প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শোষিত মানুষের বিশ্ব নেতা : উপাচার্য বিএসএমএমইউ

শাহীন খন্দকার: [২] বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালযয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ আরও বলেন, সারা পৃথিবীর বাংলা ভাষাভাষি মানুষের জন্য একটি ঐতিহাসিক দিন ২৫ সেপ্টেম্বর। ১৯৭৪ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর দিনটি নিঃসন্দেহে বিশ্বের বুকে এই দিনে জাতিসংঘে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সর্ব প্রথম বাংলায় ভাষণ প্রদান করেছিলেন, বাঙালির জন্য একটা পরম পাওয়া।

[৩] বিশ্ববিদ্যালয়ের এ ব্লক অডিটোরিয়ামে জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধুর ভাষণ আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাবেক রাষ্ট্রদূত ও সাবেক সচিব মোহাম্মদ জমির বলেন, জাতিসংঘে বঙ্গবন্ধুর বাংলায় ভাষণ বাংলাদেশ ও বাঙালির জন্য গৌরবের।

[৪] মোহাম্মদ জমির বলেন, বাংলাদেশ রাষ্ট্রের ও বাংলা ভাষার এই উজ্জ্বল দিনেই বাংলায় দেওয়া বঙ্গবন্ধুর ভাষণের মাধ্যমে জাতিসংঘের সদস্য পৃথিবীর সব দেশ আনুষ্ঠানিকভাবে জানতে পারে বাংলা ভাষার কথা, জানতে পারে বাংলা ভাষাভাষী বাঙালি জাতির জন্য রয়েছে একটি স্বাধীন সার্বভৌম দেশের কথা। তার নাম বাংলাদেশ।

[৫] তিনি আরো বলেন, বাংলা ভাষার নামে এই রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার জন্য কোটি মানুষকে উদ্বুদ্ধ করেছিলেন বঙ্গবন্ধু। তাদের উন্মুখ করে তুলেছিলেন দেশের স্বাধীনতা অর্জনের জন্য প্রাণ বিসর্জন দিতে। তারও আগে যুক্ত হয়েছিলেন রাষ্ট্রভাষা বাংলার দাবির আন্দোলনে। জাতিসংঘে বাংলায় ভাষণ দিয়ে সেই তিনিই বিশ্বমঞ্চে তুলে ধরেছিলেন এই ভাষাকে।
[৬] বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের শনিবার গুরুত্বপূর্ণ ওই আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে সাবেক এই রাষ্ট্রদূত ও সাবেক সচিব স্মৃতিচারণমূলক ঘটনাবহুল বক্তব্যে আরো বলেন, বঙ্গবন্ধু শিশুদের প্রচন্ড ভালোবাসতেন। পররাষ্ট্রনীতিতে তিনি ছিলেন অত্যন্ত দূরদর্শী। স্বাধীনতা পরবর্তী বিভিন্ন দেশ হতে বাংলাদেশের স্বীকৃতি পাওয়ার ক্ষেত্রে বঙ্গবন্ধুর দূরদর্শী পররাষ্ট্রনীতি প্রধান ভূমিকা রেখেছে।

[৭]কবি গুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর যেমন ১৯১৩ সালে সাহিত্যে নোবেল বিজয়ের মাধ্যমে বাংলাকে বিশ্ব দরবারে তুলে ধরেছিলেন। আজকের দিনটি শুধু বাংলাদেশের জন্যই গর্বের দিন নয়, এটি গোটা বাঙালী জাতির জন্যই অত্যন্ত গৌরবের।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত