প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

ঢাকা দক্ষিণে ড্রেন নির্মাণে সিমেন্টের বদলে কাদামাটি, ভেঙে দিল জনতা

শাকিল আহমেদ : ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে (ডিএসসিসি) যুক্ত হওয়া ৫৯ নম্বর ওয়ার্ডের ড্রেন নির্মাণে সিমেন্টের পরিবর্তে কাদামাটি ব্যবহার করা হয়েছে। এ ঘটনায় উত্তেজিত জনতা ওই ড্রেনটি ভেঙে দিয়েছে। ব্যবস্থা নেয়ার আশ্বাস ডিএসসিসির।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, মোহাম্মদবাগ চৌরাস্তা থেকে মিরাজনগর যাওয়ার মাঝের এলাকায় ন্যাশনাল ব্যাংকের নিচে ড্রেন নির্মাণের কাজ চলছে। গত শুক্রবার রাতে ড্রেনের কিছু অংশ ঢালাই করা হয়। পরদিন শনিবার সকালে ঢালাইয়ের প্রলেপ খুলতে গেলে দেয়ালে ফাটল ধরে। স্থানীয়রা ধরতে গেলে তা ভেঙে পড়ে। দেখা যায় সিমেন্টের পরিবর্তে কাদামাটি ব্যবহার করা হয়েছে। এ ঘটনা জানাজানি হলে স্থানীয়রা উত্তেজিত হয়ে লাঠি দিয়ে খুঁচিয়ে খুঁচিয়ে কাদামাটির প্রলেপ তুলে ফেলে।

এ বিষয়ে জানতে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জে কে প্রতিষ্ঠানের কর্ণধার গোফরান চৌধুরীর মোবাইল ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

অঞ্চল ৫-এর নির্বাহী প্রকৌশলী ও প্রকল্প পরিচালক কাজী বোরহান উদ্দিনকে বার বার ফোন করলে তিনি ফোন ধরেননি। এবং ডিএসসিসির অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী আসাদুজ্জামানের ফোনটিও বন্ধ পাওয়া যায়। দক্ষিণ সিটির প্রধান নির্বাহী খান মোহাম্মদ বিলাল বলেন, আমি বিষয়টি জানতাম না। এটি অবশ্যই ঠিকাদারের ত্রুটি। ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান এটি পুনর্নির্মাণ করবে। আমরা বিষটি দেখে ব্যবস্থা নেবো।

ডিএসসিসি সূত্র জানা যায়, চাকদাহ, ঢাকা ম্যাচ, রাজউক দ্বিতীয় পর্ব, ওয়াসা কলোনি, মুন্সীখোলা তেলকল, পূর্ব কদমতলী, মোহাম্মদবাগ ও মেরাজনগর নিয়ে ডিএসসিসির ৫৯ নম্বর ওয়ার্ডটি গঠিত। সম্প্রতি এ ওয়ার্ডটিসহ শ্যামপুর, দনিয়া, মাতুয়াইল ও সারুলিয়া এলাকায় ৭৩৪ কোটি টাকার উন্নয়ন কাজের উদ্বোধন করেন মেয়র সাঈদ খোকন।

এরই অংশ হিসেবে প্রধান সড়কগুলোর পাশে ড্রেন নির্মাণের কাজ চলছে। ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান জে কে এন্টারপ্রাইজের পক্ষে ড্রেন নির্মাণ কাজটি বাস্তবায়ন করছেন ঠিকাদার গোপরান চৌধুরী।

এলাকাবাসীর অভিযোগ, ঢাকা দক্ষিণ সিটির ৫৯ নম্বর ওয়ার্ডটির রাস্তা-ঘাট ড্রেনেজ ব্যবস্থার বেহাল দশা। মাঠ পর্যায়ে উন্নয়ন কাজ শুরু হলেও বিভিন্ন অনিয়মের কারণে স্থানীয়দের মধ্যে হতাশা দেখা দিয়েছে। এই এলাকার সব ড্রেন রাতে তৈরি করেছে। কোটি টাকার কাজের অর্ধেকই ঠিকাদাররা লুটে নিচ্ছে। পুরো নির্মাণ কাজের অন্যান্য স্থানেও এমন সমস্যা রয়েছে। এর দ্রুত প্রতিকার দাবি করেন তারা।
সম্পাদনা : আনিস রহমান

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত