প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] বঙ্গবন্ধু হত্যায় প্রতিরোধ হয়নি কেনো, তা জানতে তদন্ত কমিশন গঠনের দাবি প্রাণিসম্পদ মন্ত্রীর

বিপ্লব বিশ্বাস: [২] বঙ্গবন্ধু বিপ্লবের মাধ্যমে বাংলাদেশ স্বাধীন করেছেন। কিন্তু প্রতিবিপ্লবীদের হাতে তাঁর নির্মম হত্যাকান্ড আমরা রুখতে পারি নি। সেদিন রাজনৈতিক নেতৃত্ব ও বঙ্গবন্ধুর নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিরা ব্যর্থ হয়েছিলেন, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম এমপি এ কথা জানিয়ে তিনি আরো বলেন,সে সময় রাজনৈতিক নেতৃত্ব সঠিকভাবে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারে নি। বঙ্গবন্ধুর নিরাপত্তার দায়িত্বে যারা ছিলেন তারা যথাযথ দায়িত্ব পালন করতে পারলে বঙ্গবন্ধুকে নৃশংস হত্যাকান্ডের শিকার হতে হতো না।

[৩] কেন আমরা সেদিন সঠিকভাবে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারি, এই বিষয়টি অনুধাবন করতে হবে। এ নিয়ে উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন একটি তদন্ত কমিশন গঠন করা প্রয়োজন। রাজনৈতিক নেতৃত্বে কারা ব্যর্থ হয়েছে, কারা ষড়যন্ত্রে জড়িত ছিল, কারা ষড়যন্ত্রের কথা জেনেও পদক্ষেপ নেয় নি, তাদের স্বরূপ উন্মোচন করতে হবে। তাহলে ইতিহাসের রেকর্ডে এই কলঙ্কজনক অধ্যায়ে অভিযুক্তদের কথা থেকে যাবে।

[৪] আজ রবিবার জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৬তম শাহাদতবার্ষিকী ও জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে পিরোজপুর জেলা প্রশাসন আয়োজিত আলোচনা সভায় রাজধানীর বেইলি রোডের সরকারি বাসভবন থেকে ভার্চুয়ালি সংযুক্ত হয়ে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। মন্ত্রী বলেন, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশ হত্যার জন্য বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করা হয়েছিল। লক্ষ্য ছিল বঙ্গবন্ধু বা তাঁর পরিবার অথবা বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্টজন যারা নেতৃত্ব দিতে পারেন তাদের কাউকে বাঁচিয়ে রাখা হবে না। বঙ্গবন্ধুর সরাসরি খুনিদের বিচার করা সম্ভব হয়েছে কিন্তু বঙ্গবন্ধু হত্যার ষড়যন্ত্রের সঙ্গে যারা জড়িত, তাদের বিচার আমরা করতে পারি নি। বঙ্গবন্ধুর নিরাপত্তা দিতে ব্যর্থদের বিচারও আমরা করতে পারি নি।

[৫] শ ম রেজাউল করিম আরো বলেন, স্বাধীনতার পরাজিত শত্রুদের প্রেতাত্বা এখনো এ দেশে বাস করছে। এ কারণে এখনো মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের ব্যক্তিরা দেশে নিরাপদ নয়। এদের বিরুদ্ধে ঘুরে দাঁড়াতে হলে সাংগঠনিক শক্তিকে দৃঢ়তর করতে হবে। দলকে সুসংগঠিত করতে হবে। সম্মিলিতভাবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করতে হবে। যেখানে হাইব্রিড রাজনীতিতে সম্পৃক্ত, অর্থ-বিত্তের লোভের সাথে সম্পৃক্ত মানুষরা থাকবে না। তা না হলে আমাদের রাজনীতি আবার ঠুনকো ধাক্কায় ভেঙ্গে যেতে পারে।

[৬] মিটিংয়ে উপস্থিত ছিলেন, পিরোজপুরের জেলা প্রশাসক আবু আলী মো. সাজ্জাদ হোসেনের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পিরোজপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাঈদুর রহমান ও পিরোজপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ হাকিম হাওলাদার। বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ইসহাক আলী খান পান্না, পিরোজপুর সদর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক মজিবুর রহমান খালেক, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের সাবেক কমান্ডার গৌতম নারায়ণ চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক ও জেলা যুবলীগের সভাপতি আক্তারুজ্জামান ফুলু, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জিয়াউল আহসান গাজী,জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাকসুদুর ইসলাম লিটন প্রমুখ।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত