প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] কুড়িগ্রামে নদ-নদীর পানি বিপৎসীমার উপরে, দুর্ভোগে গ্রামবাসীরা

সৌরভ ঘোষ: [২] কুড়িগ্রামে ধরলা ও ব্রহ্মপুত্রের পানি কিছুটা কমলেও এখনও বিপৎসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হওয়ায় সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির অপরিবর্তিত  রয়েছে।

[৩] জেলার উলিপুর, চিলমারী, সদর, রৌমারী ও রাজিবপুর উপজেলায় ব্রহ্মপুত্র ও ধরলার অববাহিকার প্রায় দুই শতাধিক চরাঞ্চলের লক্ষাধিক মানুষ দুই সপ্তাহেরও বেশি সময় ধরে পানিবন্দি জীবন-যাপন করছে। এতে করে হাতে কাজ না থাকায় খাদ্য সংকটে পড়েছে শ্রমজীবিরা। বন্যা কবলিত এলাকাগুলোতে শুকনো খাবার, বিশুদ্ধ পানি, শিশু খাদ্য ও গো-খাদ্যের সংকট তীব্র হয়ে উঠছে। সরকারী ভাবে ত্রাণ বিতরণ করা হলেও তা প্রয়োজনের তুলনায় অপ্রতুল।

[৪] উলিপুর উপজেলার হাতিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান বিএম আবুল হোসেন জানান, আমার ইউনিয়নে প্রায় সাড়ে ৩ হাজার পরিবার বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে। এরমধ্যে মাত্র ৫০০ পরিবারকে বরাদ্দ পাওয়া ১০ কেজি করে চাল বিতরণ করা হয়েছে। এখনও বাকী পরিবারগুলোকে সহায়তা দেয়া সম্ভব হয়নি।

[৫] জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ রেজাউল করিম জানান, ২৮০ মেট্রিক টন চাল, সাড়ে ১২ লাখ টাকা ও ১৫শ প্যাকেট শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে।

[৬] কুড়িগ্রাম পানি উন্নয়ন বেডের নির্বার্হী প্রকৌশলী মো: আরিফুল ইসলাম জানায়, ধরলার পানি সেতু পয়েন্টে বিপৎসীমার ৪০ সেন্টিমিটার ও ব্রহ্মপুত্রের পানি চিলমারী পয়েন্টে বিপৎসীমার ১১ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।সম্পাদনা: সঞ্চয় বিশ্বাস

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত