প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ওআইসির সভায় সন্ত্রাস প্রতিরোধের আহ্বান ভূমিমন্ত্রীর

ডেস্ক রিপোর্ট : বিশ্বব্যাপী সন্ত্রাস প্রতিরোধের আহ্বান জানিয়েছেন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী। তুরস্কে শুক্রবার ইসলামিক সম্মেলন সংস্থার (ওআইসি) পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের নির্বাহী কমিটির জরুরি সভায় বাংলাদেশের পক্ষে অংশ নিয়ে তিনি এ আহ্বান জানান। নিউজিল্যান্ডের ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে সন্ত্রাসী হামলার বিষয়ে অনুষ্ঠিত এ সভায় ভূমিমন্ত্রী সামাজিক, সাংস্কৃতিক, শিক্ষা এবং আইনি মাধ্যমে ইসলাম-বিদ্বেষ ও ইসলাম-ভীতির বিরুদ্ধে সম্মিলিত প্রতিরোধ গড়ে তোলারও আহ্বান জানান।

ওআইসির মহাসচিব ড. ইউসেফ বিন আহমাদ আল ওথাইমেন এবং আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে নিউজিল্যান্ডের পররাষ্ট্রমন্ত্রী উইনস্টন পিটারস সভায় উপস্থিত ছিলেন। ভূমি মন্ত্রণালয় থেকে শনিবার এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানানো হয়।

ভূমিমন্ত্রী নিউজিল্যান্ডে সন্ত্রাসী হামলার নিন্দা জানান এবং নিউজিল্যান্ডের মুসলিমদের প্রতি সহমর্মিতা প্রকাশ করেন। নিউজিল্যান্ডের মুসলিমদের অবিলম্বে সহায়তা দান ও মর্যাদা প্রদর্শনের জন্য দেশটির সরকারের প্রশংসা করেন ভূমিমন্ত্রী। তিনি জাতিসংঘের ছায়াতলে ওআইসির দেশগুলোর মধ্যে সহযোগিতা বৃদ্ধির ওপর জোর দেন। সভা শুরুর আগে তুরস্কের রাষ্ট্রপতি রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান তার বক্তব্যে সন্ত্রাসবাদ, ইসলাম-ভীতি এবং অমুসলিম দেশে মুসলিমদের বিরুদ্ধে ঘৃণা মোকাবেলায় সমষ্টিগত প্রচেষ্টার প্রয়োজনীয়তার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।

সাইফুজ্জামান চৌধুরী বলেন, স্বাধীনতার পর জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সব ধর্ম, বর্ণ এবং বিশ্বাসের সহাবস্থানের বিধান রেখে দেশকে একটি সংবিধান উপহার দেন। সভায় তিনি জানান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্বে বাংলাদেশ সরকার সব ধরনের সন্ত্রাস এবং সহিংস চরমপন্থার বিরুদ্ধে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি গ্রহণ করে আসছে।

মিয়ানমারের রাখাইনে রোহিঙ্গা মুসলিমদের নির্যাতনের কথা বলতে গিয়ে মন্ত্রী বলেন, সম্পদের সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও বাংলাদেশ সরকার রোহিঙ্গা শরণার্থীদের নিরাপদ আশ্রয় দিয়েছে।

বিশ্বে সন্ত্রাসবাদ, ইসলাম-বিদ্বেষ এবং মুসলিমদের বিরুদ্ধে ঘৃণা মোকাবেলায় কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার ইশতেহার গ্রহণের মাধ্যমে পররাষ্ট্রমন্ত্রীদের জরুরি সভাটি শেষ হয়। এর আগে বৃহস্পতিবার বিকালে ওআইসির সদস্য দেশগুলোর ঊর্ধ্বতন সরকারি কর্মকর্তাদের বৈঠকে ইশতেহারটি চূড়ান্ত হয়।

সাইফুজ্জামান চৌধুরীর সঙ্গে বাংলাদেশ প্রতিনিধি দলে আরও ছিলেন- পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আন্তর্জাতিক সংস্থা উইংয়ের মহাপরিচালক এএফএম গাউসুল আজম সরকার, তুরস্কে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত এম আল্লামা সিদ্দিকী, সৌদি আরবের রিয়াদে নিযুক্ত বাংলাদেশ দূতাবাসের উপ-মিশন প্রধান এবং ওআইসিতে বাংলাদেশের উপ-স্থায়ী প্রতিনিধি ড. নজরুল ইসলাম, ইস্তাম্বুলে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল মনিরুল ইসলাম এবং আঙ্কারায় বাংলাদেশ দূতাবাসের মিনিস্টার পলিটিক্যাল রইস হাসান সরোয়ার।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত