করছেন বহু বছর ধরে, সেটার এক ধরনের গুরুত্ত্ব আছে। তাঁর পড়ানোর ধরণ সম্পর্কে আমার পর্যবেক্ষণ হল (ভুল হলে আগাম ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি), কোন নির্দিষ্ট লক্ষ্য নিয়ে পড়ান কি না জানি না, তবে কোন বিষয়ে গভীরভাবে জানার জন্য যে পূর্বাপর ধারাবাহিকতা দরকার, সেটা অনুপস্থিত। বরং বিভিন্ন বই রয়েছে, সেগুলো পড়ার সুযোগ করে দেন। ছেলেমেয়েরা কিছু বই পড়ে সারাদেশে তাঁর পাঠানো ভ্রাম্যমান পাঠাগারের সাহায্যে, এর গুরুত্ত্ব চট করে খারিজ করে দেবার মত নয়। কাজেই তাঁর প্রবাসী শ্রমিক সংক্রান্ত মন্তব্যটুকুর সমালোচনা করা যেতেই পারে, কিন্তু তার অবদান্টুকুও যে ফেলে দেবার মত নয়, সেটুকুও মাথায় রাখি যেনো। সেই কাজটি আর কেউ করেননি।

৩। অধ্যাপক সায়ীদের রাজনৈতিক অবস্থান মাথায় আছে বলেই বলি, তিনি তাঁর মত করে করছেন, শ্রেণী-সচেতনতা তৈরির জন্য নিবেদিত যারা, তাদের পাঠচক্র কোথায়? হোক ছোট ছোট, কিন্তু পাড়ায়-পাড়ায়, স্কুলে-কলেজে-বিশ্ববিদ্যালয়ে শ্রেণীচেতনা তৈরির যে পাঠচক্রগুলো ছিলো, সে’সব কোথায় হারালো? আর হারালো বলেই উদ্দেশ্যহীনতার রাজনৈতিক পাঠচক্র বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রের কর্ণধারের কাছ থেকে শ্রেণীচেতনা আশা করা হচ্ছে এবং তাঁর বিচ্যূতি দেখে গেল গেল রব তুলে আক্রমণ করা হচ্ছে। বলি কী, ওই পাঠচক্রগুলো ফিরিয়ে আনুন। শ্রেণীচেতনা সেখানে তৈরি হবে। অধ্যাপক আব্দুল্লাহ আবু সায়ীদের কাছে এতো প্রত্যাশা কেনো? তিনি কি বলেছেন, তিনি শ্রেণী সচেতনতা শিক্ষা দেবার ক্লাস খুলেছেন? না। বরং তিনি রাজনীতি বিষয়ে নীরব এক পাঠচক্র খুলেছেন। রাজনীতি বিষয়ে নীরবতা যে রাজনীতিহীনতা তা কে বললো? সেও এক রাজনীতি। সেই রাজনীতি বুঝে আপনি আপনার পাঠচক্র কেমন হবে সেটা প্রস্তুত করতে তৈরি হোন। অধ্যাপক সায়ীদকে দেবতা বা দানব কোনটাই বানানোর দরকার হবে না; সেই সময়ও বা কোথায় তখন?

//অধ্যাপক আবদুল্লাহ আবু সায়ীদ বিষয়ে আমার সিকিলেবুনিংড়ানি//  কাবেরী গায়েনের ফেইসবুক থেকে নেয়া

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত