প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক নীতিমালা বাস্তবায়নের আহ্বান

মনিরুল ইসলাম: [২] সরকারী ও বেসরকারী সংস্থার প্রতিনিধিরা বলেছেন, স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তীতে দেশকে উন্নয়নের শিখরে দেখার প্রত্যয়েই প্রণীত হয়েছে জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক নীতিমালা। দেশের স্বেচ্ছাসেবকদের কার্যক্রমকে আরও সুসংগঠিত করতে এই নীতিমালার আলোকেই পদক্ষেপ নিতে হবে।

[৩] আন্তর্জাতিক সংস্থা জিএনবির ২৫তম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত ওয়েবিনারে তারা এ আহ্বান জানান।

[৪] ‘বাংলাদেশের জন্য ভলান্টিয়ারিজম’ শীর্ষক ওয়েবিনারের সভাপ্রধান ছিলেন জিএনবির বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর এম মাঈনউদ্দিন মইনুল। ওয়েবিনারে আলোচনায় অংশ নেন স্থানীয় সরকার বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (প্রসাশন) দীপক চক্রবর্তী, নির্ভীক নেটওয়ার্কের ফাউন্ডার চেয়ারম্যান ও সিইও ফারজানা ব্রাউনিয়া, ইউএনভি বাংলাদেশের কান্ট্রি কোর্ডিনেটর মো. আখতার উদ্দিন, জাগো ফাউন্ডেশনের ফাউন্ডার চেয়ারম্যান কোরভি রাক্ষন্দ প্রমূখ।

[৫] আলোচনায় অংশ নিয়ে অতিরিক্ত সচিব দীপক চক্রবর্তী বলেন, স্বাধীনতা সংগ্রামকে তরান্বিত করতে তরুণ প্রজন্ম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছিলো। দেশ স্বাধীনের পরও যুদ্ধ বিধ্বস্ত দেশ গড়ে তুলতে সেই তরুণ প্রজন্মই প্রায় প্রতিটি ক্ষেত্রে স্বেচ্ছাশ্রম দিয়েছে। এমনিভাবে দেশের যেকোন দূর্যোগ মোকাবেলায় সবার আগে ঝাঁপিয়ে পড়েছে হাজারো স্বেচ্ছাসেবক দল। আর সেকারণেই বাংলাদেশের উন্নয়নে এই স্বেচ্ছাসেবকদের অবদান অনুস্বীকার্য। সরকার প্রণীত নীতিমালার আলোকে স্বেচ্ছাসেবকদের আরো সংগঠিত করতে হবে।

[৬] মাঈনউদ্দিন মইনুল জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক নীতিমালা প্রণয়নে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে বলেন, দেশের স্বেচ্ছাসেবকদের আরও সুসংগঠিত করতে এই নীতিমালার খুবই প্রয়োজন ছিলো।

[৭] মো. আকতার উদ্দিন বলেন, দেশের প্রতিটি দুর্যোগের সময়ে ভলান্টিয়াররা কাজ করে যাচ্ছে। তিনি জাতীয় স্বেচ্ছাসেবক নীতিমালা প্রণয়নের জন্য সরকারকে ধন্যবাদ জ্ঞাপনের পাশাপাশি এটিকে বাস্তবায়নে উদ্যোগী হওয়ার আহ্বান জানান।

[৮] ওয়েবিনারে বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা ইউএনএফএসএস, এক রঙ্গা এক ঘুড়ি, আপন ফাউন্ডেশন, এনজিসিএএফ, এনডিপি, নওজোয়ান, পালস বাংলাদেশ, নোঙ্গর, ল্যাম্ব বাংলাদেশসহ বিভিন্ন সংস্থার প্রতিনিধিরা অংশ নেন।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত