প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রোহিঙ্গাদের প্রত্যাবর্তনে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহযোগিতা চাইলেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম

আসাদুজ্জামান সম্রাট : বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে ফিরিয়ে নিতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সহযোগিতা চেয়েছেন গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম। তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সাথে মিয়ানমার সরকার এবং বাংলাদেশের একাধিক সভায় রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। কিন্তু দুর্ভাগ্যজনকভাবে এখনও একজন নাগরিককেও মিয়ানমার ফিরিয়ে নেয়নি। আমি আশা করি আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় আমাদের পাশে দাড়াবে। একটি দেশের সভ্যতা ধ্বংস হয়ে যেতে পারে না। একটি নৃগোষ্ঠীকে নিধন করার জন্য এই আধুনিক বিশ্বে গণহত্যা চলমান থাকতে পারে না।

মন্ত্রী সোমবার কেনিয়ার রাজধানী নাইরোবিতে অনুষ্ঠিত ইউএন-হ্যাবিটাট এসেম্বলীর প্রথম অধিবেশনের একটি সেশনে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য প্রদানকালে একথা বলেন। গৃহায়ন ও গণপ‚র্ত মন্ত্রী রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে বাংলাদেশের অবস্থান এবং জাতিসংঘে দেয়া প্রধানমন্ত্রীর পাঁচ দফা তুলে ধরেন।

এর আগে গৃহায়ন ও গণপ‚র্ত মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম ইউএন-হ্যাবিটাট এসেম্বলীর উদ্বোধনী অধিবেশনে যোগদান করেন। উক্ত অধিবেশন আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করেন কেনিয়ার প্রেসিডেন্ট উহুরু কেনিয়াত্তা। কেনিয়ার রাজধানী নাইরোবীতে ২৭ মে থেকে ৩১ মে ২০১৯ পর্যন্ত পাঁচ দিনব্যাপী ইউএন-হ্যাবিটাট এসেম্বলীর প্রথম অধিবেশন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এতে বাংলাদেশসহ জাতিসংঘের ১৯৩টি সদস্য রাষ্ট্রের সরকারি, বেসরকারি সংস্থা ও সিভিল সোসাইটির প্রতিনিধিগণ অংশগ্রহণ করছেন। গৃহায়ন ও গণপ‚র্ত মন্ত্রী বাংলাদেশ প্রতিনিধিদলের নেতৃত্ব দিচ্ছেন।

শ ম রেজাউল করিম বলেন, ১৯৭১ সালে পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর বর্বর গণহত্যার কথা বাংলাদেশ ভুলে যায়নি। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ১৯৭১ সালের সেই দিনগুলির কথা সব সময় স্মরণ করেন। তাই যখন মিয়ানমার সরকার ও সেনাবাহিনী রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর উপর বর্বোরোচিত গণহত্যা শুরু করল, তখন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মানবিক অনুভ‚তি থেকে সীমান্ত খুলে দিলেন এবং বাংলাদেশের অভ্যন্তরে রোহিঙ্গাদের প্রবেশ করতে দিলেন। যদি আমরা সীমান্ত না খুলে দিতাম অধিকাংশ রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠী নির্মম হত্যাযজ্ঞের শিকার হতো।

গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রী বলেন, শেখ হাসিনা একজন রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে, জাতির পিতার কন্যা হিসেবে তাঁর নিজস্ব অনুভ‚তি থেকে রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীকে শরণার্থী হিসেবে বাংলাদেশে প্রবেশের অনুমতি দিয়েছেন। তখন থেকে রোহিঙ্গাদের জন্য আমরা খাদ্য, আশ্রয়, স্বাস্থ্য সুবিধাসহ অন্যান্য সকল সুবিধা দিয়ে আসছি। কিন্তু সীমিত সম্পদ ও সীমিত সাধ্যের কারণে এটা বাংলাদেশের জন্য কঠিন হয়ে যাচ্ছে। তা সত্তে¡ও আমরা মিয়ানমারের শরণার্থী জনসাধারণের জন্য স্বাস্থ্য, পুষ্টি, আশ্রয়, স্যানিটেশনসহ অন্যান্য সুবিধা দিয়ে যাচ্ছি। রোহিঙ্গা সমস্যায় আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থা বিভিন্ন উপলক্ষ্যে এগিয়ে এসেছে, তাদের সহানুভ‚তি প্রকাশ করেছে। মাঝে মাঝে তারা কিছু সহযোগিতার হাত বাড়িয়েছে, কিন্তু তা পযাপ্ত নয়।

তিনি বলেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানের জন্য ‘৫ দফা সমাধান’ প্রস্তাব উপস্থাপন করেছিলেন, যেটি ছিলো বাংলাদেশের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ সুপারিশমালা। মিয়ানমার অবিলম্বে শর্তহীনভাবে চিরদিনের জন্য রাখাইন রাজ্যে সহিংসতা ও নৃগোষ্ঠীর নিধন বন্ধ করা, জাতিসংঘ মহাসচিব অবিলম্বে মিয়ানমারে সত্য-উদঘাটন মিশন পাঠানো, ধর্ম, গোষ্ঠী নির্বিশেষে মিয়ানমারের সকল নাগরিকের সুরক্ষা দেয়া এবং এজন্য জাতিসংঘের তত্ত্বাবধানে মিয়ানমারের অভ্যন্তরে ‘নিরাপদ অঞ্চল’ গড়ে তোলা, বাংলাদেশে অবস্থানরত সকল বলপ‚র্বক বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গাদের মিয়ানমারে তাদের বাড়িঘরে টেকসই প্রত্যাবর্তন নিশ্চিত করা এবং কফি আনান কমিশনের সুপারিশগুলো শর্তহীনভাবে অবিলম্বে সম্প‚র্ণভাবে বাস্তবায়ন করা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ