প্রচ্ছদ

সর্বশেষ খবর :

নিয়াজিকে জেনারেল জ্যাকব বুঝতেই দেননি ঢাকায় তার হাতে মাত্র হাজার তিনেক সেনা ছিলো!

আরিফ রহমান: আপনার ক্ষমতা নেই কিন্তু আপনি হ্যাডম নিতে জানেন? আপনি জিতবেন। আত্মসমর্পণের দলিলের একটা খসড়া নিজেই তৈরি করেছিলেন জেনারেল জ্যাকব। দিল্লির সঙ্গে কোনো পরামর্শ না করেই। তার হাইকমান্ডের নির্দেশনা ছিলো চট্টগ্রাম আর খুলনা দখলদার মুক্ত করার। মূলত ভারত সেনাবাহিনীর প্ল্যান ছিলো পাকিস্তানকে ইউএন রেগুলেশনের আওতায় যুদ্ধ বিরতিতে বাধ্য করা। এদিকে পাকিস্তানেরও মানসিক প্রস্তুতি ছিলো ইউএন রেগুলেশনের আওতায় যুদ্ধবিরতির দিকে যাওয়ার। মাঝেখানে কেবল শর্তগুলো নিয়ে দর কষাকষির কারবার চলছিলো। কিন্তু এই পাগল লোকটা তখন অন্য প্ল্যানে হাঁটছিলেন।

কোনো প্রটেকশন ছাড়াই নিয়াজির কাছে গিয়ে সোজা জানিয়ে দিলেন যুদ্ধবিরতি-ফিরতি মানা যাবে না, এই উন্মুক্ত আত্মসমর্পণের দলিল আধঘণ্টার মধ্যে মেনে নিতে হবে, নইলে ঢাকায় এক্ষুনি বম্বিং শুরু করবো। আর মেনে নিলে আপনার সব সেনার সুরক্ষার দায়িত্ব আমার। তাদের গায়ে কেউ হাত দেবে না।’ নিয়াজি হতভম্ব হয়ে বসে আছে। জ্যাকব তখন দলিলের খসড়াটা তার চোখের সামনে দোলালেন। বললেন, ‘আপনি চুপ করে থাকলে আমি ধরে নিচ্ছি আপনারা এটা মেনে নিচ্ছেন।’ বলেই ব্যাস কোমরে পিস্তল ঝুলিয়ে যেমন নাটকীয়ভাবে ঢুকেছিলেন, সেভাবেই বেরিয়ে গেলেন। জেনারেল জ্যাকব নিয়াজিকে বুঝতেই দেননি ঢাকায় তার হাতে মাত্র হাজার তিনেক সেনা ছিলো। অথচ শুধু ঢাকাতেই পাকিস্তানি সেনার সংখ্যা তখন ভারতীয় সেনার প্রায় নয়গুণ। সাতাশ হাজারের কাছাকাছি। আত্মসমর্পণ না-করেও অনায়াসে আরও অন্তত ১৫দিন যুদ্ধ চালিয়ে যেতে পারতো পাক বাহিনী। ততোদিনে জাতিসংঘের আলোচনায় কী ফল হয় অপেক্ষা করা যেতো তার জন্যও। কিন্তু জ্যাকব এমন একটা ধারণা সৃষ্টি করতে পেরেছিলেন যে ঢাকার পতনের আর এতটুকুও দেরি নেই। আত্মসমর্পণ না করলে জেনারেল নিয়াজি ও তার সঙ্গীদের মৃত্যু অবধারিত।

আর এ কারণেই ভারতের বিখ্যাত সামরিক গবেষক ও ইনস্টিটিউট অব পিস অ্যান্ড কনফ্লিক্ট স্টাডিজের প্রধান মেজর জেনারেল দীপঙ্কর ব্যানার্জি মনে করেন- জ্যাকব নিয়াজির সঙ্গে যা-করেছিলেন তা বিশ্বের সামরিক ইতিহাসে সবচেয়ে বড় ‘ব্লাফ’ বা ‘ধোঁকা’গুলোর একটা। এমন একটা ব্লাফ দিয়ে তিনি পাকিস্তানিদের ওপর সাংঘাতিক একটা মনস্তাত্ত্বিক চাপ তৈরি করতে পেরেছিলেন। যে কারণে তারা বেশ অপ্রত্যাশিতভাবেই আত্মসমর্পণে রাজি হয়ে যায়। তারা বোঝেওনি যে ভারতের সঙ্গে মাত্র তিন হাজার সেনা আছে। এর পেছনে পুরো কৃতিত্ব জ্যাকবের বুদ্ধিমত্তাকেই। কারণ পাকিস্তানিদের কিন্তু সারেন্ডার না করলেও চলতো। পরে যুদ্ধের তদন্তে গঠিত পাকিস্তানে জাস্টিস হামিদুর রহমান কমিশন যখন নিয়াজিকে প্রশ্ন করেছিলো প্রায় সাতাশ হাজার সেনা সঙ্গে নিয়েও তিনি কেন আত্মসমর্পণ করলেন? তখন নিয়াজির উত্তর ছিলো ‘জ্যাকব আমায় ব্ল্যাকমেল করেছে যে আমার পরিবারকে বেয়নেট দিয়ে খুঁচিয়ে মারা হবে’। ১৯৭৮ সালে অবসরে যান জেনারেল জ্যাকব। মুক্তিযুদ্ধের কৃতিত্বের বড় অংশ দাবী করে যেই ভারত সেই ভারত এই জেনারেল জ্যাকবকে সেনাপ্রধান করেনি। ১৩ই জানুয়ারি ২০১৬ সালে জেনারেল সাহেব মারা যান। ফেসবুক থেকে

 

সর্বশেষ

সর্বাধিক পঠিত