শিরোনাম
◈ দুদিনে বাতিল হওয়া সৌদিগামী ৪টি ফ্লাইটের প্রায় ১২শ যাত্রীর ‘ভিসার মেয়াদ শেষ হলেও সমস্যা নেই : প্রবাসী কল্যাণ প্রতিমন্ত্রী ◈ নাশকতাকারীদের ধরিয়ে দিলে পুরষ্কার ঘোষণা পুলিশের, দেশজুড়ে ‘চিরুনি অভিযান ◈ কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের ৮ দাবি, যা বললেন আইনমন্ত্রী ( ভিডিও ) ◈ এখনই কারফিউ তুলে নেয়ার কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি : স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ◈ আজ রাতের মধ্যেই ব্রডব্যান্ড ইন্টারনেট চালুর চেষ্টা চলছে: জুনাইদ আহমেদ পলক ◈ হুতি-ইসরাইল মধ্যে উত্তেজনা, মধ্যপ্রাচ্যে বড় যুদ্ধের শঙ্কা ◈ চলমান সহিংসতা ক্ষতির মুখে রফতানি আয়, যা বললেন অর্থনীতিবিদরা ◈ দুর্যোগ ভবনে চালানো তাণ্ডবে ‘পুড়েছে ৫৩ গাড়িসহ মূল্যবান জিনিসপত্র’ ◈ প্রেসিডেন্ট পদের দৌড় থেকে সরে দাঁড়ালেন বাইডেন, কামালা হ্যারিসের নাম প্রস্তাব ◈ বাড়তে পারে সাধারণ ছুটি, তৃতীয় দিনের মত কারফিউ চলছে

প্রকাশিত : ২৪ মার্চ, ২০২৩, ০৫:৫৩ বিকাল
আপডেট : ২৪ মার্চ, ২০২৩, ১১:১৯ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

ইফতার বিক্রিতে জমজমাট রাজধানীর চকবাজার

সঞ্চয় বিশ্বাস: পবিত্র রমজানের প্রথম দিনেই পুরান ঢাকার চকবাজারে বাহারি ইফতারসামগ্রী কিনতে ভিড় করছে মানুষ। শুক্রবার (২৪ মার্চ) দুপুর থেকে চকবাজারের শাহী জামে মসজিদের সামনে চক-সার্কুলার সড়কে ইফতারির পসরা সাজিয়ে বসতে শুরু করেন ব্যবসায়ীরা। আর বিকেল হতেই বাড়তে থাকে ক্রেতাদের ভিড়। জাগোনিউজ, বাংলানিউজ

ব্যবসায়ীরা বলেন, ইফতারের সময় যতই ঘনিয়ে আসবে, বিক্রিও বাড়বে। তবে গত বছরের চেয়ে এবার ইফতারসামাগ্রীর দাম বেশি এমনটা বলছেন ক্রেতারা। বিক্রেতারাও দাবি করে বলেন, দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির কারণে এবার প্রায় সব ইফতারসামগ্রীর দামই কিছুটা বেশি রাখছি।

চকবাজারের ঐতিহ্যবাহী ইফতারির বাজারের ক্রেতা-বিক্রেতারা জানান, সারাদিন রোজা রাখার পর ইফতারে আগ্রহ থাকে রোজাদারদের। পুরান ঢাকার চকবাজারের বাহারি ইফতারিতে সবারই আলাদা আগ্রহ থাকে। এজন্য ইফতারসামগ্রী কিনতে চকবাজারে ভিড় জমাচ্ছেন ক্রেতারা।

প্রতি বছরের মতো এবারও চকবাজারের ইফতারির সবচেয়ে বড় আকর্ষণ রয়েছে ‘বড় বাপের পোলায় খায়, ঠোঙা ভইরা লইয়া যায়’ নামের বিশেষ ইফতারি। ‘বড় বাপের পোলায় খায়, ঠোঙা ভইরা লইয়া যায়’ তৈরিতে মাংস, সুতি কাবাব, মাংসের কিমা, ডাবলি, বুটের ডাল, ডিম, মগজ, আলু, ঘি, কাঁচা ও শুকনো মরিচসহ নানা পদের খাবার আইটেম এবং হরেক ধরনের মসলা প্রয়োজন হয়। যার জন্য প্রতি কেজি ৮০০ থেকে ৮৫০ টাকা দরে এটি বিক্রি হচ্ছে। 

৬৮ বছর আগে ১৯৪৫ সালে শাহী জামে মসজিদ চত্বরে বাণিজ্যকভাবে এ খাবার বিক্রি শুরু করেন এক ব্যক্তি। সেই খাবারটি এখন পুরান ঢাকাসহ গোটা রাজধানীতে আকর্ষণীয় ইফতারির আইটেম হিসেবে পরিচিত লাভ করে।

চকবাজারে দেখা গেছে, চক-সার্কুলার সড়কে প্রথম দিনে সারি সারি শতাধিক ইফতারসামাগ্রীর দোকান বসানো হয়েছে। এরমধ্যে রয়েছে অধিকাংশই অস্থায়ী দোকান। দোকানগুলোতে বিক্রি হচ্ছে সুতি কাবাব, জালি কাবাব, মুঠি জালি কাবাব, নারগিস চাপ, টিকা কাবাব, শাহী জিলাপি ও বোম্বে জিলাপি, ডিম চপ, রোস্ট, দই, বড়া, হালিম, নুরানি লাচ্ছি, পনির, পেস্তা বাদামের শরবত, লাবাং, পরোটা, ছোলা, পিঁয়াজু, আলুর চপ, বেগুনি, ফালুদাসহ নানা ধরনের খাবার।

তবে এ বছর বেশি দামে বিক্রি হচ্ছে ইফতার। গত বছর চিকেন ফ্রাইয়ের দাম ছিল ৮০ টাকা। এ বছর সেটার দাম হয়েছে ১২০ টাকা। ১৮০ টাকার চিকেন স্টিক এবার বিক্রি হচ্ছে ২৪০ টাকায়। পুরান ঢাকার ঐতিহ্যবাহী শাহী জিলাপি গত বছর যেখানে ২৮০-৩০০ টাকা কেজি ছিল, এ বছর সেটা হয়েছে ৩৫০ টাকা।

এছাড়াও জিলাপি কালাই আইটেম ২৪০ টাকা, আটার জিলাপি ২০০ টাকা, বড় সাইজের জিলাপি ৩০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। শিঙাড়া ১৫ টাকা প্রতি পিস, সমুচা ১৫ টাকা, চিকেন টোস্ট ৪৫ টাকা, চিকেন পরোটা ৫০ টাকা, বিফ পরোটা ৬০ টাকা, নরমাল পরোটা ৩০ টাকা, বেগুনি ৫ টাকা, আলুর চপ ৫ টাকা, পেঁয়াজু ৫ টাকা, ভেজিটেবল পাকোড়া ৫ টাকা, ডিমচপ প্রতিটি ২৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া ঘুমনি ৮০ টাকা কেজি, ছোলা ১৫০ থেকে ১৬০ টাকা, সবজির বড়া ১০ টাকা প্রতিটি, গরুর টিকা ৩০ এবং মুরগির টিকা ২৫ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

জালি কাবাব প্রতি পিস ৫০ টাকা, সাসলিক ৫০ টাকা, টিকা কাবাব ৫০ টাকা, কোয়েল পাখির রোস্ট ৭৫ থেকে ১০০ টাকা, চিকেন রোল ৬০ টাকা, আস্ত মুরগি ৩৫০ টাকা, পনির ৭৫০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

পানীয় আইটেমের মধ্যে পেস্তা শরবত ২০০ টাকা লিটার, মাঠা ৮০ টাকা লিটার, বোরহানি ১২০ টাকা লিটার, ফালুদা বড় বাটি ২০০ টাকা, ফালুদা ছোট বাটি ১০০ টাকা, দইবড়া বড় বক্স ২২০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

এসবি২

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়