প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

[১] যে বিশেষ কারণে জাতীয় সংগীতে পরিবর্তন আনল অস্ট্রেলিয়া

স্পোর্টস ডেস্ক: [২] জাতীয় সংগীতে সংশোধন করেছে অস্ট্রেলিয়া। দেশটির আদিবাসী জনগোষ্ঠীকে বিশ্বের প্রাচীনতম চলমান সভ্যতা হিসেবে স্বীকৃতি দিতে জাতীয় সংগীতের কিছু শব্দ পরিবর্তন করা হয়েছে। অসি প্রধানমন্ত্রী স্কট মরিসনের ঘোষণার মধ্য দিয়ে আজ ১ জানুয়ারি নতুন বছরের প্রথম দিন থেকেই পরিবর্তীত জাতীয় সংগীত কার্যকর হয়েছে। – বার্তা সংস্থা রয়টার্স

[৩] অস্ট্রেলিয়ার জাতীয় সংগীতে এতদিন দেশকে ‘তরুণ ও মুক্ত’ বলে প্রকাশ করা হতো। এখন থেকে এই শব্দগুলো পরিবর্তন করে ‘আমরা এক ও মুক্ত’ করা হয়েছে।

[৪] ক্যানবেরায় এক সংবাদ সম্মেলনে অজি প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা নিরবধি চলমান প্রাচীন আদিবাসীসমৃদ্ধ এক ভূখণ্ডে বসবাস করি। আমাদের এখানে তিনশর বেশি আদি জাতিসত্ত্বা ও ভাষাভাষী দলের কথকতা রয়েছে।’

[৫] ‘আর আমাদের জাতীয় সংগীতে এর প্রতিফলন থাকা উচিত। জাতীয় সংগীতে যে পরিবর্তন আমরা করেছি এবং আজ যে ঘোষণা আমরা দিয়েছি, তাতে আমি মনে করি, আমাদের সে লক্ষ্য পূরণ হয়েছে’, যোগ করেন অসি প্রধানমন্ত্রী।

[৬] আদিবাসীদের সঙ্গে মিলমিশ করতে বহু বছর ধরে চেষ্টা করে যাচ্ছে অস্ট্রেলিয়া প্রশাসন। ব্রিটিশ ঔপনিবেশিক শাসনের ৫০ হাজার বছর আগে অস্ট্রেলিয়া মহাদেশে আদিবাসীদের আগমন ঘটে।

[৭] অস্ট্রেলিয়ার সিডনি হারবারে ১৭৮৮ সালের ২৬ জানুয়ারি যুক্তরাজ্য থেকে মনুষ্যবাহী প্রথম জাহাজবহর নোঙর করে। ওইসব জাহাজে করে মূলত দণ্ডপ্রাপ্ত অপরাধী ও সেনাদের পাঠিয়েছিল যুক্তরাজ্য। ওই দিনটি উপলক্ষ্যে ২৬ জানুয়ারি অস্ট্রেলিয়ায় জাতীয় ছুটির দিন বা ‘অস্ট্রেলিয়া দিবস’। তবে কিছু আদিবাসীর কাছে দিনটি ‘হানাদারের অনুপ্রবেশ দিবস’। – বিবিসি স্পোর্টস

[৮] যুক্তরাষ্ট্রে গেল বছর শুরু হওয়া ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ নামে কৃষ্ণাঙ্গদের প্রতি নৈতিক সমর্থনে মানবাধিকার আন্দোলনের মধ্যে আদিবাসীদের প্রতি নতুন করে মনোযোগ দিয়েছে অস্ট্রেলিয়া। সম্পাদনা: সারোয়ার জাহান

এক্সক্লুসিভ রিলেটেড নিউজ

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত