শিরোনাম
◈ যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে টস জিতে ফিল্ডিংয়ে ভারত ◈ ব্রিকসকে দেওয়ার মতো অনেক কিছু রয়েছে বাংলাদেশের: ডা. দীপু মনি ◈ পল্টনে ফাইন্যান্স টাওয়ারের আগুন নিয়ন্ত্রণে ◈ ঢাকায় ৮ মাত্রার ভূমিকম্পের শঙ্কা রয়েছে: ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ◈ এমপি আনার হত্যা তদন্তে কোনো চাপ নেই: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ◈ তারেক রহমানসহ পলাতক আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে: সংসদে প্রধানমন্ত্রী ◈ সাধারণ নাগরিকের মতো করেই ড. ইউনূসের বিচার হচ্ছে: আইনমন্ত্রী ◈ শিগগিরই আমাদের আন্দোলন আরও বেগবান হবে: মির্জা ফখরুল ◈ ড. ইউনূসের কথা অসত্য, জনগণের জন্য অপমানজনক: আইনমন্ত্রী ◈ সরকারের ব্যাংকঋণে বেসরকারিখাতে বিনিয়োগ ব্যাহত হবে: সিপিডি

প্রকাশিত : ১৩ এপ্রিল, ২০২৪, ০২:৪৬ দুপুর
আপডেট : ১৩ এপ্রিল, ২০২৪, ০২:৪৬ দুপুর

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

বাচ্চু ভাই জেলে কেনো!

পলাশ রহমান, ফেসবুক: রোমের বাংলাদেশি কম্যুনিটি নেতা বাচ্চু ভাই ইতালিয় প্রশাসনের টার্গেটে পরিণত হয়েছেন বেশ আগে থেকে। হয়তো অনেক দিন যাবৎ তার উপর নজরদারি করা হচ্ছিলো। প্রশাসন একটা সুবিধাজনক সময় খুঁজছিলো।

ক'বছর আগে রোমের প্রশাসন চারটি মসজিদ বন্ধ করে দিয়েছিলো নানা অভিযোগে। আরো কিছু বন্ধ করার ঘোষনা দিয়েছিলো। তখন রোমের মুসল্লিদের মধ্যে বেশ ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছিলো। তারা প্রতিবাদ-বিক্ষোভ করেছিলেন। মসজিদ বন্ধ করার প্রতিবাদে বাচ্চু ভাই রোমের কয়েকটি খোলা চত্বরে নামাজ আদায়ের নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। হাজার হাজার মানুষকে রাস্তায় নামিয়ে এনেছিলেন। কোলাচ্ছিওর চত্ত্বরে নামাজ আদায় করে ইতিহাস সৃষ্টি করেছিলেন।

এর আগেও অভিবাসীদের অধিকার আদায়ের প্রশ্নে বাচ্চু ভাই সব সময় নেতৃত্বের প্রথম সারিতে ছিলেন। রোমের সবচেয়ে বড় এনজিওর (নিবন্ধিত সদস্যর ভিত্তিতে) নেতৃত্ব এখনো তার হাতে। তিনি কয়েকটি আর্থিক প্রকল্প নিয়েও কাজ করছেন, যার সাথে ধর্মীয় স্বার্থ জড়িয়ে আছে।

বাচ্চু ভাই একবার লাইভ টিভি অনুষ্ঠানে সে সময়ের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সালভিনির সাথে তর্ক করেছিলেন। যা ইতালি জুড়ে বেশ সমালোচিত হয়েছিলো। একজন মন্ত্রীর সাথে উনি যে ভাষায় কথা বলেছিলেন, তা অনেকেই পছন্দ করেনি। 

বাচ্চু ভাই রোম কম্যুনিটির পরিচিত মানুষ। ভিজিবিলে মানুষ। তার বাসা আছে, পরিবার আছে, স্ত্রী সন্তান আছে। কর্মস্থল আছে। সোস্যালমিডিয়ায় বিচরণ আছে। নিয়মিত সামাজিক এবং ধর্মীয় কর্মকান্ডে তাকে দেখা যায়। যে অভিযোগে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে তার জন্য গভীর রাতে বাড়ি ঘেরাও করার দরকার ছিলো না। পরিবারে ভীতি ছড়ানোর দরকার ছিলো না। থানায় ডেকে পাঠালেই বাচ্চু ভাই যেতেন। 

পুলিশ তাকে দিনের আলোয় গ্রেফতার করতে পারতো। গভীর রাতে কেনো? তিনি কী পালিয়ে যাচ্ছিলেন? নাকী দিনের আলোয় গ্রেফতার করলে তিনি রোমের সেই নিরো সম্রাটের আমলের মতো আগুন ধরিয়ে দিতেন?

বাচ্চু ভাই মূলত রোমের রাজপথের নেতা। রাজপথে প্রতিবাদ করতে, সমাধান খুঁজতে বেশি পছন্দ করেন। তাই বলে কী তিনি সত্যিই এতটা ভয়ঙ্কর মানুষ? উল্লেখিত অভিযোগগুলো কী সত্যিই? নাকী ষড়যন্ত্র?

এমন একটা সময় বাচ্চু ভাইকে গ্রেফতার করা হলো- যখন ইতালিজুড়ে বাংলাদেশি কম্যুনিটিকে টার্গেট করা হয়েছে। টিভিগুলো লম্বা লম্বা প্রতিবেদন (অধিকাংশ বিদ্বেষ প্রসূত) প্রচার করছে। পত্রিকাগুলো দিস্তা দিস্তা উপসম্পাদকীয় লিখছে। চারদিকে থকথক করছে- ঘৃণা আর বিদ্বেষ ছড়ানোর মাতম।

আর একটা বিষয় হলো- ইতালিতে সাধারণত কাউকে গ্রেফতার করা হলে অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা না পাওয়া পর্যন্ত মিডিয়ায় নাম-ছবি প্রকাশ করা হয় না। বাচ্চু ভাইর বেলায় ঘটেছে ব্যতিক্রম। তার গ্রেফতার খবরের সাথে নাম-ছবি ফলাও করে প্রকাশ করা হয়েছে। এমন কী গতরাতের 'ইসতিরিচ্ছা নোতিচ্ছিয়ায়'ও তাদের প্রথা ভেঙ্গে বাচ্চু ভাইর ছবি দেখানো হয়েছে।
আশা করি বাচ্চু ভাই সুবিচার পাবেন। সতর্ক থাকুন। কোনো উস্কানিতে জড়াবেন না।

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়