প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

কপ্টার ক্যারিয়ার তৈরি করল ইরান (ভিডিও)

রাশিদ রিয়াজ : ইরানের নৌবাহিনীকে দেশটিতে তৈরি সবচেয়ে বড় জাহাজ বুঝিয়ে দেওয়া হয়েছে। বুধবার সকালে ইরানের দক্ষিণাঞ্চলে দেশটির নৌবাহিনীর কাছে জাহাজটি হস্তান্তর করা হয়। ‘মারকান’ নামে এ জাহাজটিতে হেলিকপ্টার বহন করা যায়। মূলত সাগরে ইরানের নৌবাহিনীর যুদ্ধ জাহাজগুলোতে সরঞ্জাম ও উপকরণ সরবরাহের কাজে এ জাহাজটি ব্যবহার করা হবে। এক্তেদার নামে দুইদিনের নৌ মহড়ায় যোগ দেয় ইরানে তৈরি এ জাহাজটি। এসময় ইরানের আর্মড ফোর্সের চিফ অব স্টাফ মেজর জেনারেল মোহাম্মাদ হোসেইন বাঘেরি, আর্মি কমান্ডার মেজর জেনারেল আব্দোলরাহিম মুসাভি ও অন্যান্য সিনিয়র কমান্ডার উপস্থিত ছিলেন। ইরানের তৈরি এ জাহাজটিতে ১ লাখ টন তেল ও বিশুদ্ধ পানি বহন করা যায়। সাগরে বিভিন্ন স্থানে ইরানের অন্যান্য জাহাজে এ জাহাজটি তেল ও পানি সরবরাহের কাজেও ব্যবহার হবে। বন্দরে নোঙ্গর ছাড়াও এ জাহাজটি ১ হাজার দিন অনবরত চলতে সক্ষম। মেহর/প্রেসটিভি

ইরানের নেভি কমান্ডার রিয়ার এ্যাডমিরাল হোসেইন খানজাদি বলেন মাকরান ৭টি হেলিকপ্টার পরিবহন করতে পারে। ভারত মহাসাগর, বাব আল-মানদাব স্ট্রেইট ও লোহিত সাগরে ইরানি যুদ্ধ জাহাজগুলোতে উপকরণ সরবরাহে মাকরান জাহাজ ব্যবহার করা হবে।

এদিকে ইরানের নৌবাহিনীর কাছে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা করতে সক্ষম নতুন জাহাজ ‘জেরেহ’ হস্তান্তর করা হয়েছে। ইরানের দক্ষিণাঞ্চলীয় সাগরে এ যুদ্ধ জাহাজ দেশটির নৌবাহিনীর সক্ষমতা আরো বৃদ্ধি করবে। ‘জেরেহ’ উচ্চ গতিসম্পন্ন জাহাজ এবং অত্যাধুনিক ক্ষেপণাস্ত্র ও অস্ত্রে সজ্জিত। ইরানের পেয়কান শ্রেণীর রকেট নিক্ষেপযোগ্য জাহাজের শ্রেণীবিভাগে এ যুদ্ধজাহাজটি পড়ে। ইরানের নৌবাহিনীর প্রযুক্তিবিদরা এটি তৈরি করেছে। জাহাজটির সব ধরনের সক্ষমতা পরীক্ষা করার পর তা নৌ মিশনে যোগ দেয়া হয়েছে।

 

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত