প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

সাংবাদিক সাইফুল ইসলামকে প্রাণনাশের হুমকি,ডিআরইউ ও ক্র্যাবের নিন্দা

আতাউর অপু: ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি’র (ডিআরইউ) সাবেক সভাপতি, বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনের (ক্র্যাব) সদস্য ও বৈশাখী টিভির প্রধান বার্তা সম্পাদক সাইফুল ইসলাম এবং বৈশাখী টেলিভিশনের স্টাফ রিপোর্টার কাজী ফরিদকে কাফনের কাপড় পাঠিয়ে প্রাণনাশের হুমকি দেওয়ার তীব্র নিন্দা ও উদ্বেগ জানিয়েছে ডিআরইউ ও ক্র্যাব।

সাইফুল ইসলাম বলেন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্নীতি, অনিয়ম বিষয়ে ৫ পর্বের অনুসন্ধানি প্রতিবেদন প্রচার করা হয়। এর জের ধরে গত ১ ফেব্রুয়ারি কুরিয়ার সার্ভিসের মাধ্যমে অফিসের ঠিকানায় প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের খামে দুটি চিঠি এসেছে। চিঠির প্রেরকের জায়গায় লেখা আছে, মো. সুমন ইসলাম, সি. সহকারী প্রক্টর, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, গাজীপুর। মোবাইল নম্বর : ০১৭১২৬৮০৮০৪। দুটি চিঠির একটি আমার নামে আর অপরটি স্টাফ রিপোর্টার কাজী ফরিদের নামে।’

তিনি আরও বলেন,‘দুটি খামের ভেতরে সাদা কাগজে টাইপ করা চিঠিতে লেখা আছে, ‘বিশিষ্ট বুদ্ধিজীবী, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বজন শ্রদ্ধেয় মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন অর রশিদ স্যার এবং সফল প্রক্টর তায়েহীদ জামাল শিপু স্যারের মত সৎ ও মুক্তিযুদ্ধের পক্ষশক্তির বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচারের দাতভাঙ্গা জবাব ও করুণ পরিণতির জন্য তৈরি থাক, রাস্কেল।’ দুটি খামে দুজনের নামে পাঠানো এবং চিঠির ভাষা একই। শুধু তাই নয়, দুটি খামের মধ্যে চিঠির সাথে এক টুকরা করে কাফনের কাপড় পাঠানো হয়েছে। চিঠি হাতে পাওয়ার পর বিষয়টি নিয়ে আমি ও বৈশাখী টিভির কাজী ফরিদ চরম উদ্বিগ্ন ও নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।’

ইতিমধ্যে বিষয়টি নিয়ে বনানী থানায় গত ১ ফেব্রুয়ারি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়েছে; যার নম্বর ৬২।

ডিআরইউ ও ক্র্যাব নেতৃবৃন্দ মনে করেন জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় সংশ্লিষ্ট দুর্নীতিবাজ অসাধু চক্রের প্রত্যক্ষ ইন্ধনে এই ধরনে হুমকি দেওয়ার অপচেষ্টা করা হয়েছে।

ডিআরইউ ও ক্র্যাব নেতৃবৃন্দ এক বিবৃতিতে বলেন, আমরা জানতে চাই কারা সেই প্রভাবশালী চক্র? দুর্নীতিবাজ চক্রের এ ধরনের হুমকি সাংবাদিক সমাজ স্বাভাবিকভাবে মেনে নিবে এমনটা ভাবার কোন কারণ নেই। আমরা আইনের প্রতি শ্রদ্ধাশীল। এ বিষয়ে যেহেতু থানায় জিডি হয়েছে আইন প্রয়োগকারী সংস্থা তদন্ত করে এই হুমকির ঘটনায় জড়িতদের সনাক্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নিবে এটাই আমাদের প্রত্যাশা। এধরনের হুমকির পর কোন ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটলে তার সম্পুর্ণ দায়ভার জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ও প্রক্টরসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকেই নিতে হবে।

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত