প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

জিয়াউর রহমান বাংলাদেশের রাজনীতির আদর্শ: শরীফুল আলম

মাঈন উদ্দিন আরিফ: বিএনপি প্রতিষ্ঠাতা শহীদ প্রেসিডেন্ট জিয়াউর রহমান বাংলাদেশের রাজনীতিতে একটি আদর্শ বলে দাবী করেছেন দলের সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও কিশোরগঞ্জ জেলা বিএনপির সভাপতি মো. শরীফুল আলম।

তিনি বলেন, জিয়াউর রহমানের রাজনীতি ছিল দেশ এবং দেশের মানুষের জন্য। দেশকে কি ভাবে উন্নতির শিখরে পৌঁছানো যায় সেই লক্ষই ছিল তার। কিন্তু এখনকার রাজনীতি কেন যেন নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। শুরু হয়েছে হিংসা ও বিদ্ধেষের রাজনীতি।

সাম্প্রতি আমাদে সময় ডটকমকে দেওয়া এক সাক্ষাতকারে জিয়উর রহমানের রাজনীতি এবং বর্তমানের রাজনীতি সহ বিভিন্ন বিষয়ে এ প্রতিবেদকের সঙ্গে তুলে ধরেন তিনি।

শরিফুল আলম বলেন, আমরা দেখেছি বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে দেশের রাজনীতিকে একে বারেই কুলশিত করে পেলেছে। শুরু করেছে গুম-খুনের মতো রাজনীতি। যেটা পাকিস্তান হানাদার বাহীনিকেও হারমানিয়েছে এ সরকার।

তিনি বলেন, বাংলাদেশে একদলীয় গণতন্ত্র থেকে বহুদলীয় গণতন্ত্রের প্রবক্তা ছিলেন জিয়াউর রহমান। তিনি চেয়ে ছিলেন দেশ হবে একটি উন্নায়নশীল রাষ্ট্র। কিন্তু বর্তমানে আবারো সেই একদলীয় শাসন চলছে। আর এই স্বৈরাচার শাসন থেকে দেশের মানুষকে মুক্ত করার জন্য দিনরাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

জিয়াউর রহমান বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষক দাবি করে তিনি আরো বলেন, ১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ চট্টগ্রামের কালুরঘাট বেতার কেন্দ্র থেকে জিয়াউর রহমান স্বাধীনতার ঘোষণা দেন। জিয়াউর রহমান ‘আমি মেজর জিয়া বলছি’ ঘোষণার মধ্য দিয়ে জনগণকে উদ্বুদ্ধ ও আশান্বিত করে তুলেছিলেন। তিনি শুধু স্বাধীনতার ঘোষণা দিয়ে ক্ষান্ত হননি। একইসাথে রণাঙ্গনে যুদ্ধ করেছেন। যুদ্ধের নেতৃত্বও দিয়েছেন। অবশেষে দীর্ঘদিনের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধের মাধ্যমে আমরা অর্জন করেছিলাম স্বাধীনতা। পেয়েছিলাম স্বাধীন বাংলাদেশ। কিন্তু আজ কি হচ্ছে?

শহীদ জিয়ার সবচেয়ে বড় সৃষ্টি বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদের রাজনীতি, বাংলাদেশ জাতীয়বাদী দল (বিএনপি) গঠন করা। তিনি বিশ্বাস করতেন এবং বলতেন, ‘ব্যক্তির চেয়ে দল বড়, দলের চেয়ে দেশ’। দেশপ্রেম সবার ঊর্ধ্বে, তার হৃদয়ে সারাক্ষণ বাজত সেই সুর ‘প্রথম বাংলাদেশ আমার শেষ বাংলাদেশ, জীবন বাংলাদেশ আমার মরণ বাংলাদেশ।’ স্বাধীনতা ঘোষণা ও মুক্তিযুদ্ধ থেকে ৩০ মে ১৯৮১ শাহাদত বরণ পর্যন্ত মাত্র ১০ বছর তাঁর কর্মময় জীবনে উৎপাদন, উন্নয়নে জাদুর পরশ লেগে আছে। কিন্তু এই আওয়ামী লীগ সরকার তা যেনে শুনে মিথ্যাচার করছে। মুচে দিতে চাচ্ছে বাংলাদেশ থেকে জিয়াউর রহমানের নাম। যা স্বপ্নই মাত্র। বাস্তবে না।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বাধিক পঠিত