শিরোনাম
◈ আজ বন্ধ থাকবে ঢাকার মার্কিন দূতাবাস ◈ যাত্রবাড়ীর সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ একজনের মৃত্যু ◈ নির্ধারিত সময়ে হল ছাড়ায় শিক্ষার্থীদের ধন্যবাদ দিলেন ঢাবি ভিসি ◈ ঢাবি উপাচার্যের সঙ্গে শিক্ষামন্ত্রীর বৈঠক; রাতে পুলিশ-শিক্ষার্থী সংঘর্ষ ◈ যাত্রাবাড়িতে পুলিশের সঙ্গে দুর্বৃত্তদের সংঘর্ষ, টোল প্লাজায় আগুন ◈ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে রাতে আবার পুলিশ–শিক্ষার্থী সংঘর্ষ ◈ কোটা আন্দোলনকারীদের কমপ্লিট শাটডাউনে বিএনপির সমর্থন ◈ বিএনপি-জামাতের লাশের রাজনীতিতেই মানুষ নিহত হয়েছে: পররাষ্ট্রমন্ত্রী ◈ আগামীকাল সারাদেশে কোটা আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ‘কমপ্লিট শাটডাউন' ◈ শিক্ষার্থীদের দাবির মুখে ছাত্র রাজনীতি বন্ধ ঘোষণা করলেন রাবি উপাচার্য

প্রকাশিত : ১০ জুলাই, ২০২৪, ০৯:০৭ রাত
আপডেট : ১০ জুলাই, ২০২৪, ১১:৫৫ রাত

প্রতিবেদক : নিউজ ডেস্ক

বাংলা ব্লকেডে স্থবির রাজধানী, হেঁটেই যাতায়াত যাত্রীদের

শিমুল চৌধুরী ধ্রুব: [২] ‘বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলন’-এর ব্যানারে সরকারি চাকরিতে সব গ্রেডে কোটা বাতিলের এক দফা দাবিতে আন্দোলন করছে দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয় ও কলেজের শিক্ষার্থীরা। দাবি আদায়ে বুধবার তৃতীয় দিনের মতো রাজধানীসহ সারা দেশে ‘বাংলা ব্লকেড’ কর্মসূচি পালন করেন তারা। 

[৩] কোটাবিরোধী আন্দোলনকারীরা সকালে প্রথমে রাজধানীর শাহবাগ ও সায়েন্স ল্যাব মোড় ব্লক করে। পরে একে একে কাঁটাবন, নীলক্ষেত, ইন্টারকন্টিনেন্টাল মোড়, বাংলামোটর, কাওরানবাজার, ফার্মগেট, বিজয়সরণি, মহাখালী, চানখারপুল, বঙ্গবাজার, শিক্ষা চত্বর, মৎস্য ভবন, জিপিও, গুলিস্তান, রামপুরা ব্রিজ, আগারগাঁও, হাতিরঝিলের মোড় ও মেয়র হানিফ ফ্লাইওভারসহ ২০টির বেশি গুরুত্বপূর্ণ রাস্তার মোড়ে ‘ব্লকেড’ তৈরি করে তারা। এলিভেটেড এক্সপ্রেসওয়ের ফ্লাইওভার ও মগবাজার-সাতরাস্তা ফ্লাইওভারও ব্লক করে দেন আন্দোলনকারীরা। এছাড়াও মহাখালী ও কারওয়ান বাজার রেলক্রসিংয়ে কাঠের গুঁড়ি ফেলে রেলপথ ব্লকড করেন আন্দোলনকারীরা। এতে ঢাকার সঙ্গে সারা দেশের রেল যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যায়।

[৫] এদিন সকাল থেকে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, অধিকাংশ রাস্তায় যানবাহন আটকে আছে। কোনোদিকেই যাওয়ার মতো কোনও পরিস্থিতি নেই। গাড়ি নিয়ে বিপাকে পড়েন চালকরা। বাসের যাত্রীরা নেমে হাঁটা শুরু করলেও তারা গাড়ি রেখে কোথাও যেতেও পারছেন না।

[৬] বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালে ডাক্তার দেখিয়ে মহাখালীর বাসায় ফিরছিলেন মধ্যবয়সী শফিকুর রহমান। তিনি বলেন, ‘ডাক্তার দেখানোর পর বাসায় যাওয়ার জন্য কোনও গাড়ি পাচ্ছি না। কোনও রিকশাও চলছে না। ফার্মগেট পর্যন্ত হেঁটে এলাম। এখন একটু বিশ্রাম নিচ্ছি। বাকি পথও হেঁটে যেতে হবে।’

[৭] কাওরানবাজার এলাকায় কোটা আন্দোলনের সেন্ট্রাল ভলান্টিয়ার ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের প্রথম বর্ষের শিক্ষার্থী নিহাল মোহাম্মদ আসিফ আন্দোলনের নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন। তিনি বলেন, ‘আমরা শান্তিপূর্ণ আন্দোলন করছি। আমরা দাবি আদায়ে রাস্তা ব্লকেড কর্মসূচি পালন করছি। এতে সাধারণ মানুষের সাময়িক দুর্ভোগ হলেও গোটা জাতির স্বার্থে তারা এটা মেনে নিচ্ছেন। অনেক সাধারণ মানুষ আমাদের আন্দোলনে যোগ দিচ্ছেন। ’

[৮] এদিকে, আপিল বিভাগের আদেশের পর বৈষম্যবিরোধী ছাত্র আন্দোলনের সমন্বয়ক নাহিদ ইসলাম বলেন, ‘আদালতের সঙ্গে আমাদের আজকের আন্দোলনের কোনও সম্পর্ক নেই। আমরা মূলত নির্বাহী বিভাগের কাছেই কোটা সমস্যার চূড়ান্ত সমাধান চাইছি। এক দফা দাবি। এটি আদালতের এখতিয়ার নয়। এটি একমাত্র নির্বাহী বিভাগই পূরণ করতে পারবে। সরকারের কাছ থেকেই আমরা সুস্পষ্ট বক্তব্য আশা করছি।’ সম্পাদনা: ইকবাল খান

এসবি২

  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়