প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] ২০২৩ সাল থেকে পিএসসি-জেএসসি ও তৃতীয় শ্রেণির বার্ষিক পরীক্ষা থাকছে না: শিক্ষামন্ত্রী

শরীফ শাওন ও আব্দুল্লাহ মামুন: [২] শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি জানান, ২০২৩ সাল থেকেই একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেণিতে দু’টি পরীক্ষা নিয়ে সেই দুই পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে এইচএসসির ফল দেয়া হবে। দশম শ্রেণির কারিকুলামে এসএসসি পরীক্ষা হবে, এর আগে তা নবম ও দশম শ্রেণির সমন্বয়ে হতো। এছাড়াও নবম ও দশম শ্রেণিতে বিজ্ঞান, মানবিক ও বাণিজ্যের মতো বিভাজন থাকবে না।

[৩] সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) দুপুরে সচিাবলয়ে তিনি আরও জানান, একই বছর থেকে বন্ধ করা হবে পঞ্চম শ্রেণির প্রাথমিক শিক্ষা সমাপনী এবং অষ্টম শ্রেণির জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট পরীক্ষা। সাময়িক পরীক্ষার মাধ্যমে তাদের পরবর্তী শ্রেণিতে উন্নীত করা হবে। তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত পরীক্ষা হবে না জানিয়ে বলেন, অন্য শ্রেণিতে সমাপনী পরীক্ষা হবে, সমাপনীতে ধারাবাহিক মূল্যায়নের সঙ্গে সামষ্টিক মূল্যায়ন করা হবে। তিনি বলেন, শিখন সময় কতোটা হবে তা নির্দিষ্ট করে দেয়া হবে। সামষ্টিক মূল্যায়নের পাশাপাশি ধারাবাহিক মূল্যায়নেও গুরুত্ব দিয়েছি।

[৪] শিক্ষামন্ত্রী বলেন, প্রাক প্রাথমিক থেকে দ্বাদশ শ্রেণি পর্যন্ত রূপরেখা তৈরি হয়েছে। আগামী বছর থেকে প্রাথমিকের প্রথম এবং মাধ্যমিকের ষষ্ঠ শ্রেণির নির্ধারিত ১০০টি করে প্রতিষ্ঠানে পাইলটিং কার্যক্রম শুরু হবে। ২০২৩ থেকে ২০২৫ সালের মধ্যে পুরো শিক্ষাক্রম বাস্তবায়ন হবে জানিয়ে বলেন, প্রথম বছর প্রথম, দ্বিতীয়, ষষ্ঠ ও সপ্তম, ২০২৪ সালে তৃতীয়, চতুর্থ, অষ্টম ও নবম এবং শেষ বছর পঞ্চম ও দশম শ্রেণিতে শিক্ষাক্রম বাস্তবায়ন হবে।

[৫] এদিন সকালে পরিমার্জিত কারিকুলামের খসড়া উপস্থাপন করা হলে প্রধানমন্ত্রী তা অনুমোদন দিয়েছেন জানিয়ে বলেন, পুরো শিক্ষাক্রম আনন্দময় ও শিক্ষার্থী কেন্দ্রিক। শ্রেণিকক্ষেই যেনো অধিকাংশ পাঠদান সম্পন্ন হয়, এমন ব্যবস্থার পাশাপাশি মুখস্ত নির্ভরতা না রেখে অভিজ্ঞতা ও কার্যক্রম ভিত্তিক শিখনে অগ্রাধিকার দেয়া হয়েছে। শিক্ষার্থীর দৈহিক ও মানসিক বিকাশে খেলাখুলা ও অন্যান্য কার্যক্রমকে গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের জ্ঞান, দক্ষতা, মূল্যবোধ ও দৃষ্টিভঙ্গির সমন্বয়ে যোগ্যতা অর্জন করতে হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত