প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] কাল শেষ হবে বাজেট অধিবেশন, জাতীয় সংসদের নির্বাচনী এলাকার সীমানা নির্ধারণ আইন-২০২১ উত্থাপিত হবে

মনিরুল ইসলাম : [২] চলতি বাজেট অধিবেশন আজ শেষ হবে বলে জানা গেছে। সকাল ১১ টায় ২দিন বিরতির পর কাল শনিবার আবার মুলতবী অধিবেশন বসবে।

[৩] স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরীর সভাপতিত্বে অধিবেশন শুরু হবে। সংসদনেতা ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সমাপনী অধিবেশনে সাংবিধানিক রেওয়াজ অনুযায়ী সমাপনী বক্তব্য রাখবেন।

[৪] এদিকে, সংসদ সচিবালয়ের আইন শাখা সূত্রে জানা গেছে, কাল শনিবার সংসদে উঠছে জাতীয় সংসদের নির্বাচনি এলাকার সীমানা নির্ধারণ আইন-২০২১। সামরিক সরকারের আমলে জারি হওয়া এ সংক্রান্ত Delimitation of Constituencies Ordinance, 1976 রদ করতে এই আইনটি আসছে। দেশের সব আইন বাংলায় প্রণয়নের নির্দেশনা এবং সংসদের পঞ্চম সংশোধনী বাতিল সংক্রান্ত উচ্চ আদালতের আদেশ বাস্তবায়নের লক্ষেই মূলত নতুন করে আইনটি আনা হচ্ছে। আইনটি ইংরেজি থেকে বাংলায় অনুবাদসহ সামান্য কিছু পরিবর্তন আসছে এই আইনে।

[৫] শনিবার ৩ জুলাই একাদশ জাতীয় সংশোধনের ১৩তম অধিবেশনের সমাপনী দিনে সংসদ কাজে নির্বাচন কমিশনের দায়িত্বপ্রাপ্ত আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক আইনটি সংসদে উত্থাপন করবেন। । সংসদীয় কমিটির রিপোর্টের পর এই পরবর্তী অধিবেশনে পাস হতে পারে বলে জানা যায়।

[৬] ৩০ জুন বুধবার সংসদে আগামী অর্থবছরের জন্য ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকার বাজেট পাস হয়েছে। অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল এই বাজেটের নাম দিয়েছেন ‘জীবন-জীবিকায় প্রাধান্য দিয়ে সুদৃঢ় আগামীর পথে বাংলাদেশ’।

[৭] স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধরীর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সংসদ অধিবেশনে এই বাজেট কণ্ঠভোটে পাস হয়। বাজেট পাসের পর ৩ জুলাই শনিবার সকাল ১১ টা পর্যন্ত বাজেট অধিবেশন মুলতবী ঘোষণা করেন স্পিকার।

[৮] অর্থমন্ত্রী ৩ জুন সংসদে এই বাজেট উপস্থাপন করেন। প্রস্তাবিত বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী ও সংসদনেতা শেখ হাসিনা, বিরোধী দলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ কাদেরসহ সরকারি দল, জাতীয় পার্টি, বিএনপি, জাসদও গণফোরামের সংসদ সদস্যরা।

[৯] বাজেট উপস্থাপনের পর ২০২০-২১ অর্থবছরের সম্পূরক বাজেট পাস হয় ৭ জুন। এরপর চার দিন ২০২১-২২ অর্থবছরের বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনা হয়। এরও পর টানা ১০ দিন বিরতি দিয়ে বাজেটের ওপর আলোচনা হয় ২ দিন। সব মিলিয়ে শতাধিক সদস্যরা বাজেটের ওপর আলোচনায় অংশ নেন। গত মঙ্গলবার ২৯ জুন সংসদে অর্থবিল পাস হয়।

[ ১০] এবারের বাজেটের মোট আকারের মধ্যে উন্নয়ন ব্যয় ২ লাখ ৩৮ হাজার কোটি টাকা। আর পরিচালন ব্যয় ৩ লাখ ৬২ হাজার কোটি টাকা। পরিচালন ব্যয়ের মধ্যে সরকারি কর্মচারীদের বেতন-ভাতা পরিশোধে ব্যয় হবে প্রায় ৭০ হাজার কোটি টাকা। সুদ বাবদ ব্যয় রয়েছে ৬৮ হাজার কোটি টাকার বেশি।

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত