প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] অগ্নিকাণ্ডের রাতে হাজী মুসা ম্যানশনের গ্রিল কেটে পালান দোকান মালিক মোস্তফা

মাসুদ আলম: [২] সোমবার কারওয়ানবাজার র‌্যাব মিডিয়া সেন্টারে সংবাদ সম্মেলনে সংস্থার লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইংয়ের পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, পুরান ঢাকার আরমানিটোলায় হাজী মুসা ম্যানশন ভবনের নিচ তলায় ১৫ হাজার টাকায় দোকান ভাড়া নিয়েছিলেন মোস্তাফিজুর রহমান (৪২) ও মোহাম্মদ মোস্তফা (৪৫)। অগ্নিকাণ্ডের সময় কেরানীগঞ্জের বাসায় ছিলেন মোস্তাফিজুর। আর ওই ভবনের দোতলায় পরিবার নিয়ে বসবাস করতেন মোস্তফা।

[৩] তিনি আরও বলেন, গ্রেপ্তারকৃতরা প্রায় ৫-৭ বৎসর ধরে ওই ভবনের নিচতলা ভাড়া নিয়ে কেমিক্যালের ব্যবসা পরিচালনা করে আসছিলেন। মোস্তাফিজুর রহমান মঈন অ্যান্ড ব্রাদার্সের স্বত্বাধিকারী এবং মোহাম্মদ মোস্তফা মেসার্স আরএস এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী। ৪-৫ বছর ধরে তারা অতিরিক্ত মুনাফা লাভের আশায় স্ব স্ব গোডাউনে বিভিন্ন ধরনের কেমিক্যাল ও দাহ্য পদার্থ মজুদ করেছিলেন। এ জাতীয় কেমিকেল মজুদের ব্যাপারে তাদের যথাযথ কর্তৃপক্ষের কোনো অনুমতি ছিলো না।

[৪] তিনি বলেন, ঘটনার পর তারা আত্মগোপনে চলে যান। সোমবার ভোরে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনায় দায়ের করা মামলার দুই নম্বর আসামি মোস্তাফিজুর রহমানকে রাজধানীর উত্তরা থেকে এবং তিন নম্বর আসামি মোহাম্মদ মোস্তফাকে বগুড়ার নন্দীগ্রাম থেকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব-১০ ও গোয়েন্দা বিভাগ।

[৫] তিনি আরও বলেন, গত ২৩ এপ্রিল হাজী মুসা ম্যানশন নামক আবাসিক ভবনের নিচ তলার কেমিক্যালের দোকান ও গোডাউন থেকে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। ভবনের মালিক মোস্তাক পলাতক রয়েছে। তাকে গ্রেপ্তারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত