প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

রানা প্লাজা দুর্ঘটনায় আহত আর কোনো শ্রমিক আর্থিক সহায়তার বাইরে নেই : বিজএমইএ সভাপতি

রানা প্লাজা দুর্ঘটনায় আর কোনো শ্রমিক আর্থিক সহায়তার বাইরে নেই বলে জানিয়েছেন পোশাক মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএ’র সভাপতি মো. সিদ্দিকুর রহমান। তিনি বলেন, রানা প্লাজা দুর্ঘটনায় আহতদের সহযোগীতায় ২৮০ কোটি টাকার ফান্ড রয়েছে। গত ৫ বছরে আমরা যেখানে রানা প্লাজা ট্র্যাজেডিতে আহত হয়েছে তাদের আর্থিক সহায়তা দিয়েছি। এখন আর নতুন করে কেউ ওই ঘটনায় আহত হিসেবে আমাদের কাছে সহায়তা চাইতে আসছে না। তাই আমরা মনে করছি আর রানা প্লাজা ট্র্যাজেডিতের আর কোনো শ্রমিক আর্থিক সহায়তার বাইরে নেই।

শনিবার রানা ট্র্যাজেডির ৫বছর সামনে রেখে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। বিজিএমইএ ভবনে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে মো. সিদ্দিকুর রহমান বলেন, যে কোনো দুর্ঘটনা অনাকাক্সিক্ষত। কিন্তু রানা প্লাজার দুর্ঘটনা নিয়ে এখনো অনেকে প্রোপাগান্ডা ছড়িয়ে যাচ্ছে । রানা প্লাজায় আহতদের জন্য বিজিএমইএর পক্ষ থেকে চাকরির ব্যবস্থা করা হয়েছে। তাদের জন্য চাকরির দরজা সব সময় খোলা আছে। এসময় তিনি রানা প্লাজা ট্র্যাজেডিকে সামনে রেখে কিছু এনজিও প্রপাগান্ডা ছড়াচ্ছে উল্লেখ করে বলেন, প্রোপাগান্ড না ছড়িয়ে সঠিক তথ্যগুলো তুলে ধরে পোশাক শিল্পের উন্নয়নে সবার ভূমিকা রাখা দরকার। তিনি বরেন, কিছু সংস্থা ও বিশ্ববিদ্যালয় আমাদের সাথে সংশ্লিষ্ট বিষয় নিয়ে আমাদের সাথে কথা না বলে গুটিকয়েক জন লোকের সাথে কথা বলে গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করে। যা পোশাক শিল্পের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর।

এসময় তিনি জানান, রানা প্লাজা দুর্ঘটনায় আহতদের মধ্যে যারা এখনও সুস্থ স্বাভাবিক জীবনে ফিরে যেতে পারেননি বিজিএমইএ নিয়মিতভাবে তাদের চিকিৎসার বিষয়টি ফলো-আপ করে যাচ্ছে। আমরা ২০১৪ সালে ১১০জন এবং ২০১৫সালে ৭০জনকে বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিসৎসার মাধ্যমে সুস্থ করে বাড়ি পৌঁছে দিয়েছি। এছাড়া অন্ত:স্বত্তা ১২জন নারী কর্মীর প্রত্যেককে প্রসব ও প্রসবজনিত চিকিৎসাসেবা প্রদানের জন্য ৩৫হাজার টাকা করে দিয়েছে। তিনি জানান, আন্না নামে অঙ্গহানীর শিকার এক রোগীর পরবর্তীতে ক্যান্সার হয়েছিলো। বিজিএমইএর পক্ষ থেকে তাকে মহাখালী ক্যান্সার হাসপাতালে রেখে চিকিৎসা দেয়া হয়।

তিনি আরো জানান, রানা প্লাজা দুর্ঘটনায় ৬৭জন শিশুর দায়িত্ব নিয়েছে বিজিএমইএ। যাদের রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় সেফ হোমে রাখা হচ্ছে। তিনি বলেন, বিজিএমইএর প্রত্যক্ষ তৎপরতায় রানা প্লাজা দুর্ঘটনায় কর্মহীন হয়ে পড়া শ্রমিকদের মধ্যে যারা সুস্থ হয়ে কাজ চেয়েছে তাদের সকলের জন্য কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

এসময় তিনি জানা, রানা প্লাজার ৫টি কারখানার শ্রমিকদের জন্য বেতন ও পাওনাদি পরিশোধ, আহদের চিকিৎসাহ ও ক্ষতিগ্রস্থদের পূনর্বাসনবাদ বিজিএমইএ ১৫ কোটি টাকা ব্যয় করেছে। এর মধ্যে চিকিৎসা সহায়তা বাবদ রয়েছে ৩ কোটি ৯৬লাখ টাকা, বেতন ও অন্যান্য সুবিধা বাবদ ৭ কোটি ৬০লাখ টাকা, প্রধানমন্ত্রীর ফান্ডে অনুদান বাবদ ২ কোটি টাকা, প্রসূতি শ্রমিকদের সহায়তা বাবদ ৫লাখ টাকাসহ অন্যান্য খাতে ৫লাখ টাকা ব্যায় করেছে।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন বিজিএমইএ’র সহ সভাপতি (অর্থ) মোহাম্মদ নাসির, পরিচালক ইনামুল হক খান (বাবলু)সহ সংগঠনটির অন্যান্য নেতারা।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত